শিপইয়ার্ডে জাহাজ কাটার সময় আগুন

সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ১৬ মে, ২০১৯ at ৩:০১ পূর্বাহ্ণ
172

সীতাকুণ্ডের বার আউলিয়ায় একটি শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে স্ক্র্যাপ জাহাজ কাটার সময় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে দুই শ্রমিক নিহত ও ৫ শ্রমিক অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের মধ্য সোনাইছড়ি বার আউলিয়া সাগর উপকূলে প্রিমিয়াম ট্রেড করপোরেশন নামের ওই জাহাজভাঙা কারখানায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ প্রথমে একজন নিহত হওয়ার কথা জানালেও পরে বিকাল ৪টার পরিত্যক্ত একটি রুম থেকে আরেকটি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এদিকে ইয়ার্ডে অগ্নিকাণ্ডের পর সেখানে সাংবাদিকদের প্রবেশে কঠোরভাবে বাধা দেয় ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ। তাদেরকে ছবি তোলাসহ পেশাগত দায়িত্ব পালনেও অসহযোগিতা করা হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকালে বার আউলিয়ার মোঃ এস.এম নুরুন্নবী মানিকের মালিকানাধীন মাহিনুর শিপ রি-সাইক্লিং শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে আমদানিকৃত কোরিয়ান অয়েল ট্যাংকার কেলানা ফোর নামক স্ক্র্যাপ জাহাজে কাটিংয়ের কাজ করছিলেন শ্রমিকরা। গ্যাস দিয়ে কাটিং করার সময় হঠাৎ আগুন ছড়িয়ে পড়লে কর্মরত ৬ শ্রমিক গুরুতর দগ্ধ হন। তাদেরকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে এক ঘণ্টা পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোঃ রুবেল (২৭) নামে এক শ্রমিক মারা যান। তিনি ফেনীর দেওয়ানপুর এলাকার শেখ আহমদের ছেলে। দগ্ধ অন্য শ্রমিকরা হলেন- নওগাঁর মান্দা পাইকপাড়ার গিয়াস সর্দারের ছেলে মোঃ মাসুদ (১৯), একই এলাকার মোঃ খোকার ছেলে মোঃ সোহেল (২২), রাজশাহী পুটিয়ার হযরতের ছেলে আল আমিন (২৭), নওগাঁ সদরের মোঃ কামরুল (২৮) এবং সীতাকুণ্ডের বার আউলিয়ার মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে মামুনুল ইসলাম মামুন (৩২)।
চমেক হাসপাতালের ৩৬ নম্বর বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সহকারী অধ্যাপক ডা. রফিক উদ্দিন আহমেদ বলেন, দগ্ধ ৫ শ্রমিক বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার মধ্যে আল আমিনের শরীরে ৪৫%, মামুনের শরীরে ৩%, কামরুলের শরীরে ১৫%, সোহেলের শরীরে ২৮%, মাসুদের শরীরে ৬% দগ্ধ হয়েছে। তার মধ্যে আল আমিনের অবস্থা আশংকাজনক। তাকে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন বিভাগে স্থানান্তর করা হয়েছে।
কুমিরা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা আবদুল্লাহ পাশা হারুন বলেন, স্ক্র্যাপ জাহাজটিতে ইঞ্জিন কক্ষের পাশের কক্ষে অঙিঅ্যাসিটিলিন শিখা দিয়ে লোহা কাটছিলেন শ্রমিকেরা। ওই কক্ষে পরিত্যক্ত বর্জ্য তেল ছিল। আগুনের স্ফুলিঙ্গ বর্জ্য তেলে পড়লে আগুন ধরে যায়। মুহূর্তেই পুরো কক্ষে তা ছড়িয়ে পড়ে। এতে দগ্ধ হন ছয়জন। দগ্ধদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে। তারা অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন বলে জানান।
গতকাল দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, যে ইয়ার্ডে দুর্ঘটনা ঘটেছে সেটির বাইরের সাইনবোর্ডে লেখা মাহিনুর শিপ রি-সাইক্লিং ইয়ার্ড। কিন্তু মাহিনুরের অনুমোদন না থাকায় কর্তৃপক্ষ প্রিমিয়াম ট্রেড শিপব্রেকিং ইয়ার্ডের নামে এখানে শিপব্রেকিং করছে। প্রকৃতপক্ষে প্রিমিয়াম ট্রেড শিপইয়ার্ড হচ্ছে একই মালিকের অপর প্রতিষ্ঠান। এভাবে এক ইয়ার্ডের জাহাজ অন্য ইয়ার্ডে কাটার অনুমোদন নেই। তারপরও আইন অমান্য করে জাহাজ কাটা হচ্ছে। এসব অনিয়ম ফাঁস হবার আশংকায় কোন সাংবাদিককে ইয়ার্ডে প্রবেশ করতে দিতে চায়নি ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘসময় পরে ভেতরে প্রবেশের সুযোগ দিলেও দায়িত্ব পালনে অসযোগিতা করা হয়। তবে ইয়ার্ড ম্যানেজার সাব্বির চৌধুরী স্বীকার করেন যে, মাহিনুর শিপব্রেকিং ইয়ার্ডের অনুমোদন নেই। তিনি বলেন, জাহাজের পাইপ কাটার সময় শ্রমিকদের অসাবধানতার কারণেই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এসময় সাংবাদিকরা স্ক্র্যাপ দুর্ঘটনা কবলিত জাহাজটির ছবি তুলতে চাইলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। কোন শ্রমিকের সাথে কথা বলারও সুযোগ দেয়া হয়নি।
সীতাকুণ্ড মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. দেলওয়ার হোসেন জানান, বিকাল ৪টার দিকে ওই ইয়ার্ডের পরিত্যক্ত রুম থেকে মো. হামিদুল (৩০) নামে অপর এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে পোস্টমটেম করার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত শ্রমিকের বাড়ি নওগাঁ জেলার নিন্দাই এলাকায়। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ঘটনাস্থলে ওই শ্রমিক মারা গেলেও ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ তা গোপন রেখেছিল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ইয়ার্ডে কর্মরত কয়েকজন শ্রমিক জানান, ওই সময় ১০/১২জন শ্রমিক থাকার কথা। কিন্তু দগ্ধ হয়েছেন ৬জন। অন্য শ্রমিকদের কোন হদিস নেই। এছাড়া সেপটি ছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করেন শ্রমিকরা। তবে শ্রমিকরা ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মুখ খুলছেন না।
ঘটনার পরপর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন রায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ইয়ার্ডে কাজ করার সময় শ্রমিকদের সেপটির ঘাটতি রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কি কারণে ঘটনাটি সংগঠিত হয়েছে তা তদন্ত করতে উপজেলা সহকারী অফিসার (ভূমি) সৈয়দ মাহবুবুল হককে প্রধান করে ৪সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
সীতাকুণ্ড থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নাছির উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অগ্নিকাণ্ডে দুই শ্রমিক নিহত এবং ৫শ্রমিক দগ্ধ হয়েছেন। এ ব্যাপারে থানায় মামলা করা হবে।

x