স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘তৃতীয় বিশ্বের ম্যাজিক’র প্রদর্শনী কাল শুক্রবার শিল্পকলা একাডেমীতে

বৃহস্পতিবার , ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ at ৬:২৭ পূর্বাহ্ণ
76

চট্টগ্রাম সত্যজিৎচর্চা কেন্দ্রের প্রথম প্রয়াস ও সত্যজিৎ গবেষক, সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন পিন্টুর স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘তৃতীয় বিশ্বের ম্যাজিক’র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে কাল ৭ সেপ্টেম্বর শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে। প্রদর্শনী শেষে থাকবে মত বিনিময়ের আয়োজন।

ওপার বাংলার প্রখ্যাত ঔপন্যাসিক স্বপ্নময় চক্রবর্তীর অণুগল্প অবলম্বনে ২০ মিনিটের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়েছে। চিত্রনাট্য, সংলাপ, পোস্টার, পোশাক পরিকল্পনা ও পরিচালনা করেছেন সত্যজিৎচর্চা কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হেসেন পিন্টু। প্রধান সহযোগী পরিচালক হচ্ছেন, আবদুল্লাহ জাফর সমীর। চিত্রগ্রহণে জাহাঙ্গীর চিশতি ও মোরশেদ হিমাদ্রী হিমু। সম্পাদনা, শব্দ ও রঙ বিন্যাসকারী সুজন মাহমুদ এবং প্রযোজনা করেছেন হাসিনা বেগম। ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন চট্টগ্রামের নাট্যজন অলক ঘোষ।

উল্লেখ্য, নির্মিত ছবিটির উদ্বোধনী প্রদর্শনী ঢাকাস্থ চলচ্চিত্রম ফিল্ম সোসাইটির আয়োজনে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে গত ১০ মে অনুষ্ঠিত হয়। প্রদর্শনীটি জাতীয় পর্যায়ে বিপুল সাড়া ফেলতে সক্ষম হয়। ‘প্রথম আলো’সহ বিভিন্ন পত্রিকায় রিভিউ প্রকাশিত হয়।

তৃতীয় বিশ্বের ম্যাজিক’ আসলে গল্পের ভেতরের গল্প, মানুষের ভেতরে মানুষ, বিষয়ের ভেতরে বিষয়। এই স্বল্পদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্রে আপাতবর্ণিত ঘটনাগুলোর কেন্দ্রিয় চরিত্র আলী নামের লোকটির যে জীবনসংগ্রাম দেখা যায়, তা আসলে দরিদ্রবিশ্ব একটি সত্তা, একটি বোধ। চলার পথের আবর্জনা থেকে, ডাস্টবিনের স্তূপীকৃত বর্জ্য থেকে তার যাত্রা। এভাবে, রূপকাশ্রিত দুর্গন্ধময় ভাগাড়ের পিরামিড বেয়ে উঠতে উঠতে সে বেঁচে থাকার আহরণে যাপন করে জীবনকাল। এমন করেই বাঁচে দরিদ্রবিশ্বের মানুষেরা। বাঁচে উন্নত বিশ্বের দানে, উচ্ছিষ্টে আর ঋণজালে। ময়লাঘাঁটা পেশাজীবী আলী ক্ষুণ্নিবৃত্তির জন্য ‘তাজমহল’ নামক রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করতে চাইলেও বিতাড়িত হয়। রয়েছে সুপার মার্কেটের ঝাঁচকচকে পরিবেশের অবাক পৃথিবীতেও তার বিচরণে বাধা। স্থান তার ফুটপাতের দারিদ্র্যক্লিষ্ট মানবকুলের মাঝে। নিয়তিকে অতিক্রম করার উপায় বুঝি নেই আলীর মতো বঞ্চিত বিশ্বের মানবগোষ্ঠীর।

নগরায়নের বর্জ্যের পাহাড় উলটাতে উলটাতে আলী পায় ভাঙাচোরা একটি খেলনা পিস্তল। ট্রিগারে চাপ দিতেই দুঃস্বপ্নের আওয়াজ। অতঃপর পেয়ে যায় ছোট একটি নল। নলের একপ্রান্তে চোখ রাখলেই দেখা যায় যতসব আজব কাণ্ডকারখানা। মন যাদের পরিষ্কার তারাই কেবল দেখতে পায় অসঙ্গতিময় জীবনচিত্র। বিশ্বজুড়ে ঘটে চলা অসঙ্গতি, ক্রুরতা ও অমানবিকতার ঘটনা। এভাবেই আসতে থাকে দৃশ্যের পর দৃশ্য। আলী দেখে, আবর্জনার এভারেস্টের চূড়ায় বিজয়ীর উচ্চতায় দাঁড়িয়ে দূরবীনের মতো নলের প্রান্তে চোখ রেখে। পুঁজিবাদী বিশ্বের কূটচালে তৃতীয় বিশ্বের দেশে দেশে চলছে যুদ্ধবিগ্রহ, হানাহানি, জাতিগত উচ্ছেদ। ফুটে উঠে স্মৃতির মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ, ১৯৭১এ গণহত্যা। বিশ্ব বিবেকের উপর চাবুকের আঘাতের মতো ফুটে উঠে মর্মভেদী চিত্রমালা। মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিতাড়ন ও নিমূর্লের প্রক্রিয়া। প্রাণভয়ে সমুদ্রে ভাসে ডুবন্তপ্রায় মানুষ। মৃত্যুর এমন উৎসব আর সহ্য করতে পারে না আলী। ভেঙে পড়ে প্রিয় মাটিকে আশ্রয় করে। কান্নার নোনা জলে ধুয়ে দিয়ে আলী যেন চায় ন্যায়, মানবিকতা, নৈতিকতা ও সমতার বোধে আবারও মানব সত্তার জাগরণ ঘটাতে। অনুষ্ঠানে প্রধান ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আবুল মোমেন, ডা. . রমিজউদ্দিন চৌধুরী, শিশির দত্ত, এজাজ ইউসুফী, . কে.এম জহুরুল ইসলাম, ওমর কায়সার, আলম খোরশেদ ও শৈবাল চৌধুরী। উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সাফায়াত খান। চিত্রপরিচালক আনোয়ার হোসেন পিন্টু এই চলচ্চিত্র সম্পর্কে জানান, “নিরেট বাস্তবতা বলতে যা বোঝায়-‘তৃতীয় বিশ্বের ম্যাজিক’ সেই বাস্তবতার গল্প বা সিনেমা নয়। বলা যেতে পারেঅবাস্তবতার বাস্তবতা।”

এদিন চলচ্চিত্রটির তিনটি প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। প্রদর্শনীর সময়সন্ধ্যে ৬টা, রাত ৮টা ও রাত ৯টায়। প্রথম প্রদর্শনীটি (সন্ধ্যা ৬টায়) হবে বিশেষ আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য। প্রবেশপত্র পাওয়া যাবে প্রদর্শনীর আগে হল কাউন্টারে। ছবিটির প্রদর্শনীতে চলচ্চিত্রপ্রেমীদের উপস্থিত থাকবার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

x