অধ্যাপক পুলিন দে

ইতিহাসের বিস্মৃত অধ্যায়

রেজাউল করিম

বৃহস্পতিবার , ১১ অক্টোবর, ২০১৮ at ৬:৫১ পূর্বাহ্ণ
57

সামাজিকভাবে সংঘবদ্ধ মানুষই শুধুমাত্র প্রকৃতিকে বদলানোর কাজে সাফল্য লাভ করতে পারে। সংঘবদ্ধ মানুষদের প্রাকৃতিক কারণে সমান মেধা, মনন থাকে না। উচ্চ মেধা ও মননের অধিকারীরা সমাজে সংঘবদ্ধ মানুষদের মধ্যে শীর্ষস্থান ও পদগুলো লাভ করে। সমাজে এদের প্রভাব-প্রতিপত্তি লক্ষ্যণীয়। সামাজিক-অর্থনৈতিক পরিবর্তন, যেহেতু মানুষের উৎপাদন সম্পর্ক অথবা প্রধান প্রধান দল ও প্রতিষ্ঠানগুলোর সম্পর্কের পরিবর্তনকে বোঝায়, সে কারণে এর পরিবর্তনে উদ্যোক্তা হিসেবে ব্যক্তির ভূমিকা অবশ্যম্ভাবী। আবার ঐসব ব্যক্তি ইতিহাসের অংশ হলেও কালের বিবর্তনে বিস্মৃত অধ্যায়ে যুক্ত হয়। তেমনি একজন অধ্যাপক পুলিন দে। তিনি দেখেছেন তিনটি দেশের বিভক্তি। ব্রিটিশদের তাড়িয়েছেন, বাংলাদেশ নির্মাণে সহায়ক শক্তিরূপে আবির্ভূত হয়েছিলেন। ছিলেন আমৃত্যু আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য।
পুলিন দে’র জন্ম ১৯১৪ সালের ১ অক্টোবর পটিয়ার ধলঘাটে। বাবা সারদা কুমার দে, আর মায়ের নাম সাবিত্রী দেবী। তিন বোন, দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনি জ্যেষ্ঠ। পুলিন দে’র ভাষায়, তাঁর জন্ম ‘এক গরিব চাষির পর্ণ কুটিরে।’ বাবা ছিলেন ডাক কর্মচারী। কৈশোরে কাকী তাঁকে প্রভাবান্বিত করেছিলেন। পুলিন দে পড়াশোনা করেছিলেন ধলঘাট হাই স্কুলে। ধলঘাট স্কুলে পড়াকালীন তাঁর সবচেয়ে কাছের বন্ধু ছিলেন দীনেশ দাশগুপ্ত, সুধাংশু বিশ্বাস ও হৃদয় চৌধুরী। এখান থেকে ম্যাট্রিক পাস করেছিলেন প্রথম বিভাগে। তারপর সব পরীক্ষাই দিয়েছিলেন জেল থেকে। ১৯৩৫ সালে হিজলী বন্দি নিবাস থেকে আইএ, রংপুর জেল থেকে ১৯৩৭ সালে বিএ এবং প্রেসিডেন্সী জেল থেকে পরীক্ষা দিয়ে ১৯৪৪ সালে এমএ পাস করেন। সবগুলো পরীক্ষা হয়েছিল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে।
কৈশোরে পুলিন দে যোগ দিয়েছিলেন মাস্টারদা সূর্যসেনের নেতৃত্বে পরিচালিত ইন্ডিয়ান রিপাবলিকান আর্মিতে। বন্ধুদের মধ্যে যোগ দেন দীনেশ দাশগুপ্ত, সুধাংশু বিশ্বাস, অজিত বিশ্বাস, হৃদয় চৌধুরী, নিত্যগোপাল চৌধুরী প্রমুখ। ‘পরে আরো অনেকে তরুণ দলে যোগ দেয়। আমাদের গোষ্ঠীটি ছিল একটি শক্ত ও দৃঢ়চিত্ত নিবেদিত প্রাণ। তাই মাস্টারদা আমাদের অত্যধিক স্নেহ করতেন। আমরা নিজেদের বিশ্বাস, উপলব্ধি দেশপ্রেম ও দলের প্রতি আনুগত্য প্রদানে দৃঢ়সংকল্প ছিলাম।’ (মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ ঃ পৃষ্ঠা-৪৭-৪৮)। পুলিন দে মা, মাটি, দেশকে ভালবাসতে শেখেন ম্যাটসিনি ও গ্যারিবল্ডির জীবনী পড়ে। গোপাল ভাঁড়ও পড়তেন। তবে গ্যারিবল্ডির জীবনী তাঁকে বেশি আকৃষ্ট করেছিল। ১৯২৮ সাল, তখন তাঁর বয়স মাত্র ১৪। ধলঘাটে ক্যাপ্টেন ক্যামেরনর সাথে মাস্টারদার দলের যে সংঘর্ষ হয় তার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন প্রত্যক্ষভাবে। এ কারণে তাঁকে ১৯৩২ সালে কারাবরণ করতে হয়েছে। মুক্তি পান ১৯৩৮ সালে। ১৯৩৯ সালে যোগ দেন জয় প্রকাশ নারায়ণের সমাজতন্ত্রী দলে। এই দলের সঙ্গে তখন যুক্ত ছিলেন রামমনোহর লোহিয়া, অশোক মেহতা, গুণদা মজুমদার প্রমুখ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে ১৯৪০ সালে ধলঘাটে নিজ গ্রামে অন্তরীণ রাখা হয়। ১৯৪২ সালে আবার তাঁকে ভারত রক্ষা আইনে বন্দি করা হয়। প্রথমে আটক ছিলেন ঢাকা জেলে, তারপর প্রেসিডেন্সী জেলে। জেলখানা হয়ে ওঠে লেনিনের ভাষায় ইউনিভার্সিটি ফর দ্য পলিটিক্যাল ক্যাডার। ১৯৪৫ সালে মুক্তি পাওয়ার পর পার্টির কাজ শুরু করেন। ১৯৪৬ সালের ১৬ আগস্ট কলকাতার মুসলিম লীগ প্রত্যক্ষ সংগ্রাম দিবস ঘোষণা করে। সমাজতন্ত্রী দলের রামমনোহর লোহিয়া কলকাতায় আসেন ১৭ আগস্ট জনসভা করার জন্য। মুসলিম লীগের কর্মীরা সে সভা পণ্ড করে দেয় এবং ড. লোহিয়া আক্রান্ত হন। ড. লোহিয়া তখন পুলিন দে’কে একটি ব্যক্তিগত চিঠি দিয়ে দিল্লীতে পাঠান পণ্ডিত নেহেরুর কাছে। নেহেরু ক্ষুব্ধ স্বরে পুলিন দে’কে বলেন, ‘অস্ত্রাগার যারা লুট করতে পারে তারা মুসলিম লীগের গুণ্ডাকে দমন করতে পারে না! আমি বললাম, নিশ্চয় পারি কিন্তু কংগ্রেস সেটা সইতে পারবে! মৌলানা আজাদ আমাকে শান্ত করে বললেন, তুমি উত্তেজিত হয়ো না।’
১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্ত হলে পুলিন দে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানে থেকে যান এবং পাকিস্তান সোসালিস্ট পার্টি গঠন করেন। অল পাকিস্তান সোসালিস্ট পার্টির তিনি যুগ্ম সম্পাদক এবং পূর্ব-পাকিস্তানের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে যুক্ত থাকার সময়ই ১৯৫০ সালে ঢাকা সলিমুল্লাহ কলেজে অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। ভাষা আন্দোলনের সময় তিনি যুক্তফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে মীরসরাই, ফেনী, নোয়াখালী আসন থেকে এমএনএ নির্বাচিত হন। যুক্তফ্রন্টের মন্ত্রিসভায় যোগও দিয়েছিলেন। সোসালিস্ট পার্টি থেকে চারজন প্রার্থী সে সময় নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৫৮ সালে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তান প্রতিনিধি দলের সদস্য মনোনীত হন। ইতোমধ্যে সামরিক আইন জারি হলে এবং নিউইয়র্ক যাওয়ার বদলে ধলঘাটে নিজগৃহে অন্তরীণ হন। অনেকটা বাধ্য হয়ে ধলঘাট হাই স্কুলে যোগ দেন প্রধান শিক্ষক হিসেবে। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের সময় অবার তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। মুক্তি মেলে এক বছর পর। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। পুলিন দে’র সোসালিস্ট পার্টি গড়ে তুলে ইন্টারন্যাশনাল ব্রিগেড। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার দাবিকে প্রতিষ্ঠিত করতে সহায়ক ভূমিকা রাখেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হলে তিনি মাতৃভূমিতে ফিরে আসেন।
১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর সাথে পুলিন দে’র সাক্ষাৎ ঘটে। তিনি বঙ্গবন্ধুর কাছে তিনটি প্রস্তাব সরাসরি উত্থাপন করেন। এক. পাকিস্তান থেকে আনীত সৈন্যদের সেনাবাহিনীতে না নেয়া। দুই. মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র সমর্পণ না করিয়ে বরং অস্ত্রসহ সেনাবাহিনীতে নেয়া। তিন. রাজাকার-আলবদর-আলশামসসহ মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী চক্রকে অন্তত পাঁচ বছর দমিয়ে রাখা। উপস্থিত অনেকে প্রস্তাবগুলো সমর্থন করলেও খন্দকার মুশতাকসহ মুজিবের অন্ধ ভক্তরা এককথায় প্রত্যাখ্যান করে। ‘আমার হৃদয়দ্বারে এসেছিলো যারা/ প্রার্থীরূপে বহুবার, ঐশ্বর্য সম্মান/ ন’য়ে করপুটে কেহ, কেহ প্রেমগান/ রূপ যৌবনের অর্ঘ্য চরণে বা কারা।’
চিরকুমার পুলিন দে’কে রাজনীতির অধোগতি বেশ ভাবিয়ে তুলেছিল। তিনি প্রায়ই বলতেন, ‘আমরা রাজনীতি করেছি পকেটের পয়সা দিয়ে, ব্যাংকের টাকায় নয়। সোসালিস্ট পার্টির তহবিল গঠনের লক্ষ্যে কখনো গোলার ধান চুরি, বাবার পকেট থেকে টাকা সরিয়ে, এমনকি মা’র গয়নাও বিক্রি করেছি। অথচ বর্তমান রাজনীতি মাসলম্যানদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। ব্যাংকের টাকা লুণ্ঠনকারী, ব্যবসায়ীরা রাজনীতির গতিবিধি ঠিক করে দেয়। রাজনীতি আর রাজনীতিবিদদের হাতে নেই।’ পুলিন দে প্রচুর পড়াশোনা করতেন। জীবনসায়াহ্নে দৈনিক ৭/৮ ঘণ্টা পড়াশোনা করতেন। ‘ইয়ামি দ্য হিট’ বইটি তাঁর মনে বেশ রেখাপাত করেছিল।

স্বাধীনতার জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন পুলিন দে। জীবনের মোহ তাঁকে পায়নি কখনো। জীবনের শেষ দুই যুগের বেশি সময় কাটিয়েছেন জয়নগরস্থ ছোট বোন বিভার বাসায়। বোনের স্বামী ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক পি কে ভট্টাচার্য্য, গণিতবিদ হিসেবে ছিল দেশজুড়ে খ্যাতি। প্রায় বছর খানেক শয্যাশায়ী থাকার পর ২০০০ সালের ১১ অক্টোবর পুলিন দে পরলোকগমন করেন। মৃত্যুর পর বছর খানেক পর্যন্ত তাঁকে অত্যন্ত দায়সারাভাবে স্মরণ করা হতো। পরে তাও আর করা হয়নি। বলা যেতে পারে বিস্মৃত এক অধ্যায় তিনি। অর্থ, বিত্ত, বৈভব, উত্তরাধিকার কোনটি তাঁর ছিল না। এরপরেও পুলিন দে স্বমহিমায় ভাস্বর।
লেখক : সাংবাদিক

x