স্বরিৎ ললিতকলা কেন্দ্রের উচ্চাঙ্গ সংগীতানুষ্ঠান

আনন্দন প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ১২ এপ্রিল, ২০১৮ at ৫:০২ পূর্বাহ্ণ
93

স্বরিৎ ললিতকলা কেন্দ্রের চতুর্থ বছর পূর্তিতে গত ৩০ মার্চ থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রামে উচ্চাঙ্গ সংগীত সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। মঙ্গল প্রদীপ জ্বালিয়ে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন উস্তাদ ক্যাপ্টেন আজিজুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য দেন সাংগঠনিক সম্পাদক রাজীব সাহা। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন শিক্ষাবিদ হাসিনা জাকারিয়া বেলা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সহসভাপতি রণধীর দাশ।

অনুষ্ঠানের সূচনা হয় বাঁশিতে বান্দবাদনের মধ্য দিয়ে। বাঁশিতে তিন তালে রাগ ভূপালী পরিবেশিত হয়। শিল্পীরা হলেন মো. হারশুন মেহেদী, সুমন নাথ, সূর্যমনি দাস, শিমুল মজুমদার, সৈকত বড়ুয়া, সুহৃদ দত্ত, মো. মাহফুজুর রহমান রিগ্যান, মো. সাইফুদ্দীন সাইফু, সুমন নাথ ও মাধব চন্দ্র রায়।

দিবাকর কানুনগোয় পরিবেশন করেন রাগ ধানি। তিনি প্রথমে এক তাল বিলম্বিত লয়ে বন্দিশ পিয়া বিনা বোইরন ভঈ ও পরে আদ্ধা তাল মধ্যলয়ে গেয়ে শোনান বন্দিশ অতি মধুর বন বানশী বাজায়ি। পরে মায়াবী শ্যাম পরিবেশন করেন রাগ রাগেশ্রী। তিনি প্রথমে এক তাল বিলম্বিত লয়ে বন্দিশ শুভ দিন ঘর আজ ও আদ্ধা তাল মধ্যলয়ে বন্দিশ গুণীকে গুণ গাও এ আশা মোর।

পরে রিটন কুমার ধর পরিবেশন করেন রাগ যোগ। তিনি প্রথমে এক তাল বিলম্বিত লয়ে বন্দিশ তুম যোগে লা এবং তিন তাল মধ্যলয়ে বন্দিশ সাজন মোরে ঘর আও গেয়ে শোনান। এরপর রাগ মিশ্র খামাজে বন্দিশ কোন গলি গেও শ্যাম ঠুমরী পরিবেশন করেন।

শেষে মঞ্চে আসেন সালাহউদ্দীন শান্তনু। তিনি সন্তুরে বাজিয়ে শোনান রাগ পুরিয়া ধানেশ্রী। প্রথমে তিনতাল মধ্যলয়ে ও পরে দ্রুত লয়ে এই রাগটি পরিবেশন করেন। শিল্পীদের তবলা সহযোগিতায় ছিলেন সুদীপ সেনগুপ্ত, তপন দত্ত, পিনুসেন দাশ, রণধীর দাশ, অমিত চৌধুরী দীপ্ত, হারমোনিয়ামে শুভ দাশ, মানস দাশ ও তানপুরায় আনকিতা নন্দী রিম্পা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাচিক শিল্পী প্রবীর পাল।

x