ভরতনাট্যমে ঈশ্বরের বন্দনা

শুক্রবার , ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৬:১৯ পূর্বাহ্ণ

ঋজু দেহভঙ্গির বিক্ষিপ্ত চলনে, বিচিত্র মুদ্রায় বন্দিত হলেন সুদর্শন, মহিমান্বিত প্রভু। স্রষ্টা হতে বিচ্ছিন্নতায় যন্ত্রনাদগ্ধ নায়িকা নানা মুদ্রায় ফুটিয়ে তুললেন তার আকুতি। বিঘ্ন অপসারণে নানা মুদ্রায় আরাধিত হলেন দেবতা শ্রীগণপতি। নৃত্যের মুদ্রায় চিত্রিত হলো বৃন্দাবনে রাধা-কৃষ্ণের অমর প্রেমলীলা, সবশেষে শুদ্ধ-সুন্দর ও মঙ্গল কামনায় প্রকৃষ্টতার সাথে আহ্বান জানাল হলো সর্বশক্তিমানকে।
নৃত্য সংগঠন কল্পতরু আয়োজিত ভরতনাট্যম উৎসব ‘রঙ্গার্পনে’ তিন নৃত্যশিল্পী জুয়েইরিয়াহ মৌলি, শাম্মী আকতার, শুদ্ধা শ্রীময়ী দাসে ভরতনাট্যমের আদি ধারার এমন গল্প চিত্রিত করেছেন ছায়ানট মিলনায়তনে। খবর বিডিনিউজের।
গত সোমবার থেকে শুরু হওয়া তিনদিনের এই নৃত্য উৎসব ‘রঙ্গার্পন’ শেষ হয় গত বুধবার। বুধবার সন্ধ্যায় জুয়েইরিয়াহ মৌলি তার পরিবেশনা শুরু করেন ‘পুষ্পাঞ্জলীর’ মাধ্যমে। রাগ আরাভি ও তাল আদিতে জগতের সব বাধা বিপত্তি কাটিয়ে শুভ কর্মে সফলতা প্রার্থনায় দেবতা শ্রীগণপতির বন্দনা উপস্থাপিত হয় এই নৃত্যে। পরে রাগ আরাভি আর তাল মিশ্র চাপুতে তিনি পরিবেশন করেন ভরতনাট্যমের অন্যতম প্রাচীন ধারা ‘আলারিপু’। এতে বন্দিত হন দেবতা মুরুগা।
দেবরাজ নটরাজের বিচ্ছেদ বেদনায় কাতর ক্রোধান্বিত নায়িকা ‘ভার্নামে’ ফুটিয়ে তুলেন তার প্রতীক্ষার কথা। ভার্নামের রাগ মালিকা, তাল আদি। মহাভারতের শ্রীকৃষ্ণের বাল্যকাল ফুটে উঠল ভরতনাট্যম ‘দেভার্নামায়’। এর রাগ বৃন্দাবানী, তাল আদি।
বুধবার রাতে মৌলি তার পরিবেশনা শেষ করেন ‘ভজন’ এর মাধ্যমে। বৃন্দাবনে গোপীদের সঙ্গে কৃষ্ণের গোপন অভিসার, রাধার অভিমান ফুটে উঠে এ নৃত্যে। এর রাগ হংসধ্বনি, তাল আদি। মৌলির পরিবেশনায় নৃত্য পরিচালনায় ছিলেন কীর্তি রামগোপাল, ব্রাঘা বেসেল। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শাম্মী আকতার তার পরিবেশনা শুরু করেন ‘তোড়িয়া মাঙ্গালাম’ এর মাধ্যমে। রাগ মালিকা, তাল মালিকায় এই মাঙ্গলামে সর্বশক্তিমানকে প্রকৃষ্টতার সাথে আহ্বান জানানো হয়। এতে তিন জগতের সুদর্শন এবং মহিমান্বিত প্রভু রামের প্রশংসা করা হয়।

x