মোছলেমের বৈধ ঘোষণা বাতিল হলো বাবলুর

৮ প্রার্থীর মধ্যে ৬ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ

শুকলাল দাশ

সোমবার , ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৬:১৪ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী জিয়া উদ্দিন আহমদ বাবলুর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। আ.লীগ, বিএনপি ও জাপাসহ ৮ প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করলেও গতকাল মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া শেষে বাংলাদেশ ব্যাংক এর ক্রেডিট ইনফরমেশনের (সিআইবি) রিপোর্টে ব্যাংক ঋণ জটিলতায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। একই সিআইবি রিপোর্টে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোছলেম উদ্দিন আহমদের নাম থাকলেও যথাযথ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করায় তার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়। এক্ষেত্রে মোছলেম উদ্দিন আহমদ পার পেয়ে গেলেও কপাল পুড়ল জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলুর। যথাযথভাবে মনোনয়ন ফরম পূরণ না করায় গণফ্রন্ট প্রার্থী উত্তম কুমার চৌধুরীর মনোনয়নপত্রও বাতিল করা হয়েছে।
গতকাল ১৫ ডিসেম্বর দুপুরে এমন সিদ্ধান্ত হয় বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও) আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান। এব্যাপারে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসানুজ্জামান আজাদীকে জানান, ‘ঋণ খেলাপির জামিনদার থাকায় জাতীয় পার্টি প্রার্থী জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ও মনোনয়নপত্র অসম্পূর্ণ থাকায় গণফ্রন্ট প্রার্থী উত্তম কুমার চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। আইন অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সাতদিন পূর্বে খেলাপী ঋণ জমা দেয়ার নিয়ম থাকলেও জাপা প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমার দিন ঋণ পরিশোধ করেছেন। যে কারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের আপত্তির প্রেক্ষিতে তাঁর প্রার্থীতা বাতিল করা হয়। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংক সিআইবি প্রতিবেদনে ঋণ খেলাপীর কথা বললেও যে ব্যাংকে ঋণ ছিল সেই ব্যাংক প্রত্যয়ন দিয়েছে ২০০৬ সালেই তিনি ঋণ পরিশোধ করেছেন।’
জানা যায়, রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেড নামে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নেয়া কেএন হারবার কনসোর্টিয়ামের পক্ষে ঋণের জামিনদার ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। গতকাল ১৫ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংকের পাঠানো সিআইবি প্রতিবেদনে এ তথ্য উল্লেখ করে জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর বিরুদ্ধে আপত্তি জানানো হয়। এর আগে গত ১২ডিসেম্বর ঋণ পরিশোধ করে মনোনয়ন পত্র জমা দেন বাবলু। কিন্তু মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সাতদিন পূর্বে ঋণ পরিশোধ না করায় গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ আইন ১৯৭২ এর ১২(১) (এল) অনুযায়ী তিনি নির্বাচনী প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা হারান।
বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. আনিছুর রহমান প্রেরিত এক চিঠিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোছলেম উদ্দিন আহমদকেও ঋণ খেলাপী উল্লেখ করা হয়। আওয়ামী লীগের এই নেতা ইমন এ্যাপারেলের নামে সোনালী ব্যাংক লালদিঘী কর্পোরেট শাখা থেকে ঋণ গ্রহণ করেন। ঋণ খেলাপী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে আপত্তি তুলে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় ঋণ পরিশোধ করেছেন মর্মে সোনালী ব্যাংকের প্রত্যয়ন জমা দেন। যে কারণে আপত্তি থাকলেও আওয়ামী লীগের এই নেতার মনোনয়নপত্র বৈধ হয়।
৮ জন প্রার্থীর মধ্যে ৬জনের মনোনয়নপত্র বৈধ হয়। তাঁরা হলেন-আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও দক্ষিণ জেলা আ.লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ, বিএনপি প্রার্থী ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান, বিএনএফ সভাপতি এসএম আবুল কালাম আজাদ, ন্যাপ নেতা বাপন দাশগুপ্ত, ইসলামিক ফ্রন্টের এস এম ফরিদ উদ্দিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এমদাদুল হক।
গত ১২ ডিসেম্বর ছিল চট্টগ্রাম-৮ আসনের মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ সময়। গতকাল রোববার ছিল মনোনয় নপত্র যাচাই বাছাইয়ের শেষ দিন। আগামী ১৩ জানুয়ারি চট্টগ্রাম-৮আসনের উপনির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও অফিস সূত্রে জানা যায়, যাচাই-বাছাই শেষে ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সুযোগ রয়েছে।
চট্টগ্রাম-৮ আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৯৮৮। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ৯২২ ও নারী ভোটার ২ লাখ ৩৪ হাজার ৭৪ জন।

x