হিজড়া সম্পর্কে কিছু কথা

শুক্রবার , ১৪ জুন, ২০১৯ at ৪:৫৩ পূর্বাহ্ণ
125

দক্ষিণ এশিয়ায় “হিজড়া” শব্দটি দ্বারা এমন একটি জনগোষ্ঠীর পরিচয় নির্ধারণ করা হয়, যেখানে জন্মের সময় তাদের পুরুষ হিসেবে গন্য করা হলেও পরবর্তীতে তাদের আচরণের মধ্য দিয়ে তাদের নারী বৈশিষ্ট্যগুলো প্রকটভাবে প্রকাশ পায়। হিজড়া সম্প্রদায় সমাজে সবচেয়ে বেশি অবহেলিত হয়, তাই ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রীর মন্ত্রিসভা তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে হিজড়াদের স্বীকৃতি দেয়। কিন্তু রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি পেলেও আমাদের সমাজ এখনো হিজড়া সম্প্রদায়কে পুরোপুরি মেনে নিতে পারেনি। তাই হিজড়া সম্প্রদায় এখনো অবহেলিত। তাদের কর্মসংস্থানের তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই এবং কর্মসংস্থানের অভাবে তারা বিভিন্ন অপরাধমূলক এবং বেআইনি কাজে লিপ্ত হচ্ছে। টাকার জন্য তারা বিভিন্ন দোকানে এবং সাধারণ মানুষের কাছে হাত পাতে। যা বর্তমান প্রেক্ষাপটে এক প্রকার চাঁদাবাজির পর্যায়ে চলে গেছে। এই চাঁদাবাজি দিন দিন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে পরিবর্তিত হচ্ছে।
আমরা কি জানি যেসব হিজড়া এসব কাজ করছে তারা কি প্রকৃত পক্ষে হিজড়া কিনা? বেশ কিছুদিন ধরেই রাজধানীসহ আরো কিছু শহরে বাড়ছে নকল হিজড়ার উপদ্রব। বিশেষ অঙ্গ কর্তন এবং হরমোন চিকিৎসার মাধ্যমে শারীরিক পরিবর্তন এনে তৈরি হচ্ছে নকল হিজড়া। বিষয়টি সার্জিক্যাল চিকিৎসকরাও স্বীকার করেছেন। এসকল হিজড়া লিপ্ত হচ্ছে চাঁদাবাজিতে মাদক ব্যবসায় খুন রাহাজানি সহ আরো বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে। আমাদের মনে হয় এ সকল নকল হিজড়াদের আইনের আওতায় আনা উচিত এবং যথাযথ বিচার করা উচিত। সেইসাথে যে সকল হিজড়া কর্মসংস্থানের অভাবে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে লিপ্ত হচ্ছে তাদের দিকে সরকারের বিশেষ নজর দেয়া উচিত এবং তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নেয়া উচিত। কেনো তাদের কাজ করার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না সে বিষয়ে নজর দেয়া বিশেষ প্রয়োজন। সাধারণ মানুষ যাতে তাদের স্বাভাবিকভাবে মেনে নেয় এ বিষয়ে জনসচেতনা তৈরির পদক্ষেপ বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। কারণ সব হিজড়ায় চায় মর্যাদার সাথে বাঁচতে এবং সেটা তাদের মৌলিক অধিকার।
রোকসানা জান্নাত, অর্পা বড়ুয়া, মোহাম্মদ আবুল মারুফ
আইন বিভাগ (৩৬তম ব্যাচ), প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়।