ভারী বৃষ্টিপাতে দুর্যোগে মুম্বাই

দেয়াল ধসে নিহত ২৮

আজাদী অনলাইন

মঙ্গলবার , ২ জুলাই, ২০১৯ at ৮:১১ অপরাহ্ণ
72

ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানী মুম্বাইসহ কয়েকটি জায়গায় বৃষ্টিতে দেয়াল ধসের ঘটনায় ২৮ জন নিহত হয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার (২ জুলাই) ভোররাতে ভারী বৃষ্টিপাতের সময় এসব দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স, এনডিটিভি।

মুম্বাইয়ে দ্বিতীয় দিনের মতো দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে এ দিন ট্রেন ও বিমান চলাচলে বিঘ্ন ঘটে, সড়কপথ পানিতে তলিয়ে যায়। বিডিনিউজ

এ পরিস্থিতিতে কর্তৃপক্ষগুলো মুম্বাইয়ের সরকারি দপ্তর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে তবে শহরের মার্কেটগুলো খোলা আছে।

মঙ্গলবার ভোররাতে মুম্বাইয়ের মালাড ইস্টে পাহাড়ি ঢালের কয়েকটি খুপড়ি ঘরের উপর একটি সীমানা দেয়াল ধসে পড়ে ১৯ জন নিহত হন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

এনডিটিভি জানিয়েছে, উদ্ধার কাজ এখনো চলছে। এ পর্যন্ত দুই ডজনেরও বেশি লোককে উদ্ধার করা হয়েছে।

মুম্বাইয়ের ৪২ কিলোমিটার উত্তরে থানে শহরের কল্যাণ এলাকায় একটি স্কুলের দেয়াল ধসে পাশের দু’টি বাড়ির উপর পড়লে তিন বছরের এক শিশুসহ তিনজন নিহত হন।

মুম্বাইয়ের পশ্চিমে পুনে শহরে একটি দেয়াল ধসে ছয়জন নিহত হন বলে দমকলের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এর আগে শনিবার একই ধরনের আরেকটি ঘটনায় শহরটিতে ১৫ জন নিহত হয়েছিল।

মুম্বাইয়ের কয়েকটি এলাকায় ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৩০০ মিলিমিটারেরও বেশি বৃষ্টিপাত হয়। এতে সড়ক, রেলপথ জলমগ্ন হয়ে যায়। পানিতে রেলপথ ডুবে যাওয়ার পর বেশ কয়েকটি আন্তঃনগর ও দূরপাল্লার ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়েছে।

বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় পূর্বসতর্কতা হিসেবে মঙ্গলবার মুম্বাইয়ে সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে মহারাষ্ট্র সরকার। শহরটির বাসিন্দাদের বাসা থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে তারা।

এক টুইটে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দেভেন্দ্র ফাডনাভিসের দপ্তর বলেছে, ‘আবহাওয়া দপ্তর আজও (মঙ্গলবার) ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেয়ায় জরুরি প্রয়োজন ছাড়া লোকজনকে বাড়ির বাইরে না যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।’

মঙ্গলবার মুম্বাইয়ে শুধু জরুরি সার্ভিসগুলো চালু থাকবে বলে এক ঘোষণায় জানিয়েছে রাজ্য সরকার।

মঙ্গলবারও শহরটির সব স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকবে বলে রাতে এক নির্দেশে জানিয়েছেন মিউনিসিপ্যাল কমিশনার।

সোমবার রাতে মুম্বাই বিমানবন্দরে অবতরণ করার সময় স্পাইসজেট এয়ারলাইনের একটি উড়োজাহাজ নিয়ন্ত্রণ হারায়। তবে এতে জয়পুর থেকে আসা উড়োজাহাজটির কোনো আরোহী আঘাত পাননি। যাত্রীদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

দুর্ঘটনা এড়াতে বিমানবন্দরটির মূল রানওয়ে বন্ধ রাখা হয়েছে। দ্বিতীয় আরেকটি রানওয়ে থেকে বিমান ওঠা-নামা অব্যাহত থাকলেও এতে সময় বেশি লাগছে। এখান থেকে ৫৪টি ফ্লাইটকে বেঙ্গালুরু ও আহমেদাবাদে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

x