রামোসের হ্যাটট্রিকে উড়ে গেল সুইজারল্যান্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক | বুধবার , ৭ ডিসেম্বর, ২০২২ at ৬:২৬ পূর্বাহ্ণ

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে পর্তুগালের প্রথম একাদশ দেখে অনেকের চোখ কপালে উঠার অবস্থা। কোনো কারণ ছাড়াই দলে নেই রোনালদো। নক আউট পর্বের ম্যাচে দলের অধিনায়ককে বসিয়ে রাখলেন কোচ। তবে রোনালদোকে ছাড়াই আরো দুর্বার পর্তুগাল। মাঠে রোনালদোর অভাব মোটেও অনুভূত হতে দেননি অন্যরা। বরং সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে দিয়ে জায়গা করে নিল বিশ্বকাপের শেষ আটে। যেখানে তাদর জন্য অপেক্ষা করছে স্পেনকে বিদায় করে দেওয়া মরক্কো। গতকাল লুসাইল স্টেডিয়ামে পর্তুগাল ৬-১ গোলে সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে দিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে নিল পর্তুগাল। রোনালদোর অনুপস্থিতিতে তার দায়িত্বটাই যেন পালন করলেন রামোস। তুলে নিলেন হ্যাটট্রিক।

তারই হ্যাটট্রিকে সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে দিয়ে শেষ আটে পর্তুগাল। আর সুইসদের বিদায় লজ্জাকে সঙ্গী করে। ম্যাচের শুরু থেকেই গতির ঝড়। আর সে গতির ঝড়ে পর্তুগালের সাথে পেরে উঠেনি সুইজারল্যান্ড। ম্যচের ১৬ মিনিটে এগিয়ে যায় পর্তুগাল। থ্রোইন থেকে বল পেয়ে কোনাকোনি শটে গোল করেন গঞ্জালো রামোস। ২৯ মিনিটে সমতা ফেরাতে পারতো সুইজারল্যান্ড। ডিবক্সের সামনে থেকে শাকিরির নেওয়া ফ্রিকিক সাইডবার ঘেষে চলে যায় বাইরে। ৩২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে পর্তুগাল। এবার কর্নার কিক থেকে উড়ে আসা বলে দারুণ এক হেডে বল জালে জড়ান এই ম্যাচে রোনালদোর বদলে অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া পেপে। আক্রমণের ধার তখনো কমেনি পর্তুগালের। ৪২ মিনিটে ব্যবধান ৩-০ করতে পারতো। কিন্তু গঞ্জালো রামোসের শট এবার কোনমতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন সুইস গোল রক্ষক। প্রথমার্ধে আর গোল না হলে দুই গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় পর্তুগাল।

বিরতির পরও আক্রমণাত্ম পর্তুগাল। আর সে সুবাধে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আবারো গোল পর্তুগালের। এবার ৫০ মিনিটে ডানপ্রান্ত থেকে ডালটের মাইনাস থেকে রামোসের শট জালে। ৩-০ গোলে এগিয়ে পর্তুগাল। সে গোলের রেশ কাটতে না কাটতেই আবারো গোল পর্তুগালের। এবার গোল দাতা গুইরেয়র। ৪-০ গোলে এগিয়ে পর্তুগাল। ৫৭ মিনিটে ব্যবধান কমায় সুইজারল্যান্ড।

কর্নার কিক থেকে উড়ে আসা বলে দারুন শটে গোল করেন আকানজি। ব্যবধান ৪-১। ৬৬ মিনিটে নিজে হ্যাটট্রিক পুরন করেন রামোস। যা এবারের বিশ্বকাপে প্রথম হ্যাটট্রিক। নিজেদের অর্ধ থেকে বল পেয়ে গোল রক্ষকের পাশ দিয়ে বল জালে জড়ান রামোস। তার দল এগিয়ে যায় ৫-১ গোলে। শেষ ২০ মিনিটের জন্য রোনালদোকে মাঠে নামান কোচ সান্তোস। ৮৩ মিনিটে তিনি গোল করেছিলেন বটে। তবে সেটা ছিল অফসাইডে। খেলার একেবারে শেষ দিকে মাঠে নামা লিয়াও অতিরিক্ত সময়ে গোল করে ব্যাবধান বাড়িয়ে করেন ৬-১। শেষ পর্যন্ত সে ব্যবধানে জয় নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে পর্তুগাল।