বিয়ের প্রীতিভোজে চিংড়ি না থাকায় তুলকালাম

আনোয়ারা প্রতিনিধি

সোমবার , ১ অক্টোবর, ২০১৮ at ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ
790

আনোয়ারায় বিয়ের প্রীতিভোজে চিংড়ি না থাকায় তুলকালাম কাণ্ড ঘটেছে। এ নিয়ে বর ও কনে পক্ষের বাকবিতণ্ডা হাতাহাতির পর্যায়ে গেলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কনে পক্ষ মেয়ে তুলে দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। তবে আজ সোমবার স্থানীয়ভাবে সালিশী বৈঠক ডাকা হয়েছে। গতকাল বিষয়টি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে লেখালেখির পর এলাকাজুড়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।
স্থানীয় সূত্র জানায়, ১১নং জুইদন্ডী ইউনিয়নের ৮নং খুরুসকুল গ্রামের হাজী বাড়ির আবদুল মোনাফের ছেলে মোহাম্মদ আলমগীরের (৩০) সাথে একই ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী গ্রামের এক ব্যবসায়ীর মেয়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়। ১৮ দিন আগে আকদ অনুষ্ঠানের পর গত বৃহস্পতিবার বটতলীস্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে প্রীতিভোজের আয়োজন করা হয়। আমিরাত প্রবাসী বরের চাওয়াকে প্রাধান্য দিয়ে কনেপক্ষ ৫শ’ বরযাত্রীসহ প্রায় ৮শ’ লোকের প্রীতিভোজের আয়োজন করে। খাবার ম্যানুতে মুরগির রোস্ট ও খোরমাসহ নানা আইটেম রাখে। কিন্তু খাবার টেবিলে চিংড়ি না দেখে বর আলমগীর ক্ষুব্ধ হয়ে কনে পক্ষের লোকজনের সঙ্গে তর্কাতর্কিতে লিপ্ত হন। এক পর্যায়ে হাতাহাতিও হয়। এ সময় খাবার টেবিলে থাকা বরের স্বজন ও বন্ধুবান্ধবরা তাকে নিবৃত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। এ নিয়ে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে আনোয়ারা থানার এসআই জালালউদ্দিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কনে পক্ষ মেয়ে তুলে দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে পুলিশ স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মীমাংসার অনুরোধ জানায়। এসআই জালাল উদ্দিন জানান, বর ও কনে পক্ষ তিনদিনের মধ্যে বিষয়টি সমাধান করবেন বলে জানিয়েছিলেন। সোমবার (আজ) এ ব্যাপারে সালিশী বৈঠক ডাকা হয়েছে বলে খবর পেয়েছি।
জুঁইদণ্ডী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোরশেদুর রহমান চৌধুরী খোকা আজাদীকে জানান, চিংড়ির জন্য এমন গর্হিত কাজ কোনো ভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। সালিশী বৈঠকে বক্তব্য শোনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কনে পক্ষ জানায়, ৬ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দেনমোহরে বিয়ে ঠিক হয়েছিল। সামান্য খাবারের জন্য বরের এমন আচরণে সবার সামনে ছোট হতে হয়েছে। তাই আমরা তাদের হাতে মেয়ে তুলে দিইনি। সোমবার (আজ) সালিশী বৈঠক হবে। আশা করছি সেখানে দু’পক্ষ সম্মানজনক একটি সমাধানে পৌঁছাতে পারব।

x