রদ্রিগোর হ্যাটট্রিকে বিধ্বংসী রিয়াল

স্পোর্টস ডেস্ক

শুক্রবার , ৮ নভেম্বর, ২০১৯ at ৫:০৪ পূর্বাহ্ণ
1

ঘরের মাঠে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ অভিষেকটা দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে রাঙালেন রদ্রিগো। হ্যাটট্রিক করার পাশাপাশি সতীর্থের গোলে রাখলেন অবদান। তরুণ সতীর্থের পাশাপাশি রিয়াল মাদ্রিদের অন্যদের পারফরম্যান্সও ছিল নজরকাড়া। দল হিসেবে এমন জ্বলে ওঠার দিনে গালাতাসারাইকে উড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বে ওঠার পথে এগিয়ে গেছে জিনেদিন জিদানের দল। সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে বুধবার রাতে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে ৬-০ গোলে জিতেছে ইউরোপের সফলতম দলটি। জোড়া গোল করেছেন করিম বেনজেমা। আরেক গোলদাতা সের্হিও রামোস। সব প্রতিযোগিতা মিলে এই নিয়ে শেষ তিন ম্যাচে দ্বিতীয়বার পাঁচ বা তার বেশি গোল করল রিয়াল। গত বুধবার লা লিগায় ঘরের মাঠে লেগানেসেকে ৫-০ গোলে হারানোর তিন দিন পর রিয়াল বেতিসের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল মাদ্রিদের দলটি। দুর্দান্ত রদ্রিগোয় ম্যাচের শুরুতেই জোড়া গোল পেয়ে যায় রিয়াল। খানিক বাদে সের্হিও রামোসের সফল স্পট কিকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় ইউরোপের সফলতম দলটি। চতুর্থ মিনিটে বাঁ দিক থেকে মার্সেলোর উঁচু করে বাড়ানো বল বুক দিয়ে নামিয়ে প্রথম টোকায় এক জনকে ফাঁকি দেন রদ্রিগো। এরপর দুই ডিফেন্ডারের মধ্যে দিয়ে নিচু শটে দলকে এগিয়ে নেন তিনি। তিন মিনিট পর তার দ্বিতীয় গোলেও অবদান মার্সেলোর। স্বদেশি লেফট-ব্যাকের বাঁকানো ক্রসে হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন ১৮ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। দ্বাদশ মিনিটে ডি-বঙে টনি ক্রুস ফাউলের শিকার হলে ভিএআরের সাহায্যে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পানেনকা শটে স্কোরলাইন ৩-০ করেন রিয়াল অধিনায়ক। ৪৫তম মিনিটে বেনজেমার গোলে ব্যবধান আরও বাড়ায় রিয়াল। এবার অ্যাসিস্টের ভূমিকায় রদ্রিগো। ডান দিক থেকে তার বাড়ানো বল ছোট ডি-বঙের বাইরে ফাঁকায় পেয়ে অনায়াসে জালে ঠেলে দেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এই নিয়ে টানা ১৫ আসরে গোল করলেন বেনজেমা। প্রতিযোগিতাটির ইতিহাসে মাত্র দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে এই কীর্তি গড়লেন তিনি। এর আগে প্রথম এই কীর্তি গড়েন সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি। দ্বিতীয়ার্ধেও একইভাবে চাপ ধরে রাখা রিয়াল ৬৭তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়াতে পারতো। তবে টনি ক্রুসের হাফ-ভলি ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক। পরের মিনিটে বদলি নামা ইসকো মাঠে নেমেই গোল পেয়ে যাচ্ছিলেন, তার হেড কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান গোলরক্ষক। ৮১তম মিনিটে দ্বিতীয় গোলের দেখা পেয়ে যান বেনজেমা। ডান দিক থেকে দানি কারভাহালের গোলমুখে বাড়ানো বল অনায়াসে জালে ঠেলে দেন নাম্বার নাইন। ম্যাচ শেষের ঠিক আগে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন রদ্রিগো। যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে বেনজেমার ডি-বঙে বাড়ানো বল প্রথম ছোঁয়ায় কাছের পোস্ট দিয়ে জালে পাঠান জানুয়ারিতে ১৯ বছর পূর্ণ করতে যাওয়া এই সেনসেশন। চার ম্যাচে দুই জয় ও এক ড্রয়ে ৭ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে রিয়াল। আরেক ম্যাচে ক্লাব ব্রুজকে ১-০ গোলে হারানো পিএসজি ১২ পয়েন্ট নিয়ে শেষ ষোলোর টিকেট নিশ্চিত করেছে। ২ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে থাকা ব্রুজের শেষ ষোলোর আশা এখনও টিকে আছে। চার নম্বরে থাকা গালাতাসারাইয়ের পয়েন্ট ১। ‘বি’ গ্রুপে অলিম্পিয়াকোসকে ২-০ গোলে হারিয়ে শেষ ষোলো নিশ্চিত করা বায়ার্ন মিউনিখের অর্জন চার ম্যাচে ১২ পয়েন্ট। আরেক ম্যাচে রেড স্টার বেলগ্রেডের মাঠে ৪-০ গোলে জেতা টটেনহ্যাম হটস্পার ৭ পয়েন্ট নিয়ে আছে দ্বিতীয় স্থানে। ‘সি’ গ্রুপে আতালান্টার মাঠে ১-১ ড্র করা ম্যানচেস্টার সিটি ১০ পয়েন্ট নিয়ে আছে শীর্ষে। দিনামো জাগরেব ও শাখতার দোনেৎস্কের মধ্যে গ্রুপের অপর ম্যাচটি ৩-৩ ড্র হয়েছে। দল দুটির অর্জন সমান ৫ পয়েন্ট করে। ১ পয়েন্ট নিয়ে সবার নিচে আতালান্টা। ‘ডি’ গ্রুপে লোকোমোতিভ মস্কোর মাঠে ২-১ গোলে জিতে নকআউট পর্ব নিশ্চিত করেছে জুভেন্টাস। ১০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। বায়ার লেভারকুজেনের মাঠে ২-১ গোলে হেরে যাওয়া আতলেতিকো মাদ্রিদ ৭ পয়েন্ট নিয়ে আছে দ্বিতীয় স্থানে। লেভারকুজেন ও লোকোমোতিভ মস্কোর পয়েন্ট সমান ৩।

x