মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর মিশন নিয়ে কাজ করছেন লায়ন সদস্যরা

লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং মেট্রোপলিটনের অনুষ্ঠানে গভর্নর কামরুন মালেক

আজাদী প্রতিবেদন

রবিবার , ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ at ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ
8

লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক্ট ৩১৫বি৪ এর গভর্নর লায়ন কামরুন মালেক বলেছেন, মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর মিশন বাস্তবায়নে লায়ন সদস্যরা যুগে যুগে কাজ করে যাচ্ছেন। মানুষের পাশে থাকার এই মিশনই লায়ন্স ক্লাবকে বিশ্বে সবচেয়ে বড় সেবা সংগঠনের মর্যাদা দিয়েছে। গত একশ’ বছরেরও বেশি সময় ধরে লায়ন্স ক্লাবের সদস্যরা এই মর্যাদা ধরে রেখেছেন। লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং মেট্রোপলিটনের সদস্যরাও এক্ষেত্রে নিজেদের চিত্ত ও বিত্ত দিয়ে ভূমিকা রেখে চলেছেন।
লায়ন্স গভর্নর কামরুন মালেক বলেন, পৃথিবীতে মানুষের সেবার চেয়ে বড় কিছু নেই। মানুষ যে মানুষের জন্য সেই সত্যটিই লায়ন্স ক্লাবের সদস্যরা সমাজকে বুঝিয়েছেন। সমাজকে মানুষের বাসযোগ্য রাখার ক্ষেত্রে কাজ করে চলেছেন।
গতকাল নগরীর জামালখানস্থ সিনিয়র্স ক্লাবের হলরুমে লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং মেট্রোপলিটনের মাসিক সভা ও ক্লাব ভিজিট অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন। ক্লাব প্রেসিডেন্ট লায়ন হাসান আকবরের সভাপতিত্বে ক্লাব সেক্রেটারি লায়ন এম ফজলে করিম লিটনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রথম ভাইস গভর্নর লায়ন ডা. সুকান্ত ভট্টাচার্য, সেকেন্ড ভাইস গভর্নর লায়ন আল সাদাত দোভাষ, পিডিজি লায়ন এম এ মালেক, সাবেক ভাইস গভর্নর লায়ন এস এম ফারুক, কেবিনেট ট্রেজারার লায়ন আশরাফুল আলম আরজু, জিএমটি ডিস্ট্রিক্ট কো-অর্ডিনেটর লায়ন জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র গভর্নর এডভাইজার এসএম আবু তৈয়ব, সিনিয়র গভর্নর এডভাইজার মাহবুব খান, আরসি হেডকোয়ার্টার জাহাঙ্গীর মিঞা, রিজিয়ন চেয়ারপার্সন লায়ন এসএম আবদুল আজিজ, জোন চেয়ারপার্সন লায়ন একেএমএ মুকিত, লায়ন মোরশেদুল হক চৌধুরী, লায়ন বিজয় শেখর দাশ, লায়ন পাপন দাশগুপ্ত, লায়ন কাঞ্চন মল্লিক, লায়ন মিজানুর রহমান রুবেল, লায়ন মোজাম্মেল হোসেন চৌধুরী, লায়ন ফাহিম উদ্দীন চৌধুরী, লায়ন আওরঙ্গজেব, লায়ন সৈয়দ জালাল আহমদ রুম্মান, লায়ন সামি আহমেদ, লায়ন আবদুল মতিন মহি, লায়ন আরিফুল ইসলাম চৌধুরী, লায়ন কাজী নসরুল্লাহ খান, লায়ন আবিদ, লায়ন আবদুস সালাম, লায়ন হাসান মুরাদ, লায়ন মোহাম্মদ নুরুল আজাদ, লায়ন আকলিমা আকতার,লায়ন ফেরদৌসী বেগম ফিলি, লায়ন মাহমুদা করিম প্রমুখ।
নিজের কল ‘সার্ভ ফর স্মাইল বা হাসির তরে সেবা’র কথা উল্লেখ করে লায়ন গভর্নর কামরুন মালেক বলেন, এই হাসিই হচ্ছে লায়নিজম। এই হাসি ফোটাতে আমরা লায়নিজমের পতাকা উড়াই। তিনি সমাজের সর্বস্তরের মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য আরো বেশি বেশি সার্ভিস অ্যাক্টিভিটিজ করার জন্য লায়ন সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ফার্স্ট ভাইস গভর্নর ডা. সুকান্ত ভট্টাচার্য বলেন, সমাজকে বাসযোগ্য করতে আমাদের উদ্যোগের কমতি নেই। আমরা শুধু নিজেদের জন্য নয়, সমাজের সর্বস্তরের মানুষের জন্যও কাজ করি। আমাদের সামর্থ সীমিত। তবুও এই সীমিত সামর্থ নিয়ে আমরা অনেক হাসি এবং আনন্দ মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করি। আমাদের এই চেষ্টাই লায়নিজমকে বিশ্বের আনাচে কানাচে প্রতিষ্ঠা করেছে।
সেকেন্ড ভাইস গভর্নর লায়ন আল সাদাত দোভাষ বলেন, চট্টগ্রামে আমাদের শত সহস্র লায়ন সদস্য কাজ করছেন। সমাজের কোথাও না কোথাও প্রতিদিনই লায়ন সদস্যদের কার্যক্রম চলছে। এই কার্যক্রম আমাদেরকে অন্য রকম তৃপ্তি দেয়।
সাবেক গভর্নর, দৈনিক আজাদী সম্পাদক লায়ন এম এ মালেক বলেন, মানুষের পাশে থাকার মতো শান্তি দুনিয়াতে আর কিছুতেই নেই। মানুষের জন্য কিছু করার তৃপ্তিটাই অন্যরকম। এই ভালোলাগাই লায়নিজমকে পৃথিবীতে অমরত্ব দিয়েছে। মানুষের প্রতি এই ভালোবাসাই লায়নিজমকে আরো বহু শত বছর মানুষের মাঝে টিকিয়ে রাখবে। তিনি চট্টগ্রামের লায়ন সদস্যদের আরো বহুমুখী সেবা কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে দুস্থ এক নারীর হাতে একটি সেলাই মেশিন তুলে দেয়া হয়।

x