মেয়র মহোদয় ও সিডিএর চেয়ারম্যান মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ

রবিবার , ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৪:২৯ পূর্বাহ্ণ

ইদানিং পত্রিকা হাতে নিলে দেখতে পাই সমগ্র চট্টগ্রাম জুড়ে উন্নয়নের জোয়ার। শত শত প্রকল্প, হাজার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ। জীবদ্দশায় এই সব বিশাল বিশাল কাজের সমাপ্তি দেখে যেতে পারবো কিনা জানি না। অথচ এত বরাদ্দের মাঝে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ “আইস ফ্যাক্টরী” সড়কের উন্নয়ন হয় না। এই সড়কটির গুরুত্ব বিবেচনা করে আমি ৩ বার এই কলামে মেয়র মহোদয়, সিডিএ সাবেক চেয়ারম্যান মহোদয় এবং সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে লিখেছিলাম। কিন্তু সবাই বড় বড় এবং হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নিয়ে ব্যস্ত। আজ আইস ফ্যাক্টরী সড়ক এর উন্নয়ন ও নগরীতে ছোট আকৃতির কিছু ফ্লাই ওভার বিষয়ে লিখবো।
মেয়র মহোদয় ও সিডিএ বর্তমান চেয়ারম্যান মহোদয় এক হয়েছেন। এখানে এবিএম ফজলে করিম চৌং এমপি, চট্টগ্রামের রেলের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও রেল মন্ত্রণালয়, কলেজিয়েট স্কুল কর্তৃপক্ষকে সম্পৃক্ত করে এই সড়কের উন্নয়নে হাত দিতে হবে। পূর্ব-পশ্চিম নিউ মার্কেট মোড় থেকে রেলের জায়গা থেকে অন্তত ২০ ফুট জায়গা নিতে হবে। কলেজিয়েট স্কুল এর পশ্চিম পাশের নার্সারী অংশ থেকে ২০ ফুট জায়গা নিয়ে এই গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রসস্ত করতে হবে। তাহলে কলেজ স্কুল এর সকল ছাত্র/ছাত্রীসহ এই সড়ক ব্যবহারকারী সকলে উপকৃত হবে। বিশেষ করে বন্দরের সাথে শহরের সহজ যোগাযোগ সৃষ্টি হবে।
(২) সময় ও টাকা সাশ্রয় করে, জনগণের দুর্ভোগ কমিয়ে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে, দেওয়ানহাট মোড়ে নির্মিত ফ্লাইওভার এর আদলে ছোট ছোট ফ্লাইওভার নির্মাণ করতে হবে। চৌমুহনী, বাদামতলী, বারিকবিল্ডিং মোড়ে ছোট আকৃতির সরাসরি ফ্লাইওভার নির্মাণ করতে হবে। পোর্ট কানেকটিং মোড় সেভেনস্টার হোটেলের সামনে থেকে ২টি লাইন ১টি সোজা বন্দরে ঢুকবে, আরেকটি ডানে কাস্টমের দিকে চলে যাবে। ৪ নং গেইট থেকে একটি বন্দর গোল চত্বর হয়ে বন্দরের ভবন সামনের গেইটে নামবে। ক্রসিং এবং ফ্রিপোর্ট এর সামনে ছোট আকৃতির সরাসরি ফ্লাইওভার নির্মাণ করতে হবে। এ থেকে সরকারের হাজার হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় হবে। নগরবাসী উপকৃত হবে। অন্তত পরীক্ষামূলক হলেও এই প্রকল্প গ্রহণ করা হোক। পরে না হয় অন্য চিন্তা।
জসিম উদ্দিন, বন্দর, চট্টগ্রাম।

x