কাগজ আমদানিতে শুল্ক কমানোর দাবি

সাত সংগঠনের যৌথ সংবাদ সম্মেলন

আজাদী প্রতিবেদন | বৃহস্পতিবার , ২৩ জুন, ২০২২ at ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ

আমদানি শুল্ক ২৫ শতাংশের পরিবর্তে পাঁচ শতাংশ নির্ধারণের দাবি জানিয়েছে কাগজ আমদানিকারক, প্রিন্টিং ও প্যাকেজিং খাতের সাতটি সংগঠন। গতকাল বুধবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে লা ভিঞ্চি হোটেলে আয়োজিত এক যৌথ সংবাদ সম্মেলন থেকে সংগঠনের নেতারা এ দাবি জানান। এসময় বাংলাদেশ লোকাল কার্টুন ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মুদ্রণ শিল্প সমিতি, বাংলাদেশ পেপার ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, দ্য বাংলাদেশ পেপার মার্চেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ পাঠ্যপুস্তক মুদ্রক ও বিপণন সমিতি, বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি এবং প্যাকেজিং ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে এফবিসিসিআই সহ সভাপতি মো. আমিন হেলালী বলেন, দেশে মাত্র ১১ ধরনের কাগজ উৎপাদন হয়। বাকি কাগজের জোগান আমদানি নির্ভর।

কিন্তু এসব কাগজ আমদানিতে সব মিলিয়ে ৪৭ শতাংশ শুল্ক পরিশোধ করতে হয়। দেশের মুদ্রণ, প্রকাশনা ও প্যাকেজিং শিল্পের প্রধান কাঁচামাল হিসেবে ডুপ্লেক্স বোর্ড, আর্ট পেপার, আর্ট কার্ড, ক্রাফট লাইনার পেপার, উন্নতমানের ছাপার কালি, মুদ্রণ প্লেট, বাঁধাইযোগ্য গ্লু (আঠা) ইত্যাদি ওষুধ শিল্পসহ দৈনন্দিন ব্যবহৃত সব ধরনের মোড়ক এবং ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে ব্যবহৃত হয়। বিপুল চাহিদার পরও দেশে এসব পণ্যের উৎপাদন হয় না। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এনসিটিবি ২৩০ জিএসএম আর্ট কার্ডের টেন্ডার দেয়। বছরে ১০ হাজার মেট্রিক টন আর্ট কার্ডের চাহিদা রয়েছে সংস্থাটির। এই আর্ট কার্ডও দেশে উৎপাদন হয় না।

বর্তমানে এই সবগুলোতে উচ্চ শুল্ক দিতে হচ্ছে। তার ওপর প্রস্তাবিত বাজেটে এ আমদানি শুল্ক ১৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করা হয়েছে, যা এ শিল্পকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। এ জন্য মুদ্রণ, প্রকাশনা, প্যাকেজিং ও ওষুধ শিল্পের এ কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক কমিয়ে ৫ শতাংশ করার দাবি জানান আমিন হেলালী। আমিন হেলালী আরো বলেন, উচ্চ শুল্ক বহাল থাকলে কাগজ আমদানি কমে যাবে, দামও বেড়ে যাবে। এতে পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণের সময় বাজারে কাগজের সংকট দেখা দেবে।

ফলে বন্ডেড সুবিধার অপব্যবহার বাড়বে। তখন বন্ডেড সুবিধায় আসা কাগজ খোলাবাজারে বিক্রি হবে। এতে সরকারকে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হতে হবে। বাংলাদেশ পেপার মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক মোহাম্মদ বেলাল বলেন, চলতি অর্থবছরে পেপার ও পেপার বোর্ড আমদানিতে বর্তমানে ১৫ শতাংশ শুল্ক রয়েছে। এটিকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করার অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু সরকার উলটো আরও ১০ শতাংশ বাড়িয়েছে। বেশি রাজস্ব আয়ের জন্য কেউ হয়তো সরকারকে ভুল বুঝিয়েছে। কিন্তু এতে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। অন্যদিকে বন্ডের অপব্যবহারের কারণে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হবে।