বিসিবি চাইলে অধিনায়কত্ব ছাড়ার ইঙ্গিত মাশরাফির

ক্রীড়া প্রতিবেদক

মঙ্গলবার , ১৪ জানুয়ারি, ২০২০ at ৫:৪৪ পূর্বাহ্ণ

এখন যেকোন সংবাদ সম্মেলনে আসলেই মাশরাফির জণ্য অবধারিত একটি প্রশ্ন তৈরি থাকে। আর সেটি হচ্ছে কবে অবসর নিচ্ছেন তিনি। কিন্তু মাশরাফি সে প্রশ্নের উত্তরটা সরাসরি দেন না কখনোই। নানা ভাবে বুঝিয়ে দেন তিনি আরো খেলতে চান। তবে এবারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একটা ইঙ্গিত দিয়েছেন। আর তা হচ্ছে অধিনায়কত্ব আর করতে চান না তিনি। গতকাল চট্টগ্রামের কাছে হেরে এবারের বিপিএল শেষ হয়ে গেছে মাশরাফি এবং তার দলের। এমন হারের পর অন্য কোনো অধিনায়ক হলে হয়তো আসতেন না সংবাদ সম্মেলনে । কিন্তু চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে এলিমিনেটর ম্যাচে ঢাকা প্লাটুনের বিদায়ের পরও যথারীতি আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মাশরাফি বিন মর্তুজা। ঢাকার শেষ চারে ওঠা এবং সবার আগে বিদায় নেওয়া প্রসঙ্গে ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ দেওয়ার পর জাতীয় দলে খেলা এবং অধিনায়কত্ব নিয়েই বেশি প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হলো নড়াইল এঙপ্রেসকে। সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন উঠলো আপনি তো আগের দিন বলেছিলেন, পারফরম্যান্স অনুযায়ী দল গঠনের ক্ষেত্রে আপনি এখন আর অটোমেটিক চয়েজ নন। কিন্তু একজন অধিনায়ক হিসেবে আপনি তো এখনও প্রথম পছন্দ। এ বিষয়ে আপনার ব্যক্তিগত মতামত কি । মাশরাফি বলেন পারফরমারদের যাচাই বাছাইয়ের দায়িত্ব ও কর্তব্য নির্বাচকদের। সেটা তারাই ভালো জানেন। আর অধিনায়ক মনোনীত করে বোর্ড। বিসিবি চাইলে এখনই আমি অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেব। তাতে আমার কোন সমস্যা নেই। বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়কের এমন কথার পর খুব প্রাসঙ্গিকভাবেই যে প্রশ্নটা উঠলো সেটি হচ্ছে অধিনায়কত্বের ব্যাপারে আপনার সিদ্ধান্ত কি। মাশরাফি জানান আমার সিদ্ধান্তটা আমার কাছেই থাকুক। তবে ক্রিকেট বোর্ডকে ধন্যবাদ জানাতে দেরি করেননি তিনি। ধন্যবাদটা তিনি দিয়েছেন তাকে ঘটা করে বিদায় সম্ভাষণ জানানোর ঘোষণা দেয়ায়। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলা শেষ হওয়ার পর লন্ডনে বসেই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছিলেন, মাশরাফিকে বীরের মর্যাদায় বিদায়ী সংবর্ধনা দেয়া হবে। আগের দিন গত রোববার আবারও বিসিবি বস বললেন, মাশরাফিকে যতটা সম্ভব ঘটা করে বিদায় জানানো হবে এবং সেটা হবে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা বিদায়ীপর্ব। তবে তা নিয়ে মাশরাফির যে খুব একটা উৎসাহ আছে তেমন কিন্তু মনে হয় না। তা থাকলে আর এ কথা বলতেন না, আমার অমন বড়সড় বিদায়ী সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই। মাশরাফির শরীরী অভিব্যক্তিতে ফুটে উঠলো, ভালো কিছু হলে ভালো। না হলেও সমস্যা নেই। বিসিবি চাইলে এই মুহূর্তে অধিনায়কত্বও ছেড়ে দিতে রাজি আছেন দেশের সর্বকালের সেরা এই অধিনায়ক । তবে মাশরাফি জানান তিনি খেলাটা বেশ উপভোগ করছেন এ মুহূর্তে। বিপিএলের একেবারেই মন্দ করেননি। অনেকের চাইতে ভাল করেছেন এই বয়সেও। তাই খেলতে চান আরো কিছুদিন। আর সেটা যদি অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়ে হলেও। তবে অধিনায়কত্ব না থাকলে দলে যে মাশরাফির জাগা হবে না সেটাও বেশ ভালই জানা তার। তারপরও বললেন দেখা যাক কি হয়। হয়তো এক সময় বিদায়ই বলে দেবেন বাংলাদেশের সেরা এই অধিনায়ক।

x