রেলমন্ত্রী ও রেল মন্ত্রণালয় এর দৃষ্টি আকর্ষণ

শুক্রবার , ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ at ৩:৪১ পূর্বাহ্ণ
38

সরকার মহোদয়ের বলিষ্ঠ পদক্ষেপ গ্রহণ, মাননীয় রেলমন্ত্রী ও রেল মন্ত্রণালয়ের কড়া নির্দেশ, চট্টগ্রামসহ সাড়া দেশে রেলের মূল্যবান জমি উদ্ধারে জোর অভিযান চলছে। আমাদের চট্টগ্রামে ইতিমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। যা এত দিন স্থানীয় প্রভাবশালী ভূমিদস্যুরা রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে রেলের শত শত একর ভূমি দখল করে রেখেছিল। তাদের সাথে রেলের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত ছিলেন। উচ্ছেদের এই বলিষ্ঠ পদক্ষেপের জন্য সরকার, রেলমন্ত্রী, রেলমন্ত্রণালয়কে আন্তরিক ধন্যবাদ।
সেই সাথে রেলের উদ্ধারকৃত মূল্যবান ভূমিতে বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে আয়বর্ধক প্রকল্প গ্রহণ করার জন্য প্রস্তাব করছি। না হয় ভূমিদস্যুরা এই সব মূল্যবান জমি আবারো দখলে নিয়ে নিবে।
আরেকটি প্রস্তাব হলো নিউ মার্কেট মোড় থেকে আইসফ্যাক্টরি রোড হয়ে কদমতলী বাস স্টেশন পিছন পর্যন্ত এই বিশাল কলোনিটা ভেঙে, এখানে রেল মন্ত্রণালয় একা কিংবা কোনো ডেভেলপারের সাথে যৌথভাবে বিশাল বিশাল ফ্ল্যাটবাড়ি মার্কেট নির্মাণ করতে পারে। এই জমির মাঝখানে একটি ভাল মানের স্কুল সাথে একটি সুন্দর মসজিদ নির্মাণ করতে পারে। এই জমি থেকে হাজার কোটি টাকা আয় হবে।
আগ্রাবাদ বাণিজ্যিক এলাকা ও ওয়ার্ল্ড ট্‌্েরড সেন্টার এর সৌন্দর্য হানি করেছে। আগ্রাবাদ ‘ডেবা’ চতুরপাশের সেমিপাকা, কাঁচা ঝুপরি দোকান-ঘরগুলি রেল ও বন্দরের যৌথ মালিকানায়। তারা এসব উচ্ছেদ করে এটাকে একটি সুন্দর পার্কে পরিণত করতে পারে। আর এই পার্ক শেখ রাসেল এর নামে উৎসর্গ করতে হবে। অবশ্য প্রধান সড়ক লাগোয়া উত্তর-দক্ষিণ বর্তমান দোকানগুলির জন্য ছোট আকৃতির মার্কেট নির্মাণ করতে হবে। যা নিচে সম্পূর্ণ খালি থাকবে। সাথে সড়ক থেকে সম্পূর্ণ “ডেবা” দেখা যায়। এই বিষয়ে মতামত চাইলে দিতে প্রস্তুত। এই মার্কেটের আয় রেল ও বন্দর ভাগাভাগি করে নিবে। পার্ক পরিচালনা করবে সিটি কর্পো:। আমার এই প্রস্তাবসমূহ সংশ্লিষ্ট মহল ভেবে দেখলে ভাল হয়।
জসিম উদ্দিন, বন্দর, চট্টগ্রাম।

x