সুধীন্দ্রনাথ দত্ত : আধুনিক বাংলা কবিতার অন্যতম পুরোধা

মঙ্গলবার , ২৫ জুন, ২০১৯ at ১০:৩৩ পূর্বাহ্ণ

সুধীন্দ্রনাথ দত্ত – বিশিষ্ট কবি, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক ও শিক্ষক। রবীন্দ্র সমসাময়িক কবি, কবিগুরুর সান্নিধ্যে ছিলেন, কিন্তু নিজের রচনায় স্বাতন্ত্র্য লক্ষ করা যায়। কবিতায়, প্রবন্ধ রচনায়, পত্রিকা সম্পাদনায় এর প্রভাব সুস্পষ্ট। আধুনিক বাংলা কবিতায় তিনি এক নতুন ধারার জন্ম দেন। তাঁকে আধুনিক বাংলা কবিতার অন্যতম পুরোধা বলা হয়ে থাকে। আজ কবির ৫৯তম মৃত্যুবার্ষিকী।
সুধীন্দ্রনাথ দত্তের জন্ম ১৯০১ সালের ৩০ নভেম্বর কলকাতার হাতিবাগানে। কলকাতা ওরিয়েন্টাল সেমিনারি থেকে মাধ্যমিক, স্কটিশ চার্চ কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ও স্নাতক ডিগ্রি নেন। পরবর্তী সময়ে বাবার কাছে আইন বিষয়ে অধ্যয়ন করেছেন। ইংরেজি, ফারসি ও জার্মান ভাষায় তাঁর বিশেষ দখল ছিল। কর্মজীবনে বীমা কোম্পানিতে চাকরি, সাংবাদিকতা, ও অধ্যাপনা করেছেন। সাংবাদিকতার শুরু ‘পরিচয়’ পত্রিকা সম্পাদনার মাধ্যমে। ১৯৩১ সাল থেকে টানা বারো বছর তিনি এই পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। এর আগে কবিগুরুর সফরসঙ্গী হয়ে দু বছর জাপান ও আমেরিকা ভ্রমণ করেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কাজ করেছেন স্টেটসম্যান পত্রিকায়। প্রগতিপন্থী পত্রিকা ‘ফরোয়ার্ড’এবং প্রমথ চৌধুরী সম্পাদিত সাহিত্য পত্রিকা ‘সবুজপত্র’র সাথেও সম্পৃক্ততা ছিল সুধীন্দ্রনাথ দত্তের। অধ্যাপনা করেছেন শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় এবং পশ্চিমবঙ্গে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। তাঁর রচিত উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ : ‘উত্তর ফাল্গুনী’, ‘ক্রন্দসী’, ‘তন্বী’, ‘অর্কেস্ট্রা’, ‘সংবর্ত’, ‘প্রতিধ্বনি’ প্রভৃতি। প্রবন্ধ গ্রন্থ : ‘স্বগত’, ‘কুলায় ও কালপুরুষ’ ইত্যাদি। তাঁর সম্পাদনা মুক্ত বুদ্ধিজাত, মননশীলতায় সমৃদ্ধ। কাব্য রচনায় এক বিদগ্ধ কবিমনের পরিচয় মেলে। এক বেদনাচ্ছন্ন ছায়াপাত গভীর ও মাধুর্যময় করে রাখে তাঁর কাব্যকে। ১৯৬০ সালের ২৫-এ জুন প্রয়াত হন কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত।

x