‘স্মৃতির টানে এসো মিলি প্রিয় প্রাঙ্গনে’

৪৬ বছরে আগ্রাবাদ টিএন্ডটি উচ্চ বিদ্যালয়

শনিবার , ২৩ নভেম্বর, ২০১৯ at ৫:৪৩ পূর্বাহ্ণ
103

মহান মুক্তিযুদ্ধের পর এবং সত্তর দশকের শুরুর দিকে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদস্থ সরকারি কর্মজীবীদের পারিবারিক আবাসস্থল পি.টিএন্ডটি কলোনিতে বসবাসরত পরিবারগুলোর সন্তানদের শিক্ষা গ্রহনের প্রয়োজনীয়তায় কলোনির মানুষজন একটি বিদ্যালয়ের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। যা পরবর্তীতে বহু চেষ্টা-তদবিরের মধ্য দিয়ে তৎকালীন কলোনীর বিশিষ্টজন, প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক জনাব ফজলুল হক মজুমদার, সরকারি টিএন্ডটি বোর্ডের তৎকালীন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ ও কলোনী এসোসিয়েশনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৭৩ সালে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে আগ্রাবাদ টিএন্ডটি উচ্চ বিদ্যালয়।
আজ থেকে প্রায় ৪৬ বছর আগে টিএন্ডটি উচ্চ বিদ্যালয় নামে যে বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু, তা আজ এক বিশাল মহিরুহ! এই দীর্ঘ ৪৬ বছরের পথ চলায় আজ স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশ ছাড়িয়ে সারা বিশ্বেও সমুজ্জ্বল। স্কুলের সেই এলামনাইরা তাঁদের প্রিয় বিদ্যালয়ের ৪৬ বছরের লগ্নে এসে আবারও স্কুল ক্যাম্পাসকে আড্ডা হুল্লোড়ে মাতিয়ে রাখার প্রয়াসে আর অনেকদিনের না-দেখা বন্ধু আর প্রিয় স্কুল ক্যাম্পাসকে কাছে পাওয়ার হাতছানিতে বিগত কয়েক মাস ধরেই ভীষণ নস্টালজিক। আসন্ন ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ এ অনুষ্ঠিতব্য প্রথম প্রাক্তন এলামনাই পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে আয়োজন করার প্রয়াসে! স্কুলের এই এলামনাই পুনর্মিলনী নিয়ে স্কুল ক্যাম্পাসে কতটা রঙ লেগেছে তা অনুমান করা না গেলেও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মনে যে খুশি আর আনন্দের সম্মিলিত বান ডেকেছে তাতো বিগত কয়েক মাস ধরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রাক্তনদের উচ্ছ্বাসে টের পাওয়া যায়। আর পুনর্মিলনীকে উপলক্ষ করে আগামী ৫ ডিসেম্বর থেকে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রাক্তন এলামনাই বিভিন্ন ব্যাচের ফুটবল টুর্নামেন্ট, দাবা আর ক্যারাম খেলা। এলামনাইদের প্রত্যাশা, প্রতিটা ব্যাচের প্রতিটি ম্যাচ শুধু একটি খেলাই হবে না, তা হয়তো হয়ে উঠবে খেলাকে উপলক্ষ করে ব্যাচগুলোর এলামনাইদের একে অপরের সাথে মিলিত হওয়ার, প্রিয় বন্ধুকে কাছে পাওয়ার এক অপার্থিব ক্ষণ!
সে যাই হউক, পুরনো বন্ধু/সতীর্থ আর হারিয়ে যাওয়া স্কুল ক্যাম্পাসকে আবার ফিরে পাওয়ার সুতীব্র বাসনায় স্কুলের প্রাক্তনদের এই আয়োজন সত্যিই আশা জাগানিয়া। পুনর্মিলনী আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী যথাক্রমে ইসহাক আরিফ ও ওমর ফারুক এ প্রসঙ্গে বলেন, আমরা আগামী দিনে আরও এগুবোই ইনশাআল্লাহ, এ কথা আমরা জোর দিয়ে বলতেই পারি। কারণ, এগিয়ে যাওয়ার আর বিকশিত হওয়ার উপাদানগুলো আমাদের এলামনাইদের মাঝে প্রবলভাবেই উপস্থিত। আর আমাদের অসাধারন সাংগঠনিক দক্ষতাসম্পন্ন মেধাবী কিছু এলামনাই আছে যারা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন কোন প্রতিদানের প্রত্যাশা না করে তখনতো একটু নিশ্চিন্তে থাকাই যায়! ধন্যবাদ, ভালোবাসা ও অশেষ কৃতজ্ঞতা নিরবে বিশাল কর্মযজ্ঞ সম্পাদন করে যাওয়া এলামনাইদের মাঝে সেই সব সংগঠকদের প্রতি।
এলামনাই পুনর্মিলনী নিয়ে আবেগ আর উচ্ছ্বাস টের পাওয়া যায়, স্কুলের এলামনাইদের কথা আর কাজে! বিদ্যালয়ের ২০০৬ ব্যাচের এলামনাই বর্তমানে অত্র স্কুলেই কর্মরত মতিউর রহমান টিপু বিদ্যালয়ের ফেলে আসা সেই সব দিনের কথা বলতে গিয়ে বলেন, আমাদের সব সম্পর্ক/বন্ধুত্বই জীবনে এতটা স্মৃতিকে নাড়া দেয় না, যতটা নাড়া দেয় আর জীবনভর তাড়িয়ে বেড়ায় ফেলে আসা বিদ্যালয়ের বন্ধুরা! আর তাইতো অনেকদিন পর তাঁদের দেখতে পাব ভাবতেই আমি শিহরিত!’ আরেক প্রাক্তন শিক্ষার্থী ২০০০ ব্যাচের মনিরুল ইসলাম বলেন, পুরনো স্কুল বন্ধুদের সাথে অনেকদিন পর দেখা হবে, সিনিয়র-জুনিয়র সতীর্থদের কাছে পাব, এই রোমাঞ্চ সে কি আর বলে বুঝানো সম্ভব?
পুনর্মিলনীর এই ক্ষনে টিএন্ডটি স্কুলের প্রাক্তন ও বর্তমান সকল শ্রদ্ধেয় শিক্ষক, স্কুল পরিচালনা কমিটির সকল সম্মানিত সদস্যবৃন্দ, সকল এলামনাই আর বর্তমান শিক্ষার্থী সবার জন্যই আমাদের উজাড় করা ভালোবাসা আর শুভকামনা। এই সব প্রিয়জনদের সান্নিধ্যে কিছুটা সময় কাটানোর উদগ্র বাসনায় আর পুরনো স্মৃতিকে আবারও মনে করিয়ে দিতে এই আয়োজন সার্থক ও সফল হউক। আজকের ডিজিটাল বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমের কারনে যদিও হারিয়ে যাওয়া অনেক বন্ধুকেই আমরা খুঁজে পাই, কিন্তু ফেবু/ভাইবারে খুঁজে পাওয়া আর কাছে পেয়ে মন খুলে আড্ডা, গান, মান-অভিমান আর কিছুতে কি পাওয়া যাবে? তাই ২৭ ডিসেম্বর ’১৯ আড্ডা আর হুল্লোড়ে মেতে উঠে এলামনাইদের বরনের প্রতীক্ষায় টিএন্ডটি স্কুল প্রাঙ্গণ। কলোনির প্রবেশমুখে স্থাপিত বুথে এবং ০১৮৯২-৯৪২৪১৯ এই মুঠোফোন নংএ যোগাযোগ করে প্রাক্তন এলামনাই যারা এখনও রেজিস্ট্রেশন করেননি আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে তা সম্পন্ন করে নিতে পারেন। যাই হউক, প্রাণে প্রাণ মেলানোর এলামনাইদের এই আয়োজন সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হউক, এই শুভকামনা।
সফিক চৌধুরী

x