সাধারণে অসাধারণ

রেসিপি দিয়েছেন তামান্না আহমেদ

রবিবার , ২৪ নভেম্বর, ২০১৯ at ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ
20

শাপলা শুটকি

উপকরণ: শাপলা লতি ১ কাপ, ছোট করে টুকরা করা, লইট্টা শুটকি ১০ টুকরা (ছোট করে), পেঁয়াজ কুচি- ২টা, রসুন বাটা- ১ চা চামচ, আদা বাটা- ১ চা চামচ, আস্ত রসুন- ১০ কোয়া, হলুদ গুঁড়া- ১/২ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া- ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া- ১/২ চা চামচ, জিরা গুঁড়া- ১ চিমটি, লবণ- ১ চা চামচ, তেল- ৩ টেবিল চামচ
প্রণালি: প্রথমে লইট্টা শুটকি নিয়ে ৫ মিনিট চুলায় জ্বাল দিতে হবে। তারপর তা ৩০ মিনিট গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। তারপর শিল-পাটায় ছেঁচে কাঁটা বেঁছে রাখুন। এবার একটি কড়াইতে অল্প তেল দিয়ে তাতে শুটকি ভেজে নিন। বাকি তেল দিয়ে সেখানে পেঁয়াজ, মরিচ আর সব মসলা দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন। এবার ১ কাপ পানি দিয়ে মসলা আর শুটকি কষানো হয়ে গেলে এবার এতে শাপলা লতি দিয়ে দিন ও ৫-৬ মিনিট রান্না করুন। ব্যস! হয়ে গেল মজাদার শাপলা শুটকি! গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করুন।

চিংড়ি করলা

উপকরণ : চিংড়ি ১/২ কাপ, করলা- ১ টি বড়, (গোল গোল করে চাক করে কাঁটা), পেঁয়াজ কুঁচি- ২/৩ কাপ, আদা-রসুন বাঁটা- ১ টে.চা., কাঁচামরিচ- ৫ টি, মাঝ বরাবর আড়াআড়ি ফালি করে ২ ভাগ করা, মরিচের গুঁড়ো- ১/২ টে.চা., হলুদের গুঁড়ো- ১/২ টে.চা., সরিষা বাঁটা- ২ টে.চা., সরিষার তেল- ৩ টে.চা., পানি, লবণ।
প্রণালি : একটি প্যানে সরিষার তেল নিয়ে ১/৩ কাপ পেঁয়াজ কুঁচি দিয়ে হালকা ভেজে নিন। এরপর আদা-রসুন বাঁটা দিয়ে নাড়ুন কিছুক্ষণ। একটু পানি দিন। মরিচের গুঁড়ো, হলুদের গুঁড়ো ও লবণ দিয়ে ২ মিনিট নাড়ুন। চিংড়ি মাছ ছাড়ুন। ৭ মিনিট রান্না করুন।
এবার তেল ভেসে উঠার পর সামান্য পানি (১/৩ কাপ) দিয়ে দিন। সরিষা বাঁটা দিয়ে হালকা করে নেড়ে মেশান। এবার মিডিয়াম আঁচে করলা, কাঁচামরিচ ও ১/৩ কাপ পেঁয়াজ কুঁচি তাতে ছাড়ুন। ভালো করে নেড়ে ঢেকে দিন। ৫ মিনিট ঢেকে রাখুন। চুলার আঁচ কমিয়ে দিন। করলা যাতে প্যানে পুড়ে লেগে না যায় তাই আঁচ সবসময় কমিয়ে রাখবেন এবং খেয়াল রাখবেন। এবার ঢাকনা খুলে নেড়ে দিন। যদি সরিষা বাঁটা বেশি খান তো আরেকটু দিতে পারেন। হালকা নেড়ে আরও ১০ মিঃ ঢেকে রাখুন। আধা কাঁচা রাখলে খেতে ভালো লাগবে। তাই নামিয়ে ফেলুন। বেশি ভেঁজে ফেললে নরম নরম ভাবটা থাকবে না, খেতেও ভালো লাগবে না। ব্যস! রান্না হয়ে গেল মজাদার চিংড়ি করলা।

কই মাছের পাতুরি

উপকরণ: কই মাছ ৪টি, ২টি কাঁচা মরিচসহ সরষে বাটা ১ টেবিল-চামচ, নারকেল বাটা ১ টেবিল-চামচ, রসুন ছেচা ১ চা-চামচ, পেঁয়াজ ১ টেবিল-চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ , হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, জিরা বাটা আধা চা-চামচ, কাঁচা মরিচ ৪টি, লাউ পাতা বড় ৪টি, লবণ স্বাদমতো, সরষের তেল প্রয়োজনমতো, সুতা পরিমাণমতো।
প্রণালি: প্রথমে কই মাছ কেটে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। লাউ পাতা ও সুতা ছাড়া তেলসহ সব মসলা একসঙ্গে মাখিয়ে কই মাছ ১৫ মিনিট ম্যারিনেট করে রাখতে হবে। ৪টি বড় লাউ পাতায় একটি করে মাছ ও একটি করে কাঁচা মরিচ দিয়ে ভালো করে মুড়িয়ে সুতা দিয়ে পেঁচিয়ে বেঁধে নিতে হবে। প্রতিটি মাছ বাঁধা হলে সসপ্যানে পানি দিয়ে ভাপে বসান। ১৫ মিনিট পর নামিয়ে সুতা খুলে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন মজাদার কই মাছের পাতুরি।

ঝিঙে আলু পোস্ত

উপকরণ: ঝিঙে (গোল গোল করে কাটা ৩ টি ( আধা কেজি ), আলু (ছোট ছোট করে কাটা) ২ টি, কালিজিরা আধা চা-চামচ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ কুঁচি ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, সরিষার তেল ও ঘি (মেশানো) আধা কাপ, সরিষার তেল ও ঘি (আলু ভাজার জন্য) ২ টেবিল চামচ, পোস্ত বাটা ২ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ চেরা ৫-৬টা।
প্রণালি: কড়াই গরম করে ২ টেবিল চামচ সরিষার তেল ও ঘি দিয়ে আলু বাদামি করে ভেজে নিয়ে এক পাশে রেখে দিন। একই কড়াইয়ে আধা কাপ সরিষার তেল ও ঘি দিয়ে দিন। গরম হলে কালিজিরা দিন। কালিজিরা ফুটে গেলে একে একে আদা, রসুন ও পেঁয়াজ বাটা দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ার পর পোস্ত বাটা দিয়ে দিন। তেল ও মসলা আলাদা হয়ে এলে ঝিঙে দিয়ে দিন। এবার ভাজতে থাকুন। ঢাকনা দেবেন না, কারণ ঝিঙে থেকে প্রচুর পানি বের হবে। পানি মাখা মাখা হয়ে এলে কাঁচা মরিচ ও আলু ভাজাগুলো দিয়ে নেড়ে কিছুক্ষণ পর নামিয়ে ফেলুন। এবার পাত্রে ঢেলে তা পরিবেশন করুন।

x