বিনোদন বনাম মানবতা

অপু ইব্রাহিম : সন্দ্বীপ

সোমবার , ১৫ জুলাই, ২০১৯ at ১০:৩৮ পূর্বাহ্ণ
35

ফেসবুক এখন আর শুধু বন্ধুদের সাথে চ্যাটিং বা ফটো শেয়ারিং এর জন্য নয় বরং ফেসবুক থেকেই পরিচালিত হচ্ছে বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম।
সমাজের প্রতিনিয়ত ঘটমান নানা অন্যায় অবিচার এমনকি মাদকের বিরুদ্ধে এই ফেসবুক থেকেই সংগঠিত হয়ে রুখে দাঁড়িয়েছে হাজারো তরুণ। বর্তমান সময়ে ফেসবুকের মাধ্যমে মানবিক আবেদনের আলোড়ন দেখতে পাই আমরা প্রায়শই। এই ফেসবুক থেকেই রক্তদান থেকে শুরু করে ফান্ড রাইজিং এর মাধ্যমে অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর এমন নজির এখন আর বিরল নয়।
তেমনি একটি ফেসবুক গ্রুপ ফইন্নির রাজ্য পরবর্তীতে (সন্দ্বীপ হিউমিনিটি কেয়ার) নাম শুনলেই একটু কেমন মনে হতেই পারে। অথচ এ গ্রুপের মাধ্যমে সন্দ্বীপ এবং সন্দ্বীপের বাইরে গত ১ বছরে প্রায় ৩ লাখ টাকার অনুদান পৌঁছে দেয়া হয়েছে গরিব অসহায় মানুষের মাঝে। বিনোদনকে মানবতার কাছে লাগিয়ে দিন রাত স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে যাচ্ছে মানবতার কল্যাণে মানুষের পাশে দাঁড়াতে।
২০১৬ খ্রিস্টাব্দে বিনোদন হিসেবে গ্রুপটি খোলেন সাইফুল শাকিল। এরপর থেকে সবাই হাস্যরসে গ্রুপটিকে মাতিয়ে রাখতেন। গ্রুপটিতে বর্তমানে মেম্বার প্রায় ১৭ হাজার। পরবর্তীতে সাইফুল ইসলাম সৈকত নামে একজন প্রাইভেট চাকরিজীবী যুক্ত হন এডমিন প্যানেলে। তিনি চিন্তা করেন গ্রুপে হাজারো মেম্বার পোস্ট করে, কমেন্ট করে। গ্রুপটি থেকে মানবতার কাজ করা যায় কিনা! ক্যান্সারে আক্রান্ত ফয়সালের চিকিৎসার জন্য এগিয়ে আসলে দেশে বিদেশে অবস্থানরত অনেকেই সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন। প্রায় ২০ হাজার টাকা অনুদান উঠে স্বল্প সময়ে। এরপর থেকে তারা বিনোদনকে মানবতার কাজে লাগিয়ে শীতবস্ত্র বিতরণ, ইফতার সামগ্রী বিতরণ, বিভিন্ন রোগীদের নগদ অনুদান প্রদান করে আসছেন। বর্তমানে গ্রুপটি পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন সাইফুল ইসলাম সৈকত, সাইফুল শাকিল, সাইফুল ইসলাম, বেলায়েত হোসাইন মুন্না, আমান উল্লাহ্‌ আমান, রাসেল মাতুব্বর, হান্নান মীর, এস, কে শরীফ, জাবেদ হোসেন, মোহাম্মদ ইলিয়াছ, ফারহানা ইয়াছমিন ও আরিয়ান রাসেল।
গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা সাইফুল শাকিল বলেন, বিনোদন হিসেবে গ্রুপটি খুলে ছিলাম। মানব কল্যাণে কাজ করার কারণে বেশি জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ভালো কাজ করার জন্য নাম কোন ফ্যাক্ট না। সেটা আমরা প্রমাণ করতে পেরেছি।
গ্রুপের চীফ এডমিন মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম সৈকত বলেন, মানবসেবায় কাজ করার জন্য শুধু ইচ্ছা শক্তি থাকলেই সম্ভব। বিনোদন গ্রুপে আমরা সবাই হাসিখুশি থাকি সবসময়। তাই এ গ্রুপের মাধ্যমে আমরা চেয়েছি কিছু মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। সর্বদা মানবতার কল্যাণে কাজ করার লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
সাউথ সন্দ্বীপ কলেজ প্রভাষক অনিক কর পাপ্পু বলেন, সৈকত আমার স্কুল জীবনের বন্ধু। ভালো লাগে যখন আমার নিজের বন্ধু তার শ্রম, নিষ্ঠা, সততা দিয়ে কিছু অসাধারণ ছেলেদের নিয়ে প্রবাসী ভাইদের সাহায্য নিয়ে সমাজের অসহায় মানুষদের বাঁচার নতুন প্রেরণা যোগায়। অবশ্যই এর পেছনে ফেসবুকই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে। ভালোবাসা রইলো তাদের টিমের প্রতি।

x