বাঁশখালীতে আগ্রাবাদের কারচালকের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার

বাঁশখালী প্রতিনিধি | শুক্রবার , ২৯ অক্টোবর, ২০২১ at ১০:১৭ অপরাহ্ণ

বাঁশখালীর পুকুরিয়ায় ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড এলাকায় পুরান ঘাট মসজিদের উত্তর পাশে গলায় গামছা মোড়ানো অবস্থায় বস্তাবন্দি মরদেহটির পরিচয় পাওয়া গেছে।

মরদেহটি কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার বালিয়াকান্দি এলাকার চান মিয়ার ছেলে মো. শাহ আলমের(৪৫)। তিনি পেশায় একজন কারচালক।

আজ শুক্রবার (২৯ অক্টোবর) বিকালে উপজেলার পুকুরিয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড এলাকায় পুরান ঘাট মসজিদের উত্তর পাশে বাঁশখালীর প্রধান সড়কের পূর্ব পাশে গলায় গামছা মোড়ানো অবস্থায় একটি বস্তাবন্দি মরদেহ স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে বাঁশখালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মরদেহটি উদ্ধার করে।

এদিকে, নিখোঁজ কারচালকের মেয়ে আয়শা আক্তার চট্টগ্রামের কেতোয়ালী থানায় তার দায়ের করা জিডির সূত্র ধরে মরদেহ পাওয়ার খবর পেয়ে বাঁশখালীতে ছুটে আসেন।

পরে তারা নিশ্চিত হন যে বস্তাবন্দি মরদেহটি শাহ আলমের। তিনি চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকায় চট্টমেট্রো-গ ১৩-৩০২৬ নং কারচালক হিসাবে চাকরি করতেন।

গত ২৭ অক্টোবর বুধবার থেকে তার কোনো খোঁজ না পাওয়ায় চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানায় মেয়ে আয়শা আক্তার একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

পুকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য সিরাজুল হক বলেন, “বস্তাবন্দি একটি মরদেহ আমার ওয়ার্ড এলাকার প্রধান সড়কের পুরান ঘাট এলাকায় দেখে স্থানীয়রা আমাকে ফোন করলে বিষয়টি আমি বাঁশখালী থানাকে অবহিত করি এবং আমি নিজেও ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করতে সহযোগিতা করি।”

এ ব্যাপারে বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামাল উদ্দিন জানান, মরদেহের খবর পাওয়ার পর সহকারী পুলিশ সুপার (আনোয়ারা সার্কেল) মো. হুমায়ূন কবির, পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত আজিজুল ইসলামসহ গিয়ে বস্তাবন্দি মরদেহটি উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

তিনি জানান, পরে মরদেহের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়। পরিবারের পক্ষ থেকে যদি এ ব্যাপারে কোনো মামলা করা হয় তাহলে সেই অনুসারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।