সরকার মুনতাসির ফ্যান্টাসিতে : ফখরুল

শনিবার , ২৩ নভেম্বর, ২০১৯ at ৩:৫২ পূর্বাহ্ণ
163

আশির দশকের স্বৈরশাসনের প্রেক্ষাপটে সেলিম আল দীনের রচিত নাটক মুনতাসির ফ্যান্টাসির প্রধান চরিত্রের সঙ্গে বর্তমান সরকারের মিল পাচ্ছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির প্রসঙ্গ টেনে গতকাল শুক্রবার এক আলোচনা সভায় তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার সব খেয়ে ফেলতে শুরু করেছে। আমরা খুব সুন্দর একটা নাটক দেখেছিলাম- ‘মুনতাসির ফ্যান্টাসি’। এটা সেলিম আল দীনের লেখা। এখানে যে ক্যারেক্টার, প্রধান যে চরিত্র সে সব কিছু খেয়ে ফেলে। এতো খিদা তার, প্রচণ্ড খিদা। খেতে খেতে চেয়ার-টেবিল সব কিছু খেয়ে ফেলছে, কাগজ-টাগজ সব কিছু খেয়ে ফেলছে। এরা (সরকার) মুনতাসির ফ্যান্টাসির মধ্যে পড়েছে। এখন সব কিছু খেয়ে ফেলছে, এরা ক্যাসিনো খেলো, কী কী খেলো, বড় বড় মেগা প্রজেক্টের সব খেয়ে ফেলছে। এখন সাধারণ মানুষের পেঁয়াজ আর লবণ নিয়ে টানাটানি শুরু করেছে।
ফখরুল বলেন, পরিস্থিতি এতটাই নাজুক হয়ে উঠেছে যে দেশের মানুষ আর পারছে না। আগে তো ধরেন ১০ বছর ধরে বিএনপিকে পিটিয়েছে। এখন সাধারণ মানুষকে পেটানো শুরু করেছে- পেঁয়াজ, লবণ সবকিছু দিয়ে। দাম এমন পর্যায়ে বাড়াচ্ছে, বাড়িয়ে নিয়ে চলেছে যেখানে সাধারণ মানুষের জীবন দুঃসহ হয়ে পড়েছে। সব তো খাওয়া শুরু করেছে। খবর বিডিনিউজের।
খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে নেতাকর্মীদের পাহাড়ের মতো শক্তিশালী ঐক্য গড়ার আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমরা গোটা বাংলাদেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করার কাজ করছি, আমরা দলমত নির্বিশেষে সকলকে ঐক্যবদ্ধ করে ইনশাল্লাহ এমন এক গণআন্দোলন সৃষ্টি করব, যে গণআন্দোলনের মধ্য দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন, গণতন্ত্র মুক্তি পাবে। এটা আমাদের বিশ্বাস। আমরা জানি এটা হবেই।
ফের ক্ষমতায় ফেরার আশা প্রকাশ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আসুন, সমস্ত ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে, বিভ্রান্তি ভুলে গিয়ে, আমাদের নিজেদের মধ্যে কোনো রকম দ্বিধা সৃষ্টি না করে পাহাড়ের মতো শক্তি নিয়ে আমাদেরকে একতাবদ্ধ হয়ে শক্তিশালী হতে হবে। সেই শক্তি নিয়ে আমরা ক্ষমতায় যাবে। আমরা অতীতে পেরেছি। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আমরা গণতন্ত্র উদ্ধার করেছি।
নেতাকর্মীদের হতাশ না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ফখরুল বলেন, দীর্ঘ দশ-বারো বছর ধরে আমরা এই অবস্থার মধ্যে আছি। হতাশ হবার কিছু নেই। নেলসন ম্যান্ডেলা ২৭ বছর জেলে ছিলেন। আমার পাশের দেশের যাদের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক খুব খারাপ, মিয়ানমার, তার নেত্রী সুচি (অং সান সুচি) ২২ বছর ধরে গৃহবন্দি ছিলেন প্রায়। আমাদের নেত্রী দেশনেত্রী আজকে কারাগারে। কারাগারে কিন্তু নিজের জন্য নয়, কারাগারে তিনি আজকে আমাদের জন্য, এদেশের গণতন্ত্রকে রক্ষা করবার জন্য তিনি কারাগারে।
খালেদা জিয়ার জামিন সরকারের কারণে আটকে আছে মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, অন্য সবাইকে জামিন দিয়ে দেন, দেশনেত্রীকে জামিন দেন না একই ধরনের মামলায়। কয়েকজন মন্ত্রী-এমপি আছেন, যারা একই মামলায় জামিনে আছেন। কারণ আপনারা তাকে ভয় পান, ভয় পান বলে তাকে জামিন দিতে চান না। আইনগতভাবে যেটা তার প্রাপ্য সেটা তাকে দিচ্ছেন না।
সুপ্রিম কোর্ট বার অডিটোরিয়ামে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের উদ্যোগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়। স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী হেলালের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, শওকত মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, স্বেচ্ছাসেবক দলের মোস্তাফিজুর রহমান, গোলাম সারোয়ার, ইয়াসীন আলী, নুরুল ইসলাম নয়ন, সাদরেজ জামান, এসএম জিলানী, ফখরুল ইসলাম রবিন, গাজী রেজওয়ান হোসেন রিয়াদ, নজরুল ইসলাম, রফিক হাওলাদার, সাইদুর রহমান সাঈদ, আবদুল কাদের জিলেন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

x