৪০ হাজার মামলার স্তূপ মহানগর জজশিপে

১৩ আদালতের চারটিতেই বিচারক নেই

সবুর শুভ

রবিবার , ৩০ জুন, ২০১৯ at ১০:১৪ পূর্বাহ্ণ

মহানগর দায়রা জজশিপের গুরুত্বপূর্ণ ১৩ আদালতের মধ্যে চারটিতেই বিচারক নেই। ভারপ্রাপ্ত বিচারক দিয়েই চলছে চার আদালতের বিচারিক কার্যক্রম। অথচ ১৩ আদালতে বর্তমানে (মে মাস পর্যন্ত) মামলা রয়েছে ৪০ হাজার ৩৭৮টি। বিচারকের অভাবে মহানগর দায়রা জজশীপের আদালতগুলোতে মামলা নিস্পত্তিতে বিচারপ্রার্থীদেরকে অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে বছরের পর বছর।
মহানগর দায়রা জজ মোহাম্মদ আকবর হোসেন মৃধার নেতৃত্বে উল্লেখিত আদালতগুলোতে ৯জন বিচারক দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।
মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, পঞ্চম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ , তৃতীয়, চতুর্থ ও ষষ্ঠ যুগ্ম-মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারক নেই দীর্ঘদিন ধরে। ফলে এসব আদালতে ভারপ্রাপ্ত বিচারক হিসেবে নিজ দায়িত্বের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে বর্তমানে হিমশিম অবস্থা প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ যথাক্রমে জান্নাতুল ফেরদাউস চৌধুরী, মোছাম্মৎ বিলকিছ আক্তার, শেখ ছামিদুল ইসলাম ও মোহাম্মদ রাশেদ তালুকদারের। নিয়মিত বিচারক না থাকায় এ চার আদালতে মামলা নিস্পত্তি হচ্ছে না। গত মাসের তথ্য অনুযায়ী এসব আদালতে মামলা নিস্পত্তির কোন তথ্য নেই। মহানগর দায়রা জজসহ বাকী ৯ আদালতে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় মামলা নিস্পত্তি হচ্ছে। মে মাসে এসব আদালতে মামলা নিস্পত্তির সংখ্যা ১ হাজার ২১২টি। এই ৯ আদালতে ৯২৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে এসব মামলা নিস্পত্তির ক্ষেত্রে।
আদালত থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গত এপ্রিল মাস শেষে ১৩ আদালতে মামলার স্থিতি ছিল ৪০ হাজার ৯১ জন। মে মাসে নতুন মামলা যোগ হয়ে স্থিতি দাঁড়ায় ৪১ হাজার ৬০২টি। নিস্পত্তির পর মে মাস শেষে আদালতগুলোতে মামলার সংখ্যা দাঁড়ায় ৪০ হাজার ৩৭৮টি। এসব মামলার মধ্যে সেশন মামলা রয়েছে সবচেয়ে বেশি ৩৩ হাজার ৭৫৫টি। বিশেষ ট্রাইব্যুনাল মামলা আছে ২ হাজার ৯১০, বিশেষ মামলা ৮৩, ফৌজদারি আপিল ১ হাজার ৬৪০, ফৌজদারি রিভিশন ১ হাজার ২৩৯, ফৌজদারি মিচ মামলা ৭৩৫, মানি লন্ডারিং মামলা ১টি, ট্রাইব্যুনাল মামলা ১১ ও এসিড মামলা রয়েছে ৪টি।
বিচারক শুন্যতার কারণে মহানগর দায়রা জজশীপের আদালতগুলোতে বিচারিক কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার বিষয়ে আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট বদরুল আনোয়ার জানান, মহানগর দায়রা জজশীপে দীর্ঘদিন ধরে বিচারক সংকট চলছে। এতে বিচারের স্বাভাবিক গতিধারা ব্যাহত হচ্ছে।
তিনি আরো জানান, এ সংকটের দ্রুত সুরাহার জন্য আমরা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি ইতোমধ্যে।

x