ভাতের অভাব অসহনীয়

বৃহস্পতিবার , ৩০ আগস্ট, ২০১৮ at ৫:৪৯ পূর্বাহ্ণ
97

পত্রিকায় জানা যায়, এশিয়ার অন্যতম শীর্ষ অর্থনীতির দেশ দিল্লীতে ৮ দিনের অনাহারে দুইচার আট বৎসর বয়সী তিন ভাইবোনের মৃত্যু হয়। পিলে চমকানো হৃদয় বিদারক নির্মম অবিশ্বাস্য সংবাদ, ময়না তদন্তে চিকিৎসকেরা অনাহারে মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেন। টানা আট দিন কিছু না খেয়ে অসুস্থ হলে মা তাদের হাসপাতালে নিয়ে যান। কারো শরীরে এক ফোটা চর্বি ছিল নাপাকস্থলী খালি ছিল। একমাত্র অবলম্বন রিকশা চুরি যাবার পর শিশুদের বাবা বন্ধুর বাসায় তাদের রেখে পালিয়ে যায়। পত্রিকায় জানা যায়, লাল বাহাদুর শাস্ত্রী মেডিকেল কলেজের ডাক্তার বলেন, এ জাতীয় ঘটনা তারা জীবনে দেখেন নি। আমার মতে দিল্লীর আল আদমী পার্টির শাসক এর জন্য দায়ী। ভুক্তভোগী ছাড়া খাবারের অভাবের নির্মমতা অন্য কারো বুঝার কথা নয়। ১৯৪৩ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আমাদের দেশে প্রচণ্ড দুর্ভিক্ষ চলছিল। আমার ৭ বৎসর বয়সে ভাত ভাগ করে ফেন দিয়ে খাওয়ার কথা এখনও মনে পড়ে। গম আটা তখন ছিল না। গ্রামের স্কুলে একদল গুর্খা সৈন্য এসে কিছুদিন ছিল। ১৯৪৫ সালের ৬ এবং ৯ আগস্ট জাপানের হিরোসিমা ও নাগাসাকিতে এটম বোমা নিক্ষেপ করে আমেরিকা। তারপরে ১৯৩৯ ইং এ আরম্ভ হওয়া বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। এরপরেও ১৯৫০ সালে এবং ১৯৭৪ সালে আমাদের দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়। অন্ন, বস্ত্র, স্বাস্থ্য, শিক্ষা আবাসন এই মৌলিক চাহিদার মধ্যে অন্নটাই প্রধান। আমাদের বর্তমান সরকার কৃষিতে প্রাধান্য দিয়ে চাল, মাছ, মাংস, ডিম, দুধ এর উৎপাদন বাড়িয়েছেন। দেশে দুর্ভিক্ষের সম্ভাবনা দূর হয়েছে। স্বাধীনতার সময় দেশে দরিদ্র ছিল ৭০% আর এখন ২২.%। যাদের মাসিক আয় ১৪৮ টাকার কম তারা হত দরিদ্র। আমাদের দেশে হত দরিদ্রের হার ১২.১ শতাংশ। আন্তর্জাতিক হার ১৩.৮ শতাংশ। আমাদের অর্থমন্ত্রী বলেছেন, ২০২৪ সালের পর দেশে দরিদ্র থাকবে না। আমরা এটাই চাই। ভাতের অভাবে যেন আর কারো মৃত্যু না হয়।

মুক্তিযোদ্ধা প্রকৌশলী জয়কেতু বড়ুয়া, হালিশহর কে ব্লক।

x