নগরীর দশ সরকারি স্কুলে ভর্তিতে ২ লাখ ৩৫ হাজার আবেদন

লটারি ১২ ডিসেম্বর

আজাদী প্রতিবেদন | বুধবার , ৭ ডিসেম্বর, ২০২২ at ৬:২১ পূর্বাহ্ণ

মাধ্যমিক পর্যায়ের সরকারি ও বেসরকারি স্কুল ভর্তিতে অনলাইনে আবেদনের সময়সীমা গতকাল (৬ ডিসেম্বর) শেষ হয়েছে। ১৬ নভেম্বর থেকে এ আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়। স্কুল ভর্তি সংক্রান্ত ওয়েবসাইটের (http://www.gsa.teletalk.com.bd) – মাধ্যমে এ আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে ভর্তিচ্ছুরা। নির্ধারিত সময়ে নগরীর দশটি সরকারি স্কুলের ৫ম থেকে নবম শ্রেণি ভর্তিতে মোট ২ লাখ ৩৫ হাজার ৩১ টি আবেদন জমা পড়েছে এবার। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) উপ-পরিচালক (মাধ্যমিক) মোহাম্মদ আজিজ উদ্দিন আজাদীকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ৬ ডিসেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত অনলাইনে আবেদনের সুযোগ ছিল। এই সময়ে চট্টগ্রাম মহানগরীর দশ সরকারি স্কুলে ভর্তিতে অনলাইনে ২ লাখ ৩৫ হাজার ৩১টি আবেদন পড়েছে। মাউশির তথ্য অনুযায়ী, অনলাইনে লটারির মাধ্যমেই ভর্তির জন্য শিক্ষার্থী নির্বাচন করা হবে। গত দুবছরের ধারাবাহিকতায় শিক্ষার্থী ভর্তিতে এবারও কোন পরীক্ষা নেয়া যাবে না। সরকারি স্কুলের লটারির তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে জানিয়ে মোহাম্মদ আজিজ উদ্দিন বলেন, শুরুতে সরকারি স্কুলে ভর্তির লটারি ১০ ডিসেম্বর এবং বেসরকারি স্কুলে ভর্তির লটারি ১৩ ডিসেম্বর নির্ধারিত ছিল। তবে সরকারি স্কুলের লটারির তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে। ১০ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ১২ ডিসেম্বর এ লটারি অনুষ্ঠিত হবে। অবশ্য, বেসরকারি স্কুলের লটারি পূর্বের সূচি অনুযায়ী ১৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে বলে নিশ্চিত করেন মাউশির এ কর্মকর্তা।

দশ সরকারি স্কুলে আসন সংখ্যা : এতদিন চট্টগ্রাম মহানগরে সরকারি স্কুলের সংখ্যা ৯টি থাকলেও ২০২০ সাল থেকে চট্টগ্রাম সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজও এ তালিকায় যুক্ত হয়েছে। সে সুবাদে নগরীতে সরকারি স্কুলের সংখ্যা এখন দশটি। সরকারি স্কুলগুলোর মধ্যে রয়েছে কলজিয়েট স্কুল, ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়, নাসিরাবাদ সরকারি (বালক) উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি সিটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, হাজী মুহাম্মদ মহসিন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এবং চট্টগ্রাম সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ।

দশটি সরকারি স্কুলে ৫ম থেকে ৯ম শ্রেণিতে মোট ৩ হাজার ৯১৮টি (প্রায় ৪ হাজার) শূন্য আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে এবার। চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. আবু রায়হান দোলন আজাদীকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। স্কুলগুলোর ৫ম শ্রেণিতে ২ হাজার ৭৬, ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ৮০৩, ৭ম শ্রেণিতে ১৪৫, অষ্টমে ১৬৯ এবং নবম শ্রেণিতে ৭২৫ টি শূন্য আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসনের এ কর্মকর্তা।

বেসরকারি স্কুল ভর্তিতেও অনলাইনে আবেদন-লটারি: এতদিন বেসরকারি স্কুলগুলো নিজেদের মতো করে আলাদা ভাবে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতো। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের আলোকে গতবছর (২০২২ শিক্ষাবর্ষ) থেকে জেলা ও মহানগর পর্যায়ের বেসরকারি স্কুলের ভর্তি কার্যক্রমও অনলাইনের আওতায় আনা হয়েছে। সরকারি স্কুলের আদলে মাউশির অধীনেই বেসরকারি স্কুলের এ ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হচ্ছে। এ তথ্য নিশ্চিত করে মাউশির উপ-পরিচালক (মাধ্যমিক) মোহাম্মদ আজিজ উদ্দিন আজাদীকে বলেন, বেসরকারি স্কুলগুলোর ভর্তি কার্যক্রম এবার দ্বিতীয়বারের মতো মাউশির অধীনে অনলাইনে সম্পন্ন হচ্ছে।

এখনো শতভাগ প্রতিষ্ঠানকে এর আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। তবে আগামীতে সব বেসরকারি স্কুলকে বাধ্যতামূলক ভাবে এ অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমের আওতায় আনা হবে এবং কেন্দ্রীয় ভাবে মাউশির অধীনে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। মাউশির অধীনে অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমে যুক্ত হওয়া কোন বেসরকারি স্কুল আলাদা করে ভর্তি ফরম বিক্রি করতে পারবে না বলেও জানান মাউশির উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আজিজ উদ্দিন।

প্রসঙ্গত, সামপ্রতিক বছরগুলোতে লটারির মাধ্যমে কেবল প্রথম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হতো। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে ২০২১ শিক্ষাবর্ষের সব শ্রেণিতেই লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। গতবছরও (২০২২ শিক্ষাবর্ষে) এ ধারবাহিকতা বজায় ছিল। এবারও (২০২৩ শিক্ষাবর্ষে) লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তির ধারা অব্যাহত থাকছে। সরকারি স্কুলের পাশাপাশি বেসরকারি স্কুলেও একই প্রক্রিয়ায় (লটারির মাধ্যমে) শিক্ষার্থী ভর্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই সিদ্ধান্তের আলোকে সারা দেশে কেন্দ্রীয়ভাবে ভর্তির লটারি আয়োজন করা হবে। টেলিটকের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন, লটারি ও ফল প্রকাশ করবে মাউশি।