ইরানের ২৯ ব্যক্তি-সংস্থার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

| রবিবার , ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ at ৭:৫৫ পূর্বাহ্ণ

পুলিশের হেফাজতে কুর্দি ইরানি নারী মাহসা আমিনির মৃত্যুর এক বছর পূর্তি হওয়ার আগের দিন ইরানের ২৯ ব্যক্তি ও সংস্থার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গত শুক্রবার মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে নিষেধাজ্ঞার কথা জানানো হয়। বিবৃতি জানানো হয়, নিষেধাজ্ঞার মধ্যে রয়েছে ২৫ ইরানি ব্যক্তি, ইরানের সরকার সমর্থিত ৩টি মিডিয়া আউটলেট ও একটি ইরানি ইন্টারনেট গবেষণা সংস্থা।

বিবৃতিতে আরও জানানো হয়, বিক্ষোভকারীদের আটক বা হত্যা বা মত প্রকাশের স্বাধীনতা বা সমাবেশের অধিকারকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য ১৩ ইরানি কর্মকর্তা এবং অন্যান্য ব্যক্তির ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিসা বিধিনিষেধ আরোপের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। খবর বাংলানিউজের।

মাহসা আমিনির মৃত্যু এবং তার পরবর্তী বিক্ষোভের পর থেকে, আমরা ৪০ ইরানি কর্মকর্তা এবং অন্যান্য ব্যক্তির ওপর শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে কাজগুলোতে জড়িত থাকার জন্য ভিসা বিধিনিষেধ অনুসরণ করেছি। অপরদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি ব্রিটেন ও কানাডা আলাদাভাবে ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। গতকাল শনিবার মাহসা আমিনির প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। তার মৃত্যু ইরানে মাসব্যাপী সরকার বিরোধী বিক্ষোভের জন্ম দেয়। ইরানের বাধ্যতামূলক ড্রেস কোড লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়ার পর গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর আমিনি (২২) পুলিশ হেফাজতে মারা যান। আমিনির মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইরান সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ভয়াবহ রূপ নেয়। যা চলে কয়েক মাস ধরে। ইরানের ২৯ ব্যক্তি ও সংস্থার মধ্যে দেশটির ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পস আইন প্রয়োগকারী বাহিনীর ১৮ জন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য মার্কিন নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে। সেই সঙ্গে রয়েছে ইরানের কারাগার সংস্থার প্রধানও। ইরানের ইন্টারনেট অবরোধের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তারা এবং বেশ কয়েকটি মিডিয়া আউটলেটও এ নিষেধাজ্ঞার টার্গেটে রয়েছে। খবর ভয়েস অব আমেরিকা।

ব্রিটেন পৃথকভাবে তেহরানের বাধ্যতামূলক হিজাব আইন প্রয়োগকারী উর্ধ্বতন ইরানী সিদ্ধান্ত নির্মাতাদের লক্ষ্য করে তার নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করেছে। যার মধ্যে ইরানের সংস্কৃতি ও ইসলামিক দিকনির্দেশনা বিষয়ক মন্ত্রী, তার ডেপুটি, তেহরানের মেয়র এবং একজন ইরানি পুলিশের মুখপাত্র রয়েছেন। এদিকে কানাডার সরকার বলেছে, গত শুক্রবার তারা একটি নিষেধাজ্ঞা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। ইরানের বিরুদ্ধে গত অক্টোবর থেকে এটি ১৪ তম। যাতে ছয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিধিনিষেধ তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।