উত্তেজনার ম্যাচে ঘানাকে হারালো পর্তুগাল

ক্রীড়া প্রতিবেদক | শুক্রবার , ২৫ নভেম্বর, ২০২২ at ৮:২২ পূর্বাহ্ণ

প্রথমে গোল করেও পারেননি মেসি। কিন্তু পেরেছেন রোনাল্ডো। বিশ্বকাপের আগে নানা বিতর্কের জন্ম দিলেও বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সেই দুর্দান্ত রোনাল্ডো। আর তাতেই দলকে উপহার দিলেন বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে জয়। প্রথমার্ধে গোল খরায় ভুগতে থাকা ম্যাচটিতে দ্বিতীয়ার্ধে হলো ৫ গোল। গোলের প্রতিযোগিতার এই ম্যাচে জয়টা তুলে নিল রোনাল্ডোর পর্তুগাল। আর তাতে দারুণ জয়ে বিশ্বকাপ শুরু পর্তুগিজ রাজপুত্রের। নিজে গোল করলেন, পুরো মাঠ চষে বেড়ালেন আর দলকে উপহার দিলেন জয়। ফেভারিটের তকমা নিয়ে আসা পর্তুগাল শুরুটাও করল ফেভারিটের মত। আফ্রিকার দেশ ঘানাকে ৩-২ গোলে পরাজিত করে দুর্দান্ত শুরু ইউরোপের দেশ পর্তুগালের। পাওয়ার ফুটবলের ঘানা শেষ পর্যন্ত পারেনি হার এড়াতে। রোনাল্ডোদের আক্রমণাত্মক ফুটবলের সাথে কুলিয়ে উঠতে পারলনা ঘানা। ঠিক যেমনটি প্রয়োজন ছিল ম্যাচটি রোনাল্ডোর জন্য সেভাবেই যেন শুরু হলো। দারুণ উত্তেজনাকর ম্যাচটি শেষ হলো রোনাল্ডোর জয়ে। দারুণ স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ল পর্তুগাল। ইউরোপ আর আফ্রিকার লড়াইটি শুরু হয়েছিল উত্তেজনা দিয়ে। কিন্তু আক্রমণে এগিয়ে ছিল পর্তুগাল। রোনাল্ডোকে ঘিরে পর্তুগিজদের আক্রমণের চেষ্টা চলে। কিন্ত সাফল্য আসেনি প্রথমার্ধে। যদিও ১০ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার একটা সুযোগ এসেছিল রোনাল্ডোর সামনে। কিন্তু তার শট রুখে দেন ঘানার গোলরক্ষক।

ফর্নান্দেজ, সিলভারা মাঝ মাঠ দখলে রেখে আক্রমণ শানানোর চেষ্টা করে। সে সুবাধে খেলার ৩১ মিনিটে রোনাল্ডো বল জালে পাঠিয়েছিলেন। কিন্ত তার আগে ঘানার এক ফুটবলারকে ফাউল করায় বাতিল হয় সে গোল। প্রথমার্ধে ঘানা কোন আক্রমণই করতে পারেনি তেমন বলার মত। প্রথমার্ধের একেবারে শেষ দিকে রোনাল্ডোর শট আরো একবার বাইরে চলে গেলে হতাশা নিয়ে প্রথমার্ধ শেষ করতে হয় রোনাল্ডোর দলকে। গোলশূন্যভাবে শেষ হয় প্রথমার্ধ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে চাপ সৃষ্টি করার চেষ্টা করে ঘানা। সে সুবাধে খেলার ৫৪ মিনিটে ডি বঙের বাইরে থেকে দারুণ এক শট নিয়েছিলেন কুদ্দুস। কিন্তু তার সে শট চলে যায় সাইডবার ঘেষে। ৬২ মিনিটে নিজেদের ডি বঙে রোনাল্ডোকে ফাউল করেন সালিসু। রেফারি পেনাল্টির নির্দেশ দেন। আর সে পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন পর্তুগিজ অধিনায়ক। এই গোলের ফলে পাঁচটি বিশ্বকাপে গোল করার নজির সৃষ্টি করলেন রোনাল্ডো। এটি দেশের হয়ে তার ১১৮ তম গোল। পাল্টা আক্রমণে ৭১ মিনিটে কুদ্দুস ডি বঙের বাইরে থেকে জোরালো শট নিয়েছিলেন। কিন্তু সেট চলে যায় পর্তুগিজ গোলরক্ষকের হাতে। পরের মিনিটে সমতা ফেরায় ঘানা। বামপ্রান্ত দিয়ে আক্রমণ। কুদ্দুসের মাইনাস থেকে আন্দ্রে আইয়ু পায়ের ছোয়ায় গোল করে সমতা ফেরায়। তবে সে আনন্দ ৫ মিনিটেই শেষ ঘানার। ৭৭ মিনিটে ডান প্রান্ত দিয়ে আক্রমণে উঠে ফার্নান্দেজের বাড়ানো বল ধরে সেকুইরা কোনাকোনি শটে গোল করে আবার এগিয়ে দেন পর্তুগালকে। দুই মিনিট পর এবার আরো এক গোল পর্তুগালের। এবার বামপ্রান্ত দিয়ে আক্রমণ।

সতীর্থের বাড়ানো বল ধরে লিয়াও দারুন শটে বল পাঠান জালে। পর্তুগাল এগিয়ে যায় ৩-১ গোলে। ৮৭ মিনিটে রোনাল্ডোকে তুলে নেন কোচ। রোনাল্ডোকে তুলে নেওয়ার পরের মিনিটেই গোল হজম করে পর্তুগাল। নিজেদের অর্ধ থেকে লম্বা পাস ধরে লাম্পটে ক্রস করেন ডিবঙে। আন্দ্রে আইয়ু দারুন হেডে বল জড়ান জালে। ম্যাচে দ্বিতীয় গোল আইয়ুর। ব্যবধান দাড়ায় ৩-২। ম্যাচের একেবারে অন্তিম লগ্নে শেষ চেষ্টা করেছিল ঘানা। কিন্তু শেষটা যথাযথ হয়নি আফ্রিকার দেশটির।