যুবাদের অর্জন বাংলাদেশকে আরো এক ধাপ নিয়ে গেছে বলে মনে করেন আকরাম-নান্নুরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শনিবার , ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ at ৫:০৭ পূর্বাহ্ণ
18

১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জয়ের পর বাংলাদেশের ক্রিকেট পেয়েছিল নতুন দিশা। আইসিসি ট্রফি জয়ের পর বিশ্বকাপে খেলা এবং পরবর্তীতে টেস্ট মর্যাদা লাভ সবকিছু এসেছিল। বলতে গেলে বাংলাদেশের ক্রিকেট যেন পরের ধাপে হাঁটতে শুরু করেছিল। দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় পর বাংলাদেশের ক্রিকেট পেল সবচাইতে বড় সাফল্যটি। যুবাদের বিশ্বকাপ অর্জনও বাংলাদেশের ক্রিকেটকে আরও একধাপ ওপরে নিয়ে যাবে বলে বিশ্বাস এদেশের সাবেক ক্রিকেটারদের। প্রায় দুই যুগ আগের সেই দিক পাল্টে দেওয়া টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলে থাকা আকরাম খান, মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও নাইমুর রহমান দুর্জয়দের বিশ্বাস এমনই। ১৯৯৭ সালের সেই আইসিসি ট্রফি দিয়ে ওয়ানডে স্ট্যাটাস পেয়েছিল বাংলাদেশ। এর তিন বছর পর ২০০০ সালে পায় টেস্ট মর্যাদা। দেশের ক্রিকেটে যা ছিল সবচেয়ে বড় পাওয়া। এবার যুবাদের হাত ধরে এলো ক্রিকেটের বৈশ্বিক কোনো টুর্নামেন্টে দেশের প্রথম শিরোপা। বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান মনে করেন বিশ্বকাপজয়ী যুব দল থেকে অনেক ভালো ক্রিকেটার বের হবে। যারা বাংলাদেশ দলকে অনেক দিন সার্ভিস দিতে সক্ষম হবে। তিনি বলেন সব অর্জনই কিন্তু একটা দেশকে ওপরে তোলার ভিত হিসেবে কাজে লাগে। ১৯৯৭ সালে যেখন আমরা ওয়ানডে স্ট্যাটাস পেলাম। এরপর ২০০০ সালে টেস্ট স্ট্যাটাস পেলাম। আর এই সময়ে আমরা অনেকগুলো ভালো ক্রিকেটার পেয়েছি। এখন যেমন অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেটাররা এত বড় একটা অর্জন করল। অবশ্যই এটা বাংলাদেশকে ওপরে তোলার জন্য খুব বড় একটা কাজ করবে।
এদিকে ১৯৯৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন দলের আরেক সদস্য মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানান, আকবর আলীদের অর্জনে গর্বিত তারা এবং পুরো দেশ। তিনি বলেন এটা আমাদের জন্য বড় একটি অর্জন। অনেক বড় সম্মান। এটাকে ধরে রাখতে হবে আমাদের। তরুণদের এই জয়ে অনেক গর্ববোধ করছেন তিনি। যেহেতু মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বিসিবির প্রধান নির্বাচক তাই এই ছেলেদের খুব কাছে থেকে দেখা সুযোগ রয়েছে তার। আর সে সুযোগে তিনি মনে করেন এই ছেলেরা এবার দেশকে টেনে নিয়ে যাবে।
বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের অধিনায়ক নাইমুর রহমান দুর্জয় এই তরুণদের সাফল্যকে সর্বস্তরে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজে লাগানোর পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেন এই তরুনরা এখন আমাদের আগামী দিনের সম্পদ। এই গ্রুপ থেকে ভবিষ্যতের জন্য ক্রিকেটার তৈরি করতে হবে আমাদের। তিনি বলেন এই সাফল্যকে কাজে লাগাতে হবে। আমি আশা করছি আন্তর্জাতিক পর্যায়েও এই অভিজ্ঞতা আমাদের সাহায্য করবে। দুর্জয় বলেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল যেন সাফল্য বয়ে এনেছে জাতীর জণ্য সেটা অনেক বড় প্রাপ্তি। এই সাফল্যের সিড়ি বেয়ে আমাদের ক্রিকেটকে নিয়ে যেতে হবে আরো উপরে। নিয়ে যেতে হবে পরের ধাপে। যেখানে হয়তো আমাদের জণ্য অপেক্ষা করছে আরো বড় সাফল্য। সে সাফল্যের প্রত্যাশায় বাংলাদেশের এই তিন সাবেক অধিনায়ক। এই তিনজনই দেশের ক্রিকেট প্রশাসনের সাথে জড়িত। দুই জন বিসিবির পরিচালক আর একজন প্রধান নির্বাচক। কাজেই তাদের বিশ্বাস এই তরুণদের হাত ধরেই বাংলাদেশ একদিন বড়দের বিশ্বকাপও জিতবে।