বেগম রোকেয়ার সংগ্রামের পথ ধরে এগিয়ে যেতে হবে

নারীমুক্তি কেন্দ্রের সভায় বক্তারা

বুধবার , ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৯:৩৯ পূর্বাহ্ণ

 

নারী আন্দোলনের পথিকৃত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের ১৩৯তম জন্ম ও ৮৭তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নারীমুক্তি কেন্দ্র জেলা শাখার উদ্যোগে এক সভা গত ৯ ডিসেম্বর এনায়েত বাজার মহিলা কলেজে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বক্তারা বলেন, নারী সমাজের প্রকৃত মুক্তি আনার লক্ষ্যে আজীবন লড়াই করে গেছেন মহীয়সী নারী বেগম রোকেয়া। তিনি নারীদের অবরোধবাসের বিরুদ্ধে মুক্তির উপায় খুঁজতে মরিয়া হয়েছেন; অন্যতম হাতিয়ার করেছিলেন নারীশিক্ষার বিস্তার। নারীশিক্ষা বিস্তারের জন্য অপরিমেয় লাঞ্ছনা, গঞ্জনা, অপমান মুখ বুজে সহ্য করার বিরামহীন সংগ্রামের পথে রোকেয়া নারীমুক্তির যে সূচনা করেছিলেন আজ নারীমুক্তি আন্দোলনে তা পাথেয়, আলোকবর্তিকা। বক্তারা বেগম রোকেয়ার সংগ্রামের পথ ধরে সকল নারীদের বিভিন্ন সংকট মোকাবেলায় এগিয়ে আসার আহবান জানান।

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক ফেরদৌস আরা আলিম, চট্টগ্রাম সরকারী মহিলা কলেজের শিক্ষক প্রফেসর সালমা রহমান, এনায়েত বাজার মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ তহুরিন সবুর, চবি অধ্যাপক সালমা বিনতে শফি, নারীমুক্তি কেন্দ্রের জেলা সভাপতি আসমা আক্তার ও জেলা কমিটির সদস্য জুলেখা আক্তার প্রমুখ।

বক্তারা আরো বলেন, বেগম রোকেয়ার এই আহ্বান নারী সমাজকে জাগিয়ে তোলার জন্য আজও অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক এ কারণে, সামাজিক নির্যাতনের খড়গ আজও ঝুলছে তাদের মাথায়। একদিকে অর্থনৈতিক শোষণ বৈষম্য তো আছেই, অন্যদিকে পুরুষতান্ত্রিক সমাজ মানসিকতার আক্রমণে নারী আজ শারীরিক মানসিক নানামুখি সহিংসতার শিকার। কাউকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে, কেউ বখাটেদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করছে, কাউকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে, কাউকে এসিডে ঝলসে দেয়া হয়েছে,কাউকে আগুনে পুড়ে মারা হয়েছে। এইসব ঘটনাগুলোর অধিকাংশরই সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার হচ্ছে না, ক্ষমতাসীনদের আশ্রয়প্রশ্রয়ে সন্ত্রাসীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। অপরাধীরা রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা লাভ করছে। সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে সমাজ। এ ধরনের একটি সমাজ গড়ে উঠার পেছনের ইতিহাসটা অত্যন্ত করুণ।

এই দুঃসময়ে মহীয়সী নারী বেগম রোকেয়ার সংগ্রামের পথ ধরে আমাদের সকল বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। শেষে ‘বই পড়া’ প্রতিযোগিতায় নয় জন বিজয়ীকে পুরস্কৃত করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x