লেনদেন ছাড়াই একজনের টাকা অন্যের অ্যাকাউন্টে!

আজাদী প্রতিবেদন

শুক্রবার , ২৩ আগস্ট, ২০১৯ at ৪:২৯ পূর্বাহ্ণ

কোনোরকম লেনদেন ছাড়াই এক ব্যক্তির নিজের বিকাশ অ্যাকাউন্টে রক্ষিত টাকা অন্য অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার হয়। আবার যে অ্যাকাউন্টে টাকাগুলো যায় তার মালিক জানেই না নিজের একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট রয়েছে। লেনদেন তো দূরের কথা। ওই ঘটনায় এক সময় পুলিশ খোয়া যাওয়া টাকা মালিককে ফিরিয়ে দিলেও রহস্যজনক ওই ট্রানজেকশনের কোনো সূত্র খুঁজে পাইনি।
গত দশদিন আগে নগরীর কোতোয়ালী থানা এলাকার একটি গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তার নিজের বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা হারিয়ে যায়। গতকাল টাকাগুলো গাজীপুরের এক ব্যক্তির কাছ থেকে উদ্ধারের পর ওই গার্মেন্টস কর্মকর্তার হাতে তুলে দেয় কোতোয়ালী থানা পুলিশ। এ ব্যাপারে কোতোয়ালী থানার এসআই সজল কান্তি আজাদীকে বলেন, গার্মেন্টস কর্মকর্তা মঈনউদ্দিন নামে এক ব্যক্তি তার বিকাশ অ্যাকাউন্টে ২৫ হাজার টাকা জমা রেখেছিল। একদিন ওই টাকা তিনি বিকাশের দোকানে তুলতে গিয়ে দেখেন তার অ্যাকাউন্টে কোনো টাকা নাই। পরে ওই ব্যক্তি বিকাশ কাস্টমার কেয়ারের সাথে যোগাযোগের পর তাদের পরামর্শে কোতোয়ালী থানায় একটি জিডি করেন।
সজল জানান, পুলিশ খোঁজ করে জানতে পারে, যে অ্যাকাউন্টে টাকা ট্রান্সফার হয়েছে সেটা গাজীপুরের কালীগঞ্জের গিয়াসউদ্দিন নামে এক দিনমজুরের। তবে ওই লোকটি জানেই না যে তার একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট রয়েছে।
পরে তদন্তে পাওয়া যায়- সিমটি গিয়াসউদ্দিনের নামে থাকলে সেটা ব্যবহার করত তার ভাগিনা জাহেদ। গিয়াসউদ্দিনের অজান্তেই সে একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলে রেখেছিল। তাদের সাথে যোগাযোগের পর ওই গার্মেন্টস কর্মকর্তার হারিয়ে যাওয়া টাকা ফিরিয়ে আনার পর তাকে বুঝিয়ে দেয়া হয় বলে জানান এসআই সজল।
তবে ওই কর্মকর্তার টাকা কিভাবে আরেকটি অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার হয়েছে সেটার রহস্য এখনো খুঁজে পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।
সজল বলেন, বিকাশের অটো জেনারেটেডের মাধ্যমে টাকাটি কি অন্য অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার হয়েছিল। কিংবা ওই কর্মকর্তার মেয়ে যখন তার বাবার মোবাইলে বিকাশ অ্যাপ ইনস্টল করছিলেন। তখন ম্যাসেজিং কিংবা অন্য কোনো প্রক্রিয়ায় টাকাগুলো অ্যাকাউন্ট থেকে ট্রান্সফার হয়। নাকি ছেলেটি কোনো প্রতারণার মাধ্যমে টাকাটি হাতিয়ে নিয়েছিল। এটা কোনোভাবে জানা যাচ্ছে না।

x