রিয়াল-বায়ার্ন সেমির প্রথম লেগ আজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বুধবার , ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ at ৫:৩২ পূর্বাহ্ণ
47

দু দলের সামনে ট্রেবল জয়ের হাতছানি। তবে সেটা ভিন্ন রকম। জার্মান ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখের সামনে রয়েছে নিজেদের দেশের লিগ চ্যাম্পিয়ন, জার্মান কাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ট্রফি জয়ের লক্ষ্য। প্রথম দুটি এরই মধ্যে জিতে নিয়েছে জার্মান জায়ান্টরা। এখন অপেক্ষা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জয়ের। তাহলে ট্রেবল জয়ের স্বপ্ন পুরন হবে ক্লাবটির। অপরদিকে স্পেনিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ এরই মধ্যে হাতছাড়া করে ফেলেছে নিজেদের দেশের লিগ লা লিগার শিরোপা এবং স্পেনিশ কাপের শিরোপা। প্রশ্ন জাগতে পারে তাহলে রিয়ালের ট্রেবল জয় হচ্ছে কিভাবে। হ্যা, হচ্ছে। আর সেটি হচ্ছে টানা তিনবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ট্রফি জেতা। নিজেদের দেশের দুটি সেরা ট্রফি হাতছাড়া করা রিয়ালের সামনে এখন কেবল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জেতার লক্ষ্য। আর সেটা পারলে টানা তিন মৌসুমে এই ট্রফি জয়ের হ্যাটট্রিক হয়ে যাবে। যা এক রকম ট্রেবল জয়ের মত। তবে এই দুই জায়ান্টের ট্রেবল জয়ের লক্ষ্য পুরণ করতে হলে আরো তিনটি ম্যাচ জিততে হবে। তার আগে দুই লেগের সেমিফাইনাল জিতে জায়গা করে নিতে হবে ফাইনালে। আজ শুরু হচ্ছে সেই ফাইনালের টিকিট জয়ের প্রথম লড়াই। আজ রাত পৌনে একটায় বায়ার্নের মাঠ এলিয়েঞ্জ এরিনায় অনুষ্ঠিত হবে রিয়াল এবং বায়ার্নেল মধ্যকার সেমিফাইনালের প্রথম লেগ। আর আজকের ম্যাচে জিতে ফাইনালের পথে এগিয়ে যেতে চাইবে দু দলই।

যদিও কোয়ার্টার ফাইনালে দু দলের দুরকম অভিজ্ঞতা হয়েছে। বায়ার্ন যেখানে দুই লেগে জিতে সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে সেখানে দ্বিতীয় লেগে হেরেও শেষ চারে জায়গা করে নিয়েছে রিয়াল। তাই বলে সেমিফাইনালে কোন ধরনের ছাড় দেবে দুদল তেমনটি ভাবা হবে বোকামি। ইউরোপের যেকোন টুর্নামেন্টে এই দুদল ২৫ বারের মত মুখোমুখি হবে। আর চাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে সপ্তম বারের মত। যার শেষ তিনটির দুটিতে জিতেছি রিয়াল মাদ্রিদ। আর একটিতে জিতেছে বায়ার্ন মিউনিখ। সব শেষ ২০১২ সালের সেমিফাইনালে রিয়ালকে হারিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছিল বায়ার্ন। তবে এবারে আর ব্যর্থ হতে চায়না জার্মান ক্লাবটি। এরই মধ্যে রিয়ালকে নিয়ে গবেষণা করেছে বায়ার্ন। যেখানে সেমিফাইনালের আগে রিয়াল মাদ্রিদের দুর্বলতা চোখে পড়েছে টমাস মুলারের। বায়ার্ন মিউনিখ অধিনায়ক আত্মবিশ্বাসী রিয়ালের টানা তৃতীয় চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের স্বপ্ন থামাতে পারবে তার দল।

মুলার বলেন, আমরা মাদ্রিদের সামর্থ্য নিয়ে সচেতন। আমাদের অবশ্যই তাদের আক্রমণ করতে হবে। গোল অবশ্যই করতে হবে এবং রিয়ালের দুর্বলতাগুলো কাজে লাগাতে হবে। তারা জুভেন্টাসের কাছে দ্বিতীয় লেগে ৩১ গোলে হেরেছে। এর মানে তারাও ভেঙে পড়ে। আমরা অনেক বেশি আত্মবিশ্বাস নিয়ে ম্যাচটি খেলতে যাচ্ছি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে স্প্যানিশ পরাশক্তিদের বিপক্ষে বায়ার্নের শেষ সুখস্মৃতি ২০১১১২ মৌসুমে। সেমিফাইনালে দুই লেগ মিলিয়ে ৩৩ সমতার পর টাইব্রেকারে ৩১ গোলে জিতে ফাইনালে উঠেছিল জার্মান ক্লাবটি। এরপর টুর্নামেন্টে চারবার দেখা হয়েছে দুই দলের। সবকটিতেই হেরেছে জার্মান চ্যাম্পিয়নরা। সর্বশেষ গতবারের কোয়ার্টারফাইনালে দুই লেগ মিলে ৬৩ গোলে হার। তবে এই অতীতে মনোযোগ দিতে রাজি নন দলের পোলিশ স্ট্রাইকার রবের্ত লেভানদোভস্কি। এটা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমি ফাইনাল। আপনি যদি ভয় নিয়ে খেলেন, আপনার কোনো সম্ভাবনাই নেই। আপনাকে অবশ্যই উপলব্ধি করতে হবে যে আপনি রিয়ালকে হারাতে পারবেন। খুব সহজভাবে নেওয়ার কিছু নেই কিন্তু নির্ভার থাকতে হবে। গতবছর ভিন্ন এক অবস্থা ছিল। আমি পুরো ফিট ছিলাম না এবং ম্যাচে নিজের সেরাটা দিতে পারিনি। ছিটকে যাওয়াটা ছিল আমাদের দুর্ভাগ্য। কে গোল করলো, আমি পরোয়া করি না, আমাদের লক্ষ্য ফাইনালে পৌঁছানো। ২০১৩ সালে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে গোল করা উইঙ্গার আরিয়েন রবেনও লেভানদোভস্কির সাথে একমত। জার্মান একটি দৈনিককে বলেছেন, শুধু লেভানদোভস্কির চোট নয়, গতবছর আমাদের অনেক সমস্যা ছিল, বিশেষ করে মাদ্রিদে। এমন একটা দল নিয়ে আমরা খেলেছিলাম যার তিনচার জন খেলোয়াড় ৫০ শতাংশ সুস্থ ছিল। এরপরও আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করেছিলাম। এ বছর আমরা সবাই সুস্থ আছি।

x