১১টি বৈদ্যুতিক খুঁটি রেখেই সড়কে ঢালাইয়ের কাজ

শফিউল আজম, পটিয়া

রবিবার , ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ at ৯:৪২ পূর্বাহ্ণ
6

পটিয়া ছবুর রোডে ১১টি বৈদ্যুৎতিক খুঁটি রেখেই চলছে আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ। ছবুর রোড থেকে ক্লাব রোড হয়ে তালতলা পর্যন্ত ৫শ’ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৫. ৮ মিটার প্রস্থ এ সড়কের শুধুমাত্র ছবুর রোডেই রয়েছে ১১ বৈদ্যুতিক খুঁটি। ২৫০ এমএম বা ১০ ইঞ্চি আরসিসি ঢালাইয়ের ফলে বৈদ্যুৎতিক খুঁটি ভবিষ্যতে সরানোর প্রয়োজন হলেও রাস্তা খুড়াখুড়ি ও ঢালায় ভাঙাসহ নানা জটিলতা দেখা দিবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।
স্থানীয় অনেক ব্যবসায়ী এ কাজকে অপরিকল্পিত ও রাষ্ট্রীয় অর্থ অপচয় বলেও মন্তব্য করেন। ছবুর রোড ছাড়াও ক্লাব রোড থেকে তালতলা পর্যন্ত আরো প্রায় ৫/৬ টি এ রকম বৈদ্যুৎতিক খুঁটি রয়েছে। হাসান টেকনো, রানা বিল্ডার্স ও মেসার্স ছালেহ্‌ আহমদ নামের জয়েনবেঞ্চার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এ সড়কের কাজ পেয়েছেন বলে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়।
স্থানীয়রা জানান, এ রোড দিয়ে প্রতিদিন ছোট বড় বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে থাকে। বাস ট্রাক ও বিভিন্ন ভারী যানবাহনের ধাক্কায় যদি কোন বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙে পড়ে, তা হলে বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে। আরো জানাযায়, পটিয়ার থানা হাটে গরু মহিষ বোঝাই দূরপাল্লার বড় ট্রাকগুলো যাতায়াত করে। এ ধরণের ভারী যানবাহনের সাথে খুঁটির ধাক্কা লাগার ঝুঁকি খুবই বেশী। বর্তমানে রাস্তাটি ঢালাইয়ের পর স্বাভাবিকভাবেই বিভিন্ন গাড়ীর গতি থাকবে বেশী। ফলে দুর্ঘটনার ঝুঁকিও বেড়ে যাবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পটিয়া বিদুৎ বিতরণ বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জাকের সারওয়ার খাঁন জানান, রাস্তা ঢালাইয়ের কারণে বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর বিষয়ে পূর্বে থেকে কোন সিদ্ধান্ত বা সমন্বয় করা হয়নি।
তাছাড়া রাস্তার পাশে ড্রেন ও দোকান থাকায় খুঁটিগুলো সরানোও সম্ভব নয়। শুধুমাত্র থানার মোড়ে রাস্তার পশ্চিম পাশে একটি খুঁটি এক ফিট সরানো যাবে। বাকিগুলো সরানো বা অন্য জায়গায় স্থানান্তর করা কোন ভাবেই সম্ভব নয়।
এদিকে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি পটিয়া শাখার সভাপতি এম এ ইউছুফ জানান, রাস্তায় আরসিসি ঢালাইয়ের কাজটি অত্যন্ত ধীরগতি হওয়ায় ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বাণিজ্যে ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এ রাস্তাটিতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ চলায় এবং যানবাহন চলাচল করতে না পারার কারণে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা বাণিজ্য খুবই মন্দাভাব বিরাজ করছে। তবে আশার কথা হচ্ছে, পটিয়া পৌরসভা ও সড়ক জনপথ বিভাগের মধ্যে নাকি কথা হয়েছে ড্রেনের কাজ শেষ না হলেও, আগে ছবুর রোডে আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ কয়েক দিনের মধ্যেই শেষ করে যানবাহন চলাচলের ব্যবস্থা করে দেয়া হবে।
স্থানীয় ব্যবসায়ীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পটিয়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ সহকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ ইউনুচ জানান, ৫শ’ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৫.৮ মিটার প্রস্থ তালতলা চৌকি পর্যন্ত রাস্তাটির কাজ শেষ হওয়ার শেষ সময় ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত। এর আগেই আমরা কাজ শেষ করতে পারবো বলে মনে করি। কোন উন্নয়ন কাজ করতে হলে মানুষের সাময়িক অসুবিধা হয়। পরে জনগণই এ গুলোর সুফল ভোগ করে।

x