শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস : শোকাবহ একটি অধ্যায়

শনিবার , ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৪:০৮ পূর্বাহ্ণ

১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনি তাদের দোসর এ দেশীয় রাজাকারদের সহায়তায় অসংখ্য বাঙালি বুদ্ধিজীবীকে নৃৃশংসভাবে হত্যা করে। এই দিনটি সরকারিভাবে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে স্বীকৃত। বাঙালির জাতীয় জীবনে ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস’ একটি শোকাবহ দিন। নয় মাস ব্যাপী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আসে কাঙিক্ষত স্বাধীনতা। দীর্ঘ নয় মাসে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনি তাদের এদেশীয় দোসরদের সহায়তায় যে নির্বিচার হত্যাকাণ্ড চালায় তাতেও অনেক বুদ্ধিজীবী শহীদ হন। তবে নীল নকশা অনুযায়ী চরম আঘাতটি আসে ১৪ ডিসেম্বর। পরাজয় নিশ্চিত জেনে বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করে দিতে মরিয়া হয়ে ওঠে পাকিস্তানি হানাদাররা। আর এ জঘন্য কাজে তাদেরকে সহযোগিতা করে বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার-আলবদর-আল শামস বাহিনি। এই বাহিনি বুদ্ধিজীবীদের একটি নামের তালিকা করে। এবং তালিকা অনুযায়ী এই বাহিনির সদস্যরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে মিথ্যে অজুহাতে বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে আসে। এদের মধ্যে ছিলেন শিক্ষক, লেখক, চিকিৎসক, বিজ্ঞানী, প্রকৌশলী, রাজনীতিবিদ, আইনজীবী, সাংবাদিক, চিত্রশিল্পী. চলচ্চিত্র ও নাট্য ব্যক্তিত্ব, সংগীত শিল্পী, সংস্কৃতি কর্মী প্রমুখ। শিক্ষা, সংস্কৃতি আর জ্ঞান-বিজ্ঞানের পথিকৃৎ এই বুদ্ধিজীবীদের চোখ বেঁধে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। পরবর্তীসময়ে চোখ বাঁধা, দু হাত পেছন দিক থেকে বাঁধা, ক্ষত-বিক্ষত অনেক লাশ খুঁজে পাওয়া যায় বিভিন্ন বধ্যভূমিতে। অনেকে হারিয়ে যান চিরতরে, তাঁদের লাশ খুঁজে পাওয়া যায় নি। সারা দেশেই এমন নৃশ্ল্লংসতা ঘটে। সবচেয়ে বেশি হত্যাকাণ্ড ঘটে ঢাকার মীরপুর ও রায়ের বাজারে। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের এই শোকাবহ দিনটি প্রতি বছর বাঙালি জাতি পরম শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে।

x