কুন্দনলাল সায়গল: বাংলা চলচ্চিত্রের গীতকুশলী গায়ক

শুক্রবার , ১৮ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৩:৩৯ পূর্বাহ্ণ

কুন্দনলাল সায়গল সংগীত শিল্পী হিসেবে খ্যাতিমান। চলচ্চিত্রেও তিনি অভিনয় করেছেন। বিশ শতকের ত্রিশের দশকে, যখন চলচ্চিত্রে প্লেব্যাকের প্রচলন হয়নি, তখন সায়গল একইসাথে বাংলা চলচ্চিত্রে গায়ক ও অভিনেতা হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। আজ তাঁর ৭২তম মৃত্যুবার্ষিকী।
সায়গলের জন্ম ১৯০৪ সালের ১১ এপ্রিল পাঞ্জাবে। তাঁর অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ‘দেবদাস’। প্রমথেশ বড়ুয়া পরিচালিত এই ছবিতে সায়গল গায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। সায়গল প্রধানত রবীন্দ্র সংগীত, আধুনিক বাংলা গান ও রাগপ্রধান গান গাইতেন। ‘ঠুংরী’তে ছিলেন বিশেষ পারদর্শী। তাঁর অভিনীত বাংলা ছায়াছবির মধ্যে ‘জীবন-মরণ’, ‘সাথী’, ‘দিদি’, ‘পরিচয়’, ‘দেশের মাটি’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। হিন্দি ছায়াছবি ‘তানসেন’-এ সায়গল নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। এই চলচ্চিত্রে গাওয়া রাগাশ্রয়ী গানগুলোও তাঁকে জনপ্রিয় করে তুলেছিল। শিল্পীর গাওয়া একটি বিখ্যাত গান ‘আমারে ভুলিয়া যেও, মনে রেখো মোর গান’। হিন্দি ছায়াছবি ‘সাথী’-তে গাওয়া ‘বাবুল মেরা নাইহার ছুট না যায়’ ঠুংরীটিও ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছিল। প্লেব্যাক প্রথা প্রবর্তনের পর থেকে চলচ্চিত্রে সায়গলের প্রভাব কমতে থাকে। তবে বেতারে তিনি নিয়মিত গাইতেন। পাঞ্জাবের জলন্ধর বেতারে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। ১৯৪৭ সালের ১৮ জানুয়ারি মাত্র তেতাল্লিশ বছর বয়সে সায়গল প্রয়াত হন।

x