পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা, মহড়া

কাল চট্টগ্রাম আসছে বাংলাদেশ ও ভারতের ক্রিকেট দল

আজাদী প্রতিবেদন | বুধবার , ৭ ডিসেম্বর, ২০২২ at ১০:১২ পূর্বাহ্ণ

বিশ্বকাপ ফুটবলের টানটান উত্তেজনার মাঝে বাংলাদেশ সফরে এসেছে বিশ্বের পরাক্রমশালী ক্রিকেট টিম ভারত। অন্য সময় হলে বাংলাদেশ-ভারতের ক্রিকেট সিরিজ নিয়ে এদেশের ক্রিকেটপ্রেমী মানুষের উন্মাদনা তুঙ্গে থাকত এ কথা নিঃসন্দেহে বলাই যায়। তবে চার বছর পরপর ফিরে আসা বিশ্বকাপ ফুটবলের উন্মাদনার মাঝে ভারতের বিরাট কোহলী, রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল ঢাকা পড়ে গেছেন মেসি, নেইমার, এমবাপ্পেদের কাছে। ২০১৪ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের সময়ও বাংলাদেশ সফরে এসেছিল ভারত। ওই বার মিরপুরে দুই প্রতিবেশীর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজটি প্রায় ফাঁকা মাঠেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এবারও বাংলাদেশ-ভারত ওয়ানডে সিরিজে মেহেদি হাসান মিরাজ-মুস্তাফিজের নবম উইকেট জুটির অনমনীয় মনোভাব ভারতের বিপক্ষে স্মরণীয় জয়টাও অনেকটা চাপা পড়ে গেছে ফুটবল বিশ্বকাপের ডামাডোলে।

এরই মাঝে আগামীকাল বৃহস্পতিবার ভারতীয় ক্রিকেট দল এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট দল চট্টগ্রামে আসবে। আগামী ১০ ডিসেম্বর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে দুদলের মধ্যকার তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় এবং শেষ ম্যাচ। এই ম্যাচ উপলক্ষে নেওয়া হয়েছে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

বাংলাদেশে এসেছে পূর্ণ শক্তির ভারত দল। তবে দুই দলের সর্বশেষ দ্বিপক্ষীয় ওয়ানডে সিরিজের স্মৃতি এখনও ভুলে যাওয়ার কথা নয়। ২০১৫ সালে সেই সিরিজে ভারতকে প্রথমবারের মতো সিরিজ হারিয়েছিল বাংলাদেশ। বেশ কয়েক বছর ধরে মুখোমুখি হওয়া আইসিসির বৈশ্বিক আসরে ভারতের সঙ্গে সমানে সমান পাল্লা দিচ্ছে বাংলাদেশ। ফলে প্রতিবেশী দুই দেশের ম্যাচের টিকিটের চাহিদা সবসময় সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকে। চলতি সিরিজের শেষ ওয়ানডে ও প্রথম টেস্ট অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রামে।

সমর্থকদের উপচে পড়া ভিড় সামলানোর জন্য খেলোয়াড়দের হোটেল ও জহুর আহমেদ স্টেডিয়াম ঘিরে কঠোর ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গতকাল মঙ্গলবার জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে নিরাপত্তার মহড়া শেষে সাংবাদিকদের বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জানিয়েছেন সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়। এদিন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সোয়াত এবং মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) বোমা উদ্ধার ও নিষ্ক্রিয়করণ দল মহড়ায় অংশ নেয়। সম্ভাব্য সন্ত্রাসী ঘটনা কীভাবে মোকাবেলা করা হবে, বোমা বিস্ফোরণের মতো জরুরি পরিস্থিতি কীভাবে সামাল দেওয়া হবে, সে বিষয়ে সিএমপির এই ইউনিটগুলো মহড়া দেয়।

সিএমপি কমিশনার বলেন, ইতিমধ্যে চট্টগ্রামে বেশ কিছু আন্তর্জাতিক ম্যাচ হয়েছে। আমাদের পুলিশের পূর্ব অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশ-ভারতের ক্রিকেট দলের সফর ঘিরে পরিকল্পিতভাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। হোটেল থেকে মাঠে খেলোয়াড়দের আসা-যাওয়া থেকে শুরু করে সার্বক্ষণিক পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। র‌্যাব ও সোয়াতের সঙ্গে পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট একই সঙ্গে মাঠে থাকবে।

তিনি বলেন, হোটেল থেকে মাঠে খেলোয়াড়দের আসা-যাওয়া থেকে শুরু করে সার্বক্ষণিক পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। এই সফরে কোনো ধরনের নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই। পাশাপাশি চলমান উচ্চ মাধ্যমিকের পরীক্ষা বিবেচনায় বিশেষ প্রস্তুতি রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৪ ডিসেম্বর সফরের প্রথম ওয়ানডেতে ভারত বাংলাদেশের কাছে হেরেছে। আজ অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় ওয়ানডে। তৃতীয় ম্যাচ আগামী ১০ ডিসেম্বর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। একই মাঠে ১৪ ডিসেম্বর শুরু হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচ।

৯ ডিসেম্বর নগরীর বিটাক মোড়, এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে টিকিট পাওয়া যাবে। এছাড়াও ম্যাচের দিন জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের বুথে টিকিট পাওয়া যাবে। যেখানে গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড/ রুফটপ ১৫০০ টাকা, আন্তর্জাতিক গ্যালারি ১০০০ টাকা, ক্লাব হাউজ ৫০০ টাকা, পূর্ব গ্যালারি ৩০০ টাকা ও পশ্চিম গ্যালারির টিকিটের মূল্য ২০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।