রামুতে মাদক কারবারি মঞ্জুর আটক

রামু প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ১৬ জানুয়ারি, ২০২০ at ৫:৪৯ পূর্বাহ্ণ

রামুর রাজারকুল ইউনিয়নের পাঞ্জাগানা এলাকায় মাদক ব্যবসায়ী মঞ্জুর আলমকে (৩৫) আটক করেছে পুলিশ। গত সোমবার দিনগত রাতে স্থানীয় জনতার সহায়তার একটি খাবারের দোকান থেকে তাকে আটক করা হয়। বহুল আলোচিত এ মাদক ব্যবসায়ী পশ্চিম ঘোনার পাড়া এলাকার মো. নবীর ছেলে। পুলিশ, জানায় তার বিরুদ্ধে সাতটি মামলা রয়েছে। এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘদিন ধরে মঞ্জুর আলম এলাকায় মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন। পার্শ্ববতী সোনাইছড়ি থেকে বাংলা মদ এনে ট্রাকে করে কক্সবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে পাচার করছিলেন তিনি। এছাড়া ইয়াবা কারবারের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।
এলাকার একাধিক সূত্র জানায়, সোনাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত এক ইয়াবা কারবারির সহযোগী হিসাবে কাজ করেন মঞ্জুর। পার্বত্য এলাকার সোনাইছড়ি রুট ব্যবহার করে ইয়াবা এনে বিভিন্ন স্থানে পাচার করতেন তিনি। তবে দীর্ঘদিন পর মঞ্জুর ধরা পড়লেও ওই মেম্বারকে আটক করা যায়নি। সমপ্রতি কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে আইনশৃংখলা বাহিনীর নজরদারি বাড়ানোর কারণে নাইক্ষ্যংছড়ির সোনাইছড়ি রুটটি এখন মাদক পাচারের নিরাপদ রুট হিসাবে ব্যবহার করছে এই সিন্ডিকেট।
বর্তমানে সোনাইছড়ি থেকে রামু খুনিয়া পালংয়ের কালুর দোকান, পাঞ্জেখানাসহ রামুর বিভিন্ন পয়েন্ট এবং নাইক্ষ্যংছড়ির ঈদগড়-বাইশারী পয়েন্ট ব্যবহার করে মাদক পাচারে করে আসছে সিন্ডিকেটটি। এলাকাবাসী আরো জানান, পুলিশের হাতে আটক মঞ্জুর এক সময় রিকশা চালাতেন। কিন্তু মাদকের ব্যবসায় নেমে তিনি যেন রাতারাতি কোটিপতি বনে যান। পুলিশের একটি সূত্র জানায়, সমপ্রতি মঞ্জুর আলমের অনেকগুলো বাংলামদের বড় চালান আটক করা হয়েছে। সর্বশেষ গত ১০ জানুয়ারি ভোরে রামু বাইপাস এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ চোলাই মদসহ একটি চাঁন্দের গাড়ি (জীপ) আটক করে আইনশৃংখলা বাহিনী। এ সময় তার বাড়িতেও অভিযান চালানো হয়। কিন্তু তাকে আটক করা যায়নি। রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল খায়ের জানান, মাদক ব্যবসায়ী মঞ্জুর আলমের বিরুদ্ধে সাতটি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি মাদক মামলা। ওসি জানান, মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স অবস্থান পুলিশের। পর্যায়ক্রমে সবাইকে ধরা হবে। অভিযান চলমান থাকবে।

x