বি চি ত্র প্রা ণী জ গ ত

অর্ক রায় সেতু

বুধবার , ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ at ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ
24

পানির মতো স্বচ্ছ ব্যাঙ
বন্ধুরা ব্যাঙের নাম নিশ্চয়ই তোমরা শুনেছো। ছোট বেলায় বইয়ের পাতায় গ্রামের ঝোপঝাড় ছোটখাটো ডোবার কাছাকাছি গেলে ব্যঙেদের রাজত্ব মানুষের কাছে ছবির মতো ভেসে উঠে। ব্যাঙেরা কিন্তু উভচর প্রাণী। পানিতে ও জঙ্গলে এরা কিন্তু দিব্যি বেঁচে থাকতে পারে। পৃথিবীতে ব্যাঙেদের একাধিক প্রজাতি রয়েছে। যখন চোখের সামনে একধরনের বিচিত্র ব্যাঙ ছোটাছুটি করবে কিংবা আমরা ছবির স্বচ্ছ ব্যাঙ নিয়ে পড়াশোনা করবো হাজার গুণ প্রশ্ন আমাদের নতুন ভাবে ভাবতে শেখাবে।
এবার তাহলে জেনে নিই স্বচ্ছ ব্যাঙের কথা। এদের শরীরের উপরটা উজ্বল সবুজ বর্ণের কিন্তু পেটটা পানির মতো স্বচ্ছ হওয়ায় যার দরুন ওদের শরীরের ভেতরের কার্যকলাপ খালি চোখে দেখা যায়। যা যেকোনো মানুষকে হঠাৎ তাক লাগিয়ে দেয়। হৃদপিন্ডের কার্যকলাপ থেকে শুরু করে রক্ত সঞ্চালন এমনকি পেটের ভেতরে কি ঘটছে সব স্পষ্ট দেখতে পাওয়া যায় কোনো রকম কাটাছেঁড়া ছাড়াই। এমনি ওদের খাবারের দৃশ্যও মানুষের চোখে পড়ে।
এই গ্লাস ফ্রগ বা সচ্ছ ব্যাঙ ব্যাঙের আবাসস্থল পানামা, ভেনিজুয়েলা, বলিভিয়া, অ্যামাজন সহ দক্ষিণ মেক্সিকোর বনভূমিতে। একসময় ওরা মহাজাগতিক রেইনফরেস্ট গুলো দাপিয়ে বেড়াত। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে পৃথিবীর ইকোসিস্টেম নষ্ট হয়ে যাওয়ায় গ্লাস ফ্রগ আজ বিলুপ্তির পথে। গ্লাস ফ্রগ লম্বায় ৩ থেকে ৭.৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বড় হয়। পৃথিবীর ব্যাঙের একাধিক প্রজাতির মধ্যে গ্লাস ফ্রগের সৌন্দর্য সবার উপরে। চোখ গুলো কালো। দৈহিক বাকি সব বৈশিষ্ট্য গঠন আকৃতি সাধারণ ব্যাঙের মতোই। বৈজ্ঞানিক নাম: ঈবহঃৎড়ষবহরফধব.