২৬ মাস বন্ধ কক্সবাজারের সার্ভার সিস্টেম

জন্ম-মৃত্যু সনদসহ গুরুত্বপূর্ণ সেবা বঞ্চিত জেলাবাসী

আহমদ গিয়াস, কক্সবাজার

মঙ্গলবার , ৫ নভেম্বর, ২০১৯ at ৭:০৪ অপরাহ্ণ

২০১৭ সালের আগস্টে রোহিঙ্গা ঢলের পর থেকে গত ২৬ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে কক্সবাজারের চার পৌরসভাসহ ৭১টি ইউনিয়নের সার্ভার সিস্টেম। ফলে জন্ম ও মৃত্যু সনদসহ বহু গুরুত্বপূর্ণ সেবা বন্ধ রয়েছে কক্সবাজার জেলায়।

এনিয়ে কক্সবাজার জেলাবাসী নানা মহলে দেনদরবারের পর অবশেষে আজ মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) হাইকোর্টের শরণাপন্ন হয়েছে।

মঙ্গলবার সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী ও কক্সবাজারের বাসিন্দা নাসরিন সিদ্দিকা লিনা বাদী হয়ে হাইকোর্টে দায়েরকৃত এক রিট আবেদন করেন।

আবেদনে স্থানীয় সরকার সচিব, স্থানীয় সরকারের বিভাগের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের রেজিস্ট্রার জেনারেল, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার ও কক্সবাজারের জেলা প্রশাসককে বিবাদী করা হয়েছে। রিটে কক্সবাজারের ৪টি পৌরসভা এবং ৭১টি ইউনিয়নের জন্ম নিবন্ধন পুনরায় শুরু করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি জন্ম নিবন্ধন পুনরায় শুরু করতে বিবাদীদের ব্যর্থতা ও নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারির আবেদন করা হয়েছে।

এছাড়াও ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে জন্ম নিবন্ধন করতে না পারা শিশুদের জন্ম নিবন্ধনের সুযোগ দেওয়ার নির্দেশনা জারির আবেদনও জানানো হয়েছে।

দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকা এসব সেবা ফের চালু করার জন্য গত এক বছর ধরে আন্দোলন করে আসছে কক্সবাজার পিপলস ফোরাম, আমরা কক্সবাজারবাসীসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন।

এই দাবিতে গত বছর ডিসেম্বরে জেলা প্রশাসক বরাবরে এবং চলতি বছর মে মাসে নির্বাচন কমিশন বরাবরে স্মারকলিপি দেয় নাগরিক সংগঠন দু’টি। স্মারকলিপি গ্রহণকালে প্রতিবারই ‘খুব শীঘ্রই’ সার্ভার স্টেশন খুলে দেয়ার আশ্বাস দেয়া হয় কিন্তু সার্ভার খুলে দেয়া হয় না। গত ১২ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত এক মত বিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন রোহিঙ্গা ঢলের পর হতে বন্ধ থাকা জন্মনিবন্ধন সার্ভার শীঘ্রই খুলে দেয়া হবে বলে জানান।

কক্সবাজারের আইন শৃঙ্খলাসহ বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে আয়োজিত এ মতবিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক বলেন, ‘সার্ভার বন্ধ থাকায় স্থানীয়দের নানামুখী দুর্ভোগের কথা উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে এ বিষয়ে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘জন্মনিবন্ধন সনদ সব বয়সের মানুষের জন্য জরুরি একটি উপকরণ। জমি রেজিস্ট্রি, পাসপোর্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি ও ভোটার হওয়াসহ নানা প্রয়োজনীয় কাজে জন্মনিবন্ধন অত্যাবশ্যকীয় কিন্তু ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা ঢলের পর রোহিঙ্গাদের ভোটার হওয়া ঠেকাতে জন্মনিবন্ধন সার্ভার বন্ধ করা হয়। এরপর থেকে স্থানীয়রা চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছিল। এনিয়ে স্থানীয়রা বার বার প্রশাসনের কাছে ধর্না দিয়ে আসছেন। এসব দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে নিয়মতান্ত্রিক ভাবে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে।’

কক্সবাজার পিপলস ফোরামের সভাপতি ও আমরা কক্সবাজারবাসী সংগঠনের সমন্বয়ক নাজিমউদ্দিন বলেন, ‘বার বার আশ্বাস দেয়ার পরও সার্ভার খুলে দেয়া হচ্ছে না। এনিয়ে কক্সবাজারবাসী বৈষম্যমূলক আচরণের শিকার হচ্ছে যা সংবিধানের মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী।’

x