‘বাংলা উচ্চারণে সমস্যা কার্টুন দেখে’

রবিবার , ১৪ জুলাই, ২০১৯ at ৮:৩১ পূর্বাহ্ণ
237

 

ছোটবেলায় টিভিতে অতিরিক্ত কার্টুন দেখার ফলে বাংলা উচ্চারণ পুরোপুরি রপ্ত করতে পারেননি বলে জানালেন এই সময়ের সম্ভাবনাময় মডেলঅভিনেত্রী শাহতাজ মনিরা হাশেম। বছর পাঁচেক আগে একটি বিজ্ঞাপনের মধ্যে দিয়ে হঠাৎ শোবিজে আবির্ভাব হয় তার। ছোট্ট ক্যারিয়ারে অল্প কয়েকটি নাটক আর মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করে প্রশংসিত হলেও নিজের বাংলা উচ্চারণ নিয়ে বরাবরই বিদ্রুপের মুখে পড়তে হয়েছে সিএ পড়ুয়া এ মডেলকে। তিনি জানান, আধেক বাংলা আর আধেক ইংরেজিতে কথা বলায় অনেকে ভাবেন, তার জন্ম দেশের বাইরে কিংবা বেড়ে উঠেছেন বিদেশ বিভূঁইয়ে। কিন্তু বিষয়টি আসলে তা নয়; তার জন্ম ও বেড়ে উঠা ঢাকায়। ঢাকায় জন্ম নিয়েও অনর্গল বাংলা উচ্চারণ রপ্ত করতে না পারার পেছনে বিদেশি কার্টুনকে দায়ী করলেন শাহতাজ। তিনি বলেন, ‘বাচ্চাকাল থেকেই আমি ঘরে মানুষ হয়েছি। স্কুলিং সেরকমভাবে পাইনি। সারাদিন বাসায় নিজের মতো করে থাকতাম।আর কার্টুন দেখতাম নিয়মিত। ওখান (কার্টুন) থেকেই আমার এই (ইংরেজি) উচ্চারণটা ঢুকে গেছে; ফলে বাংলায় সমস্যাটা তৈরি হয়েছে।’ খবর বিডিনিউজের।

বাংলা উচ্চারণ পুরোপুরি রপ্ত করতে নিজে থেকেই যোগাড়যন্ত্র শুরু করেছেন; এতে সার্বক্ষণিক নির্দেশনা পাচ্ছেন মায়ের কাছ থেকে। বললেন, ‘আম্মু আমাকে সারাক্ষণ বলে, বাংলায় কথা বলো। আমাকে শেখায়। সে অনুপাতেই প্রাকটিস করি। আমার স্ক্রিপ্টও আম্মুই পড়ে দেয়। আমার চরিত্রের দৃশ্যায়নও তৈরি করে দেন। মায়ের অনুপ্রেরণায় আমি নিজের উন্নতির চেষ্টা করছি। আমার উন্নতি ঘটছে দেখে ভালো লাগছে।’ অভিনয়ে নিজের সেরাটা মেলে ধরার ক্ষেত্রে ভাষাগত জটিলতাকেই সবচেয়ে বড় বাধা মানছেন ‘চিনিগুড়া প্রেম’ নাটকের এ অভিনেত্রী। তার ভাষায়, ‘এটা ঠিক করতে পারলে অভিনয়ে আমি আরও ভালো করব। আমি যে ধরনের চরিত্র করি সেগুলোতে ইংরেজি উচ্চারণ একেবারেই যাচ্ছে না। আমাদের দর্শকদের ইংরেজি বুঝতে একটু কষ্ট হয়। ফলে আমার আরও বেশি বাংলায় সংলাপ বলা দরকার।’ ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই মিউজিক ভিডিওতে অভিনয় করলেও সমপ্রতি মিউজিক ভিডিওতে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নিয়ে নাটকে মনোযোগী হওয়ার কথা জানালেন তিনি। আসছে ঈদ উপলক্ষে ইতোমধ্যে তিনটি নাটকে অভিনয়ের কথা চূড়ান্ত করেছেন। পাশাপাশি আরও দুইটি নাটক মিলিয়ে এবার ঈদে মোট পাঁচটি নাটকে দেখা যাবে তাকে। অভিনয়ের পাশাপাশি গানেও নিজেকে শাণিত করছেন তিনি। জানালেন, ‘ইন্টারন্যাশনাল আর্টিস্টদের’ মতো ইউটিউব চ্যানেলও খুলে ফেলেছেন। সেখানেই নিজের কাজগুলো নিয়মিত প্রকাশ করবেন। অখণ্ড অবসরে রঙতুলির আঁচড়ে আঁকিবুকিতে সময় কাটাতে পছন্দ করেন তিনি।

x