নতুন মাঠে অগ্রাধিকার পাবে চট্টগ্রাম

ক্রিকেট একাডেমির কাজ শীঘ্রই শুরু হবে : পাপন

ক্রীড়া প্রতিবেদক | শনিবার , ১৪ মে, ২০২২ at ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছে সারা দেশে আরো বিশটি নতুন মাঠ তৈরি করবে। আর সেসব মাঠের জন্য ঢাকা এবং চট্টগ্রাম অবশ্যই অগ্রাধিকার পাবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি বলেন, আমরা মাঠ তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আর মাঠের জন্য ঢাকা এবং চট্টগ্রাম থাকবে সবার আগে। তিনি বলেন, আমরা এরই মধ্যে জায়গা দেখা শুরু করেছি। আমরা চাচ্ছি ক্রিকেটের জন্য দেশের সব জায়গায় আলাদা এবং সুন্দর মাঠ থাকুক। আর সে লক্ষ্য নিয়েই এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি।

গতকাল সকালে বিসিবি সভাপতি হেলিকপ্টার যোগে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে অবতরণ করেন। মূলত বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের সাথে দেখা করতে চট্টগ্রামে এসেছেন তিনি। এ সময় সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন পাপন।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের ক্রিকেটের উন্নয়নে ক্রিকেট বোর্ড সবসময় চেষ্টা করে যাচ্ছে। আমরা বরাবরই ঢাকার পর চট্টগ্রামকে নিয়ে চিন্তা করি। কারণ চট্টগ্রাম হচ্ছে ক্রিকেটের অন্যতম উর্বর ভূমি। দেশে বোর্ডের অধীনে প্রথম একাডেমি হচ্ছে চট্টগ্রামে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক এবং সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান এই একাডেমির ব্যাপারে দেখভাল করছেন। নাজমুল হাসান বলেন, আকরাম খানের নেতৃত্বে যে ক্রিকেট একাডেমি হবে চট্টগ্রামে তা হবে বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্রিকেট একাডেমি। তিনি বলেন, এরই মধ্যে এই একাডেমির নানা পরিকল্পনা করা হয়েছে। জায়গাও নির্বাচন করা হয়েছে। শীঘ্রই এই একাডেমির কাজ শুরু করা হবে বলে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড যেসব মাঠ তৈরি করবে সেসব মাঠ তৈরির প্রাথমিক প্রক্রিয়া শুরু করেছে। যদিও এটি একটি সময় সাপেক্ষ ব্যাপার তারপরও যতটা সম্ভব দ্রুততম সময়ের মধ্যেই চেষ্টা করা হবে মাঠগুলো তৈরি করার। বিসিবি সভাপতি বলেন, চট্টগ্রামে সুন্দর এবং সুবিধাজনক একটি জায়গায় আমরা এই মাঠ তৈরি করতে চাই। যাতে মাঠগুলোতে নির্বিঘ্নে খেলা আয়োজন করা যায়। চট্টগ্রামের ক্রিকেটের জন্য সব সময় নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করার কথাও জানান পাপন। গতকাল তার সাথে ছিলেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের মহাসচিব সাহেদ রেজা। চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাবুদ্দিন শামীমের নেতৃত্বে সিজেকেএস কর্মকর্তারা তাকে অভ্যর্থনা জানান। বিসিবি মিডিয়া কমিটির সদস্য সচিব আলহাজ্ব আলি আব্বাসের সার্বিক তত্বাবধানে এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিজেকেএস সহ সভাপতি দিদারুল আলম চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, মশিউর রহমান চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ শাহাবুদ্দিন জাহাঙ্গীর, ক্রিকেট সম্পাদক আবদুল হান্নান আকবর, নির্বাহি সদস্য জি এম হাসান, নাসির মিয়া, দিদারুল আলম, ক্রিকেট কমিটির যুগ্ম সম্পাদক শওকত হোসাইন। বিসিবি সভাপতি হোটেল রেডিসনে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের সাথে বৈঠকে মিলিত হন। পরে তিনি কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম ত্যাগ করেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে যেকোনো সিরিজের আগে নাজমুল হাসান পাপন ক্রিকেটারদের সাথে বৈঠকে মিলিত হন। তিনি তার পক্ষ থেকে যেটুকু দরকার পরামর্শ দেন। দলের জন্য শুভ কামনা জানান। এবারেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কক্সবাজারে যাওয়ার পথে তিনি ঠিকই ক্রিকেটারদের সাথে মিলিত হয়ে গেলেন। যাতে ক্রিকেটারদের মনোবল কিছুটা হলেও চাঙ্গা থাকে।