সাংবাদিক ও ক্রীড়া সংগঠকদের নিয়ে ফজলে করিমের গণসংযোগ

রাউজান প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৫:৫৮ পূর্বাহ্ণ
128

সাংবাদিক, ক্রীড়া সংগঠক ও ক্রীড়াবিদদের নিয়ে গতকাল সারাদিন গণসংযোগ করলেন চট্টগ্রাম-৬ রাউজান আসনের মহাজোট প্রার্থী এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী । তিনি উপজেলার রাউজান ইউনিয়নের মোহাম্মদপুরসহ বিভিন্নস্থানে সাতটি পথসভা করেন। ক্রীড়াবিদদের মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশ তায়কোয়ান্ডো দলের সদস্যরা। তাদের মধ্যে দেশের হয়ে স্বর্ণ জয়ী ক্রীড়াবিদরাও ছিলেন। দেশ বরেণ্য ক্রীড়া সংগঠকরাও ছিলেন গণসংযোগে। একইসাথে সাংবাদিকরাও ভোট চেয়েছেন এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর পক্ষে। এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী গত ১১ ডিসেম্বর থেকে গতকাল পর্যন্ত উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় ১৩০টি পথসভা ও গ্রামীণ জনপদে গণসংযোগ করে নৌকা মার্কায় ভোট চেয়েছেন।
গতকাল সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পথসভা ও গণসংযোগে এলাকার হাজার হাজার মানুষ যোগ দেন। এদিন তার প্রচারণায় যোগ দিয়ে নৌকার জন্য ভোট চান চট্টগ্রামের সিনিয়র সাংবাদিকসহ কয়েকজন ক্রীড়া সংগঠক। এ সময় ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক ও সাংবাদিকরা বলেন- বাংলাদেশের এমপিদের মধ্যে ফজলে করিম চৌধুরী একজন মডেল। তিনি এক সময়ের সন্ত্রাসের জনপদ খ্যাত রাউজানকে পরিণত করেছেন শান্তি ও সমৃদ্ধ উপজেলায়। শিক্ষা, রাস্তাঘাট, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, কৃষির উন্নয়নসহ সবদিক থেকে রাউজান আজ দেশের অন্য সব নির্বাচনী এলাকা থেকে আলাদা। আগামীতে আবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে রাউজান হবে বাংলাদেশের সবচাইতে এগিয়ে যাওয়া একটি উপজেলা। যেখানে মানুষ সুখ আর শান্তিতে জীবনযাপন করবে। এসময় ফজলে করিম চৌধুরীর সাথে ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সহ সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুদ্দিন মো. আলমগীর, জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাহী সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেম, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, সহ সভাপতি মনজুর কাদের মঞ্জু, ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম, দৈনিক পূর্বদেশের চীফ রিপোর্টার রতন কান্তি দেবাশীষ, দেশ টিভির চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান আলমগীর সবুজ, সাংবাদিক আল রহমান, খোরশেদুল আলম শামীম, বাংলাদেশ তায়াকোয়ানডো ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল ইসলাম রানা। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন শ্যামল পালিত, এডভোকেট অপূর্ব ভট্টাচার্য, দীপক দত্ত, চেয়ারম্যান সৈয়দ আবদুর জব্বার সোহেল, সুমন দে, মোহাম্মদ রাশেদ প্রমুখ। এতে ফজলে করিম চৌধুরী বলেন- রাউজানের নারী পুরুষ যারা ভোটার তাদেরকে ৩০ ডিসেম্বর ভোট কেন্দ্রে গিয়ে নিজ নিজ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে হবে। চুড়ান্ত ফলাফল নিয়ে সবার আগে বিজয় উৎসব করার প্রস্তুতি থাকতে হবে।
রাউজানে গত ১০ বছরে ২৭ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন- আওয়ামীলীগ সরকার আবার ক্ষমতা আসলে অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করা হবে। রাউজানের কোনো মানুষ বেকার থাকবে না। সবার জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে। এদিন সকাল নয়টায় ইউনিয়নের প্রথম পথসভায় হরিষখান পাড়ায় ফুলের নৌকা সাজিয়ে মহাজোট প্রার্থীকে অভ্যর্থনা জানান আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ হোসেন কোম্পানি ও যুবলীগ নেতা আজিজ উদ্দিন ইমু। পথসভায় সভাপতিত্ব করেন চেয়ারম্যান বিএম জসিম উদ্দিন হিরু। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ইমরান হোসেন ইমু। এরপর মহাজোট প্রার্থী রশিদাপাড়া এলাকায় পথসভায় বক্তব্য রাখেন। সভাপতিত্ব করেন ইউপি সদস্য আবদুর নবী, এরপর তিনি যান কেউটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে। এরপর যোগ দেন রাউজান বড়ুয়াপাড়া, মোহাম্মদপুর, রমজান আলী হাট সংলগ্ন মাঠ ও মঙ্গলখালীসহ আরো কয়েকটি পথসভায়।
এতে বক্তব্য রাখেন পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, শাহ আলম চৌধুরী, জমির উদ্দিন পারভেজ, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা, আলহাজ নুরুল আমিন, নাছির উদ্দিন, সারজু মোহাম্মদ নাছের, শওকত হোসেন, তছলিম উদ্দিন, ইসহাক ইসলাম, আহসান হাবিব চৌধুরী, তপন দে, হাসান মোহাম্মদ রাসেল, মোবারক আলী, জহির উদ্দিন, শাহাবুদ্দিন মেম্বার, কল্যাণ বড়ুয়া, মাস্টার সাধন বড়ুয়া, জিল্লুর রহমান মাসুদ, অনুপ চক্রবর্তী, মোহাম্মদ আসিফ, এনামুল হক, মোহাম্মদ রিপন, ওসমান গণি, আবদুল করিম, তছলিম উদ্দিন রিপন, ইকবাল হোসেন ইমন, মোহাম্মদ কায়সার প্রমুখ।

x