বান্দরবানের বাইশারীতে শিশু ধর্ষণের অভিযোগ

বান্দরবান প্রতিনিধি

বৃহস্পতিবার , ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ at ৯:৪৬ অপরাহ্ণ
33

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে সাত বছরের এক শিশু কন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

তবে ঘটনার পর থেকে দোকান কর্মচারী ধর্ষক জয়নাল আবেদীন (১৭) পলাতক রয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) পুলিশ দোকানের মালিককে আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার মধ্যম বাইশারী এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থেকে মানুষের বাড়িতে কাজ করে ৭ বছরের মেয়েটিকে স্কুলে লেখাপড়া করাচ্ছেন ইসমত আরা।

মঙ্গলবার দুপুরে তিনি মানুষের বাড়িতে কাজ করতে গেলে বাড়ির মালিক ছৈয়দ আলমের দোকানের কর্মচারী জয়নাল আবেদীন তার শিশু মেয়েকে তাদের বাসায় ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে শিশুটির অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ দেখতে পায় পাশের লোকজন।

ঘটনার পর বাড়ির মালিক বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিলেও বুধবার রাত পর্যন্ত তিনি শিশু মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তি করাননি। এ ব্যাপারে কাউকে অভিযোগও করেননি।

এদিকে ঘটনার পর ধর্ষক জয়নালকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে বাড়ির মালিক ছৈয়দ আলমের বিরুদ্ধে।

ধর্ষিত শিশুর মা ইসমত আরা ও গ্রামের মেম্বার নুরুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, ধর্ষণের বিষয়টি শোনার পর তা বাড়ির মালিক ছৈয়দ আলমকে জানিয়েছেন তারা। শিশুটির নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণে কোনো পদক্ষেপ নেয়ননি ছৈয়দ আলম। বরং তার কর্মচারী ধর্ষক বখাটে জয়নালকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছে।

তবে বাড়ির মালিক ছৈয়দ আলম বলেন, ‘জয়নাল আমার দোকানের কর্মচারী ছিল। তবে ঘটনার পর আমি কিছু বুঝে উঠতে পারিনি তাই তাকে বিদায় করে দিয়েছি।’

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী বলেন, ‘ধর্ষণের বিষয়ে কেউ এখনো কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ না করলে পুলিশের তেমন কিছুই করার থাকে না ‘

এদিকে বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দোকানের মালিক ছৈয়দ আলমকে আটক করেছে।

অন্যদিকে ধর্ষিত শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেছে তার পরিবার।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন।

x