স্বদেশের ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সন্ধ্যা

মুহাম্মদ মনির হুসাইন

বৃহস্পতিবার , ৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৫:৪১ পূর্বাহ্ণ

নৃত্যের তালে তালে ঘুঙুর এর আওয়াজ আর সূরের মূর্ছনাকে একাকার করে সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি শিল্পীরা দর্শক শ্রোতাদের মন মাতিয়ে তুলেছিল গত ১৬ নভেম্বর শনিবার চট্টগ্রাম থিয়েটার ইনস্টিটিউটে সন্ধ্যা ৬টায় বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সন্ধ্যায়। স্বদেশ আবৃত্তি সংগঠনের আয়োজনে স্বদেশ আবৃত্তি সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোহাম্মদ সেলিম ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মমতা’র প্রধান নির্বাহী লায়ন রফিক আহমদ ও প্রধান আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ড. আনোয়ারা আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন ভারতের বিশ্ব বঙ্গ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন এর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক রাধা কান্ত সরকার, মমতার উপ- প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ ফারুক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মদ আলী ও মমতা’র পরিচালক তৌহিদ আহমেদ। অভিমত প্রকাশ করেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সদস্য আবুল বারি, বিশ্ব বঙ্গ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলনের বাংলাদেশ প্রতিনিধি সংষ্কৃতিকর্মী মোঃ ইকবাল বাহার।
মৈত্রী সন্ধ্যায় সঙ্গীত পরিবেশন করেন বিশ্ব বঙ্গ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন এর সঙ্গীতশিল্পী কৃষ্ণা সাহা, মিলন দাস, সীমা দাস, শীলা দাশগুপ্ত, কোলকাতার লোকসঙ্গীত শিল্পী সনজিৎ মন্ডল, ইন্ডিয়ান বুকস অব রেকর্ড খ্যাতি প্রাপ্ত সঙ্গীত শিল্পী শিবানী দাস ও কবি ও সঙ্গীতজ্ঞ স্বপন কুমার দাশ, আবৃত্তি পরিবেশন করেন কোলকাতার কবি ও আবৃত্তিশিল্পী রীনা সাহা ও স্বদেশ আবৃত্তি সংগঠনের নুসরাত জাহান পুষ্প, সানজিদা রহমান ও সাদেক রহমান। নৃত্য পরিবেশন করেন কোলকাতার উজ্জ্বসী দত্ত, আসামের প্রলয় দত্ত, শুভশ্রী ধর, প্রিয়ঙ্কা দত্ত ও আসামের শিশু শিল্পী আয়ূষী দত্ত। প্রধান অতিথির বক্তব্যে রফিক আহমদ বলেন, “সাংষ্কৃতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত থাকার মাধ্যমে প্রতিটি ব্যক্তি তার সৃজনশীলতা ও সভ্যতার বহি:প্রকাশ করতে পারে। স্বদেশের এ ধরনের আয়োজন ভারত-বাংলাদেশের সাংষ্কৃতিক মেলবন্ধনকে অটুট রাখতে আরও সহায়তা করবে।” অনুষ্ঠানে ভারত হতে আগত শিল্পীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ছবি রানী সরকার, সন্তোষ কুমার গুন, অমল নারায়ন চৌধুরী, শীলা দাশগুপ্ত, শুক্লারানী দাস, অসিত সাহা, শিখা চৌধূরী, শেলী চক্রবর্তী, প্রতিভা গুন, অসিত গাঙ্গুলী, শান্তীনাথ কুন্ডু, রজত গাঙ্গুলী, প্রভাতি মন্ডল প্রমুখ। অনুষ্ঠানটিকে সার্থক করে তুলতে সার্বিক সহযোগিতায় ছিল স্বদেশ’র সহ সভাপতি নাছির আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হোসেন, নির্বাহী সদস্য রাকিব মহসিন, সদস্য সোনিয়া আক্তার শারমিন, মিলি আক্তার, মোঃ হাসান ও অপু। আবহ সঙ্গীতে সহায়তা করেন কিবোর্ডে অভিষেক দাশ, তবলায় মনজয় ধর, দোতরায় চিত্তরঞ্জন বর্মন।
প্রধান আলোচক অধ্যক্ষ ড. আনোয়ারা আলম বলেন, ‘নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও স্বদেশ আবৃত্তি সংগঠন সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে যেভাবে নিরলসভাবে কাজ করছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়’। তিনি আরও বলেন, ভারত আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু, স্বাধীনতার সময় হতেই আমরা তার প্রমান দেখে এসেছি। একই সাথে সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলেও আমাদের সাথে প্রতিবেশি এই দেশের সংষ্কৃতি কর্মীদের মধ্যে অভিন্নতা সেটিই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সাংস্কৃতিক পরিবেশনা শেষে অতিথিদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়।

x