আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে….

তানভিরুল মিরাজ রিপন

মঙ্গলবার , ১২ নভেম্বর, ২০১৯ at ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ
3

একটি নাটক। শিল্পের চোখ রাঙানোর ভাষা। মানুষের গভীরে গভীরে প্রতিবাদের ভাষা পৌছে দেওয়ার পথ।
‘রাষ্ট্র বনাম ‘ নাটকটি লিখেছেন নাট্যজন মামুনুর রশিদ। দৃশ্যায়নের নির্দেশনা করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক, তানভীর হাসান। অন্যায়কে যদি লালন করতে থাকে রাষ্ট্র। রাষ্ট্রের টাকা-সন্ত্রাসীরা যখন সব অন্যায় এক সাথে করে দৈত্য দানবের মতো আচরণ করে।তখন, অন্তত কিছু মানুষ আছে, যাদের সংখ্যা কম,কিন্তু শক্তি বেশি। যারা রাষ্ট্রের অনিয়মের বিরুদ্ধে আঙুল তুলে প্রতিবাদ করে।তাঁরা হেরে যান না, চেষ্টা করেন রাষ্ট্রের মালিকের কাছে রাষ্ট্রের অধিকার ফিরিয়ে দিতে।
৪৭’র দাঙ্গাকে ঘিরে এই এথনিক মেল্টিং পটে বারবার হয়েছে তান্ডবলীলা। ধর্মকে পুঁজি করে কিছু দানব কলুষিত করেছে ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাস । দেশভাগের ঘাঁ না শুকাতে আবার শুরু হলো নির্যাতন, ভাগ করে দেওয়া হলো মুসলমান হিন্দুতে। রাষ্ট্রের ভেতরে করে দেওয়া হলো ধর্ম ভিত্তিক বিন্যাস। ৭১ এ তার মুক্তি ঘটানোর আশায় যুদ্ধ হলো।যুদ্ধে ভূখণ্ডের মুক্তি ঘটলেও কিন্তু বারেবারে স্বাধীনতা বিরোধীরা প্রতিশোধ নিয়েছে।রাজাকারদের কবরে লিখেছে শহীদী কবর। সেসবের বিরুদ্ধে ‘রাষ্ট্র বনাম’ নাটক।
রাষ্ট্রের সকল প্রতিষ্ঠান গুলোর ঘটনাকে এক করে এ নাটক। ক্ষেত্রে ক্ষেত্রে ভিলেনের চরিত্র থাকাটা অস্বাভাবিক মোটেও নয়। তাই বারে বারে যাদের রাষ্ট্র রক্ষা ও চালানোর দ্বায়িত্ব দেওয়া হয় তারা আবির্ভূত হন ভিলেন রূপে।তারা নিজস্ব ধর্মীয় তলোয়ারকে তরজমা করে সন্ত্রাসের উৎসকে ছড়িয়ে দিয়েছে অত্যাচার রূপে। এই অত্যাচার রূপায়িত হয়েছে দুর্নীতি, অবিচার, ধর্ষন, লুণ্ঠন গুম, খুনরূপে। এরপরও রাষ্ট্রের মালিকদের আশা থাকে। জমতে থাকে ক্ষোভ, সে ক্ষোভ হয় পুঞ্জীভূত। প্রতিবাদ হয়। প্রতিবাদের পর মুক্তি। এরপর একদিন আর কাউকে লড়তে হবে না অন্যায় অবিচারের বিরুদ্ধে। ভোলা,নাসির নগর,রামু ট্রাজেডির মত আর কোনো ঘটনা ঘটবে না। জাতপাত বলে কোনোদিন আর আমরা স্বজাতির ভেতরে দূরত্ব বাড়াবো না। এভাবে শুধু সজাগ হওয়ার নির্দেশনা দেয় নাটকটি।
সবকিছু তুলনামূলক ভাবে দর্শকমনকে জাগরিত করেছে। সচেতন করে তুলেছে নিজের অধিকার লুন্ঠিত হওয়া নিয়ে। আলোক ও মঞ্চ সজ্জা নিখুঁত ও পাকা হাতেই হয়েছে। সকলেই চরিত্রের ভেতরে গিয়ে চরিত্রকে সত্য রূপ দেওয়ার সর্বোচ্চতম প্রচেষ্টাকে নির্দেশক চরিত্রগুলো দক্ষতার সাথে সত্যায়ন করেছেন। আবহ সংগীত ও সংলাপ অন্তত মানুষকে ভাবিয়েছে।

x