ভুটানের কাছে হেরে হোঁচট খেল বাংলাদেশের স্বর্ণ জয়ের মিশন

ক্রীড়া প্রতিবেদক

মঙ্গলবার , ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৫:২১ পূর্বাহ্ণ
25

ভুটান দলটি বাংলাদেশের ফুটবলের জন্য যেন অভিশপ্ত এক নাম। এই ভুটানের কাছে ৩-০ গোলে হেরে আন্তর্জাতিক ফুটবলে এক রকম নির্বাসিত হয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ দল। আবার অবশ্য সে ভুটানকে হারিয়ে আলোয় ফিরেছিল বাংলাদেশের ফুটবল। কিন্তু বেশি সময় লাগেনি। আবার সে ভুটান লজ্জায় পুড়তে হলো বাংলাদেশের ফুটবলকে। প্রায় এক দশক পর আবার যখন দক্ষিণ এশিয়ার অলিম্পিক খ্যাত এস এ গেমসের ফুটবলে স্বর্ণ পদক জয়ের লক্ষ্য নিয়ে নেপাল গেল জামাল ভুয়ার দল ঠিক তখনই আরো একবার হোঁচট খেতে হলো। তাও আবার সেই ভুটানের সামনে। যে ভুটান বাংলাদেশের ফুটবলে বড় একটি ক্ষতের নাম। ঠান্ডা আবহাওয়া, সমুদ্র পিষ্ট থেকে উচ্চতা সব মিলিয়ে কঠিন পরিস্থিতিতে থাকলেও শেষ পর্যন্ত সে সব পরিস্থিতিকে জয় করে ম্যাচের আগে প্রস্তুত ও আত্মবিশ্বাসে ভরপুর এক দলের চিত্র ফুটিয়ে তুলেছিলেন বাংলাদেশ দলের কোচ জেমি ডে। কিন্তু মাঠের লড়াইয়ে দেখা মিলল উল্টো চিত্রটা। সাদামাটা পারফরম্যান্সে ভুটানের কাছে হেরে দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে ছেলেদের ফুটবলে যাত্রা শুরু করল বাংলাদেশ। কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে গতকাল সোমবার ভুটানের কাছে ১-০ গোলে হেরেছে জেমি ডের দল। আর এই হারের ফলে এস এ গেমস ফুটবলে বাংলাদেশের স্বর্ণ জয়ের লক্ষ্যটা যেন শুরুতেই হোঁচট খেল। রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতির এই প্রতিযোগিতায় আজ মঙ্গলবার মালদ্বীপের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।
দেশের মাটিতে দুটি প্রীতি ম্যাচে ভুটানকে এক রকম উড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ। অথচ গতকাল নেপালের দশরথ স্টেডিয়ামে দেখা গেলনা সে বাংলাদেশকে। যে বল দখলে রেখে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার পরিকল্পনা এঠেছিল কোচ জেমি ডে, সে পরিকল্পনার ছিটেফোটাও মাঠে দেখাতে পারেনি বাংলাদেশ দল। গোলশূন্য প্রথমার্ধে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার ভালো সুযোগ বলতে পেয়েছিল মাত্র একটি। তাও সেটি খেলার ৩৮ মিনিটে। বাকি সময়টা কেবলই এলোমেলো ফুটবল খেলেছে বাংলাদেশের ফুটবলাররা। খেলার ৩৮ মিনিটে মোহাম্মদ ইব্রাহিমের ক্রসে সাদউদ্দিন ঠিকঠাক হেড নিতে পারলে হয়তো গোল পেয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের তরুণ এই স্ট্রাইকার সেটি করতে পারেনি।
প্রথমার্ধের মত দ্বিতীয়ার্ধেও হতাশ করে বাংলাদেশের খেলা। ফলে খেলার ৬৫ মিনিটে গোল হজম করতে হয় বাংলাদেশকে। ডিফেন্ডারের ভুলে বল পেয়ে চেনচো গাইয়েলতসেন বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠেন। গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো পোস্ট ছেড়ে বেরিয়ে এসেও আটকাতে পারেননি ভুটানের এই স্ট্রাইকারকে। শেষ পর্যন্ত ভুটানের এই ফরোয়ার্ড নিখুঁত প্লেসিং শটে বল পাঠিয়ে দেন জালে। এগিয়ে যায় ভুটান। কিন‘ কে জানতো এই গোলটিই শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জয়ের নিয়ামক হয়ে যাবে ভুটানের জন্য। আর বাংলাদেশের জন্য হবে হারের একমাত্র কারন। ম্যাচের বাকি সময়ে আর কোন গোল করতে পারেনি বাংলাদেশ। এমনকি গোলের তেমন সুযোগও সৃষ্টি করতে পারেনি। ফলে হার দিয়ে এস এ গেমসের ফুটবলে শুরুটা করতে হলো বাংলাদেশকে।
১৯৯৯ সালে প্রথম এই ইভেন্টে সেরা হওয়া বাংলাদেশ ২০১০ সালে দ্বিতীয় ও সবশেষ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। গতবার পেয়েছিল ব্রোঞ্জ। এবার সোনার পদক ফিরে পাওয়ার মিশনের শুরুতেই ধাক্কা খেল দল। ঢাকায় গত নভেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের আগে ভুটানের বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ। দুই ম্যাচে ৪-১ ও ২-০ ব্যবধানে জিতেছিল ডের দল। তবে অনূর্ধ্ব-২৩ দল নিয়ে হওয়া এসএ গেমসে ভুটানের কাছে ধরাশায়ী জীবন-জামালরা। ম্যাচ শেষে সাদউদ্দিনের সুযোগ নষ্ট করা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ কোচ। প্রশংসা করেন ভুটানের খেলারও। তিনি বলেন ভুটান ছিল এই ম্যাচে জয়ের যোগ্য। তারা সম্ভবত আমাদের সমান সুযোগ তৈরি করেছে এবং বলের মুভমেন্টে আমাদের চেয়ে ভালো ছিল। আমরা খুবই সাদামাটা এবং মন’র ছিলাম। সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রেও আমরা ভালো ছিলাম না। প্রথমার্ধে সাদের গোল করা উচিত ছিল। তিনি বলেন আমরা জানি, আমরা আরও ভালো খেলতে পারি। পরের তিন ম্যাচে আমাদের খেলার মান বাড়ানো দরকার। যদি আমরা এভাবে খেলি, তাহলে ফাইনালে খেলার কোনো সুযোগ নেই।

x