বিজিবির সঙ্গে গোলাগুলিতে মাদক পাচারকারী নিহত

টেকনাফ প্রতিনিধি

মঙ্গলবার , ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৬:৩৭ অপরাহ্ণ

টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে গোলাগুলিতে এক মাদক পাচারকারী নিহত হয়েছেন।

নিহত মাদক পাচারকারী হলো, হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোড়া এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে মো. ইমাম হোসেন (২৫)।

টেকনাফ ব্যাটালিয়ান (বিজিবি)’র অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. ফয়সল হাসান খান বলেন, মঙ্গলবার ভোর রাতে দমদমিয়া বিওপির দায়িত্বপূর্ণ জাদিমোড়া এলাকায় নাফ নদী দিয়ে ইয়াবার একটি বড় চালান মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে পাচার হতে পারে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২বিজিবি) এর একটি বিশেষ টহল দল বর্ণিত এলাকায় গমন করে কৌশলগত অবস্থান গ্রহণ করে।

টহলদল দূর হতে এক ব্যক্তিকে নদীর পাড়ে কেওড়া বাগানে ঘোরাঘুরি করতে দেখে এবং কিছুক্ষণ পর কয়েকজন লোককে মিয়ানমারের লালদ্বীপ থেকে নৌকা নিয়ে নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দেখে।

নৌকাটি নদীর কিনারায় আসার সাথে সাথে উল্লেখিত ব্যক্তি নৌকার দিকে এগিয়ে যায় এবং টহলদল তাদের চ্যালেঞ্জ করলে বিজিবি’র উপস্থিতি লক্ষ্য করা মাত্রই উল্লেখিত ব্যক্তি এবং নৌকায় আরোহী সশস্ত্র ইয়াবা পাচারকারীরা অতর্কিতভাবে গুলি বর্ষণ করতে থাকে।

ফলে দুই বিজিবি সদস্য আহত হয়। এ সময় বিজিবি’র টহলদলটি সরকারী সম্পদ ও নিজেদের জানমাল রক্ষার্থে কৌশলগত অবস্থান নিয়ে পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। উভয়পক্ষের মধ্যে প্রায় ৭-৮ মিনিট গুলিবিনিময় হয়।
এরপর নৌকায় আরোহী ইয়াবা পাচারকারীরা গুলি করতে করতে কেওড়া বাগানের ভিতরের খাল দিয়ে নৌকা সহকারে দ্রুত পালিয়ে যায়।

গোলাগুলির শব্দ থামার পর টহলদলের সদস্যরা উক্ত এলাকা তল্লাশি করে নাফ নদীর পাড়ে এক ব্যক্তিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পরে থাকতে দেখে।

গুরুতর আহত ব্যক্তিকে দ্রুত উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে জরুরি চিকিৎসা সেবা প্রদান করার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, ঘটনাস্থল থেকে এক লক্ষ বিশ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট, একটি দেশীয় তৈরী বন্দুক, দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজ এবং একটি ধারালো কিরিচ জব্দ করা হয়।

x