বিশ্বকাপ বাছাইয়ে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত, কাতার, ওমান, আফগানিস্তান

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ১৮ জুলাই, ২০১৯ at ৫:১৯ পূর্বাহ্ণ
147

২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে কঠিন সব প্রতিপক্ষকে পেয়েছে বাংলাদেশ। এই গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হিসেবে রয়েছে আফগানিস্তান, ভারত, ওমান এবং ২০২২ সালের বিশ্বকাপের স্বাগতিক দেশ কাতার। বাছাই পর্বের প্রথম রাউন্ড পার করা ছয়টি এবং র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে থাকা আরও ৩৪টিসহ মোট ৪০ দল নিয়ে গতকাল বুধবার মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে কাতার বিশ্বকাপ ও ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এই বাছাই পর্বে বাংলাদেশ পড়েছে ‘ই’ গ্রুপে। এই গ্রুপের পাঁচ দলের মধ্যে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে কাতার। ৫৫তম অবস্থানে আছে এশিয়া কাপের চ্যাম্পিয়ন এবং ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজকরা। শুধু তাই নয় গ্রুপের বাকি সদস্যরাও র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে বাংলাদেশের চাইতে। বর্তমান র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ১৮৩তম। গ্রুপের অন্য দল গুলোর মধ্যে ওমান রয়েছে ৮৬তম স্থানে, ভারত ১০১তম স্থানে এবং আফগানিস্তান ১৪৯তম স্থানে আছে।
গ্রুপের প্রতিটি দল হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে পরষ্পরের বিপক্ষে খেলবে। ম্যাচগুলো হবে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর থেকে ২০২০ সালের ৯ জুন পর্যন্ত। এই পর্ব শেষে আট গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ও সেরা চার রানার্সআপ সহ মোট ১২ দল পাবে বিশ্বকাপের এশিয়া অঞ্চলের বাছাইয়ের তৃতীয় রাউন্ডের টিকেট। আর গ্রুপ পর্ব শেষে এই ১২ দল সরাসরি পরের বছর এশিয়ান কাপে খেলার যোগ্যতাও অর্জন করবে। পরের সেরা ২৪ দল নিয়ে আলাদা আরেকটি বাছাই পর্ব হবে। সেখান থেকে নির্ধারিত হবে চীনে ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাকি দলগুলো। ফলে বিশ্বকাপের বাছাইয়ে টিকতে না পারলেও সুযোগ থাকবে এশিয়ান কাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার । এদিকে ২০২২ সালের ২১ নভেম্বরে শুরু হবে কাতার বিশ্বকাপ। ফাইনাল হওয়ার কথা রয়েছে ১৮ ডিসেম্বরে।
গত ১১ জুন বিশ্বকাপ ফুটবলের চূড়ান্ত বাছাই পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে বাংলাদেশ। প্রাক-বাছাইয়ের দ্বিতীয় লেগে লাওসের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল জেমি ডে’র শিষ্যরা। ফলে প্রথম লেগে লাওসের বিপক্ষে পাওয়া ১-০ গোলের জয়েই চূড়ান্ত বাছাই পর্ব নিশ্চিত করে লাল-সবুজের দলটি। এর আগে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিল অস্ট্রেলিয়া, জর্ডান, কিরাগিজস্তান ও তাজিকিস্তান। সেবার অবশ্য ৮ ম্যাচ খেলে কোনো জয় পায়নি বাংলাদেশ। ১টি ম্যাচ হয়েছিল ড্র।
বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ৪০ দেশ র‌্যাংকিং অনুসারে ছিল ৫ টি পটে। বাংলাদেশ ছিল শেষ পটে। লটারির মাধ্যমে পাঁচ নম্বর পট থেকেই একটি একটি করে দলের নাম উঠিয়ে রাখা হয় ৮ গ্রুপে। গুয়াম, নেপাল, কম্বোডিয়া, সিঙ্গাপুরের পর বাংলাদেশের নাম ‘ই’ গ্রুপের পঞ্চম দল হিসেবে। ৫ নম্বরেই বসানো হয় বাংলাদেশের নাম। গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে এক নম্বর পট থেকে উঠেছিল কাতারের নাম। কিন্তু গ্রুপ চূড়ান্ত হওয়ার পরই বাংলাদেশের নাম ৫ নম্বর থেকে তুলে বসানো হয় এক নম্বরে। এক নম্বর হওয়া কাতারকে বসানো হয় পাঁচে। কাতারের এই অনুরোধ ড্র অনুষ্ঠানের শুরুতে জানিয়ে দেয়া হয়েছিল উপস্থিত সবাইকে। কাতারের এই চাওয়ার কারণ ছিল আগামী বছরের কোপা আমেরিকা।
এবারের মতো আগামী বছরও ল্যাটিন আমেরিকার এই ফুটবল টুর্নামেন্টে খেলবে কাতার। কোপা আমেরিকা হবে ১২ জুন থেকে ১২ জুলাই। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের কিছু ম্যাচ আছে ওই সময়েও। তবে গ্রুপের ৫ নম্বর দলের খেলা শেষ হয়ে যাবে ১০ জুনের মধ্যে। তাই কাতারের বিশ্বকাপ ম্যাচ আর কোপায় অংশ নেয়ার সময়টা আর সাংঘর্ষিক থাকছে না। বাংলাদেশ গ্রুপের ৫ নম্বরে থাকলে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্রথম ম্যাচ খেলতো ৫ সেপ্টেম্বর। এখন বাংলাদেশ গ্রুপের শীর্ষ দল। তাই লাল-সবুজ জার্সিধারীরা প্রথম ম্যাচ খেলবে ১০ সেপ্টেম্বর।
কাতার এবার ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত কোপা আমেরিকায় অংশ নিয়েছিল আর্জেন্টিনার সঙ্গে ‘বি’ গ্রুপে। প্যারাগুয়ের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে শেষ দুই ম্যাচ তারা হেরেছে কলোম্বিয়ার কাছে ১-০ ও আর্জেন্টিনার কাছে ২-০ গোলে।

x