হলি আর্টিজান মামলার দৃষ্টান্ত রায়

বুধবার , ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ

বহুল আলোচিত হলি আর্টিজান জঙ্গি হামলা মামলার রায়ে ৮ জন অভিযুক্তের ৭ জনের ফাঁসি এবং একজনকে খালাস দিয়েছেন ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক। হামলার পরিকল্পনা গ্রহণ, বাস্তবায়ন এবং হামলাকারীদের সহায়তার অভিযোগে এই দণ্ড দেয়া হয়েছে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। রায়ে জন প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটেছে। সন্দেহ নেই। ঢাকার অভিজাত কূটনৈতিক এলাকায় হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় অন্তত: ২২ জন নিহত হওয়ার ঘটনা বাংলাদেশের জন্য গভীর উদ্বেগ ও ভাবমর্যাদার বিষয় হয়ে দেখা দিয়েছিল। ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে হোলি আর্টিজান ক্যাফেতে হামলা চালিয়ে জঙ্গিরা যাদেরকে জিম্মি করেছিল তাদের বেশির ভাগ বিদেশি নাগরিক। এদের মধ্যে ৭ জন জাপানি এবং ৯ জন ইতালির নাগরিক ছিলেন। এদের বেশির ভাগ ইঞ্জিনিয়ার ও গার্মেন্টস ব্যবসায়ী। দেশ কাঁপানো জঙ্গি হামলা ও জিম্মিদশা থেকে ভিকটিমদের উদ্ধার করতে কমান্ডো বাহিনীর অভিযান ছিল প্রশংসনীয়। পুলিশের অভিযোগপত্র গঠনের মাত্র এক বছরের মধ্যে এমন একটি চাঞ্চল্যকর মামলার রায় ঘোষিত হওয়া নিঃসন্দেহে একটি প্রশংসনীয় দৃষ্টান্ত। শতকরা ৯০ ভাগ মুসলমান জনগোষ্ঠীর বাংলাদেশের মানুষের মধ্যকার সম্প্রীতি ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার উপর কালিমা লেপন করাই হোলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার মূল লক্ষ্য ছিল। হোলি আর্টিজান হামলায় বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন অংশীদার জাপান এবং বাণিজ্যিক অংশীদার ইতালিসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ারসমূহ আশঙ্কা থাকলেও সরকার এবং আইন-শৃক্সখলা বাহিনীর কার্যকর উদ্যোগের মধ্য দিয়ে সে আশঙ্কা থেকে রক্ষা পেয়েছে দেশ। তবে হোলি আর্টিজান হামলায় পরোক্ষ অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে অনেক। আমরা সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে সরকারের আরো কঠোর পদক্ষেপ প্রত্যাশা করি।
– এম.এ. গফুর, বলুয়ার দীঘির দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়, কোরবাণীগঞ্জ, চট্টগ্রাম।

x