সুপার ফোরের সম্ভাবনায় সিটি কর্পোরেশন গ্রীণ রিজেন্সী বড় ব্যবধানে হারালো উল্লাসকে

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শুক্রবার , ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ at ৭:০০ পূর্বাহ্ণ
56

সিজেকেএস কনফিডেন্স সিমেন্ট প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগে গতকালও দুটি খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খেলায় জিতেছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন গ্রীণ। অন্যদিকে সাগরিকার মহিলা কমপ্লেক্স মাঠে অনুষ্ঠিত খেলায় জিতেছে রিজেন্সী স্পোর্টস ক্লাব। সিটি কর্পোরেশন গ্রীণ এ পর্যন্ত ৪টি খেলায় জিতেছে। তাদের পরবর্তী খেলা রয়েছে শতাব্দী গোষ্ঠীর সাথে। এ খেলায় জিতলে সুপার ফোরে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে তাদের। অন্যদিকে লিটল ব্রাদার্স এ পর্যন্ত একটি খেলায় জিতেছে। রেলিগেশনে পড়ার সম্ভাবনা আছে দলটির। গতকাল সিটি কর্পোরেশন গ্রীন ১২ রানে লিটল ব্রাদার্সকে পরাজিত করে। টসে জিতে সিটি কর্পোরেশন গ্রীন প্রথমে ব্যাট করতে নামে। ৪৬.১ ওভার খেলে ১৪৫ রান সংগ্রহ করে তারা সবাই আউট হয়ে যায়। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৬ রান করেন নাইমুল ইসলাম। ৭৪ বল খেলে ৫টি চার এবং ১টি ছক্কায় তিনি ঐ রান সংগ্রহ করেন। দুই ওপেনার আশরাফুল ইসলাম ১৪ এবং খালেদ সাইফুল্লাহ ১৫ রান করেন। শেষ দিকে জয়নাল আবেদীন ১২ এবং বোরহান উদ্দিন ২১ রান করে রান সংখ্যা ১৪৫ এ নিয়ে যেতে সমর্থ হন। অতিরিক্ত রানযোগ হয় ২১। লিটল ব্রাদার্সের মহিউল ইসলাম ৩২ রানে ৩টি এবং সাকিফ সাদেকি ৯ রানে ২টি উইকেট দখল করেন। এছাড়া সোহানুর রহমান, কাজি রবি এবং আরাফাত হীরা প্রত্যেকে ১টি করে উইকেট নেন।

জবাবে লিটল ব্রাদার্স ৩৬.৫ ওভারে ১৩৩ রানে সব উইকেট হারিয়ে ফেলে। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা জয়ের সম্ভাবনা জাগালেও টেইলএন্ডাররা মোটেও সুবিধা করতে পারেননি। বিশেষত সিটি কর্পোরেশন গ্রীনের অফ স্পিনার আবু নাসের একাই ধ্বসিয়ে দেন লিটল ব্রাদার্সের শেষ দিকের ব্যাটসম্যানদের। আবু নাসের ৮.৫ ওভার বল করে ২ মেডেনে ৩২ রান দিয়ে একাই ৬টি উইকেট দখল করে নেন। এর আগে লিটল ব্রাদার্স শুরুটা ভালোই করে। দলীয় ৪৬ রানে তাদের দুই ওপেনার বিচ্ছিন্ন হন। জোবায়েদ হোসেন ৩৬ এবং ইমদাদুল ফারহান ২৩ রান করে বোরহান উদ্দিনের বলে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। জোবায়েদ ২৬ বলে ৬টি বাউন্ডারী এবং ১টি ছক্কা মেরে ঐ রান সংগ্রহ করেন। ইমদাদ ১৭ বল খেলে ৪টি চার এবং ১টি ছক্কা হাঁকান। এরপর মামুন উদ্দিন ১৩,সোহানুর রহমান ১২, আরাফাত হীরা ২৫ করেন। বাকিরা কেউ দু’অংকে যেতে পারেননি কেবল রাহুল কিশোরের ১১ রান ছাড়া। সিটি কর্পোরেশনের বোরহান উদ্দিন ২৯ রানে ২টি উইকেট নেন। শফিউল আলম এবং জয়নাল আবেদীন পান ১টি করে উইকেট। সাগরিকায় রিজেন্সী স্পোর্টস ক্লাব ১৩৫ রানের বড় ব্যবধানে উল্লাস ক্লাবকে পরাজিত করে। টসে জিতে উল্লাস রিজেন্সীকে ব্যাট করতে পাঠায়। ৪৮.৪ ওভার ব্যাট করে রিজেন্সী স্পোর্টস ক্লাব ২২৩ রানে সব উইকেট হারায়। শুরুতেই দুই ওপেনার দারুণ সূচনা করে দেন। দলীয় ১০৩ রানের মাথায় হাসান উদ্দিন জনি নিজস্ব ৪৫ রানে আউট হয়ে যান। ৫টি চার এবং ২টি ছক্কা দিয়ে সাজানো ছিল তার ইনিংস। তিনি খেলেন ৫৭ বল। অপর ওপেনার আবদুল্লাহ আল মামুন দলের সর্বোচ্চ ৫৩ রান করে ক্রিজ ছাড়েন। ৮১ বলের মোকাবেলায় ৪টি বাউন্ডারী এবং ২টি ছক্কা হাঁকেন মামুন। তিন নম্বরে খেলতে নামা আকিব হাসান ৫০ বল খেলে যোগ করেন ৪৫ রান। ৫টি ছক্কা ছিল তার ইনিংসে। রিজেন্সীর হয়ে বাকিদের মধ্যে আসলাম হোসেন ১০,মিনহাজ উদ্দিন ১৩, জাহেদুল ইসলাম অপরাজিত ১২ রান করেন। অতিরিক্ত রান হয় ২৯।

উল্লাস ক্লাবের হয়ে পিনন শর্মা ৩২ বলে ৪টি উইকেট নেন। আবদুল্লাহ মাসরুর ৪৮ রানে এবং হাসিব বিন আবসার ৫২ রানে ২টি করে উইকেট শিকার করেন। এছাড়া নাজিম উদ্দিন এবং রাকিব আহমেদ পান ১টি করে উইকেট।

উল্লাস ক্লাব জবাব দিতে নেমে ২৫.৩ ওভার খেলতে পারে মাত্র। ৮৮ রানেই গুটিয়ে যায় তারা। ওপেনার মনজুর আহমেদ ২০,রাকিব আহমেদ ১৯,পিনন শর্মা ১১ এবং জাহেদ আলম ১০ ছাড়া আর কেউ দ্বিঅংকের ঘরে যেতে পারেনি। অতিরিক্ত রান হয় ১১।

রিজেন্সীর সাইফুল ইসলাম ২৯ রানে ৩টি উইকেট পান। রাজন বিশ্বাস,মিনহাজ উদ্দিন এবং জাহেদুল ইসলাম প্রত্যেকে ২টি করে উইকেট তুলে নেন যথাক্রমে ১৫,৯ এবং ৪ রান দিয়ে দিয়ে। উল্লাস ক্লাব এবং রিজেন্সী স্পোর্টস ক্লাব প্রত্যেকেই ২টি করে খেলায় জিতেছে। আজ ও কাল লিগের কোন খেলা নেই। আগামী ১৭ ডিসেম্বর থেকে আবার প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগের খেলা শুরু হবে।

x