বন্দরে ১৩ হাজার ৯৭৩ লিটার বিয়ার ও এনার্জি ড্রিংক জব্দ

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ২৪ মে, ২০১৮ at ৬:০৭ পূর্বাহ্ণ
113

চট্টগ্রাম বন্দরে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত ১৩ হাজার ৯৭৩ লিটার বিয়ার ও এনার্জি ড্রিংক এর একটি চালান আটক করেছে কাস্টম কর্তৃপক্ষ। গত মঙ্গলবার দুপুরে চালানটি বন্দরে পৌঁছে। তবে বুধবার বন্দর ইয়ার্ডে কায়িক পরীক্ষায় জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ে। ২০ ফুট দীর্ঘ কন্টেইনারে আসা এসব পণ্যে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান প্রায় ৭০ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকি দেয়ার চেষ্টা করছিলো বলে জানায় কাস্টমসের কর্মকর্তারা।

কাস্টমস সূত্র জানায়, কাস্টমসের জেটি পরীক্ষণ শাখার সহকারী কমিশনার মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে কায়িক পরীক্ষার সময় মিথ্যা ঘোষণার পণ্য আমদানির বিষয়টি ধরা পড়ে। কন্টেনারে পাওয়া যায় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিয়ার ও সমজাতীয় পানীয়। সোনারগাঁ ট্রেড ইন্টার ন্যাশনাল নামে একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান কার্বোনেটেড ড্রিংকস ঘোষণা দিয়ে চালানটি আমদানি করে। আমদানিকারকের পক্ষে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রতিষ্ঠান কাবেরি শিপিং চালানটি খালাস নিতে আসে। সন্দেহজনক হওয়ায় চালানটি গতকাল কায়িক পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেয় চট্টগ্রাম কাস্টমসের অডিট ইনভেস্টিগেশন ও রিচার্স (এআইআর) শাখা। কায়িক পরীক্ষায় ১ হাজার ৯০০ লিটার হানিকেন বিয়ার, ৮১৭ লিটার লেজার বিয়ার, ৭৯২ লিটার জিনজার বিয়ার, ১ হাজার ৪৯৯ লিটার পাওয়ার হর্স এনার্জি ড্রিংক, ৬ হাজার ৪৮ লিটার রেড বুল এনার্জি ড্রিংকসহ মোট ১৩ হাজার ৯৭৩ লিটার বিয়ার ও সমজাতীয় পানীয় দেখতে পান কর্মকর্তারা।

কর্মকর্তারা বলছেন, বিয়ার জাতীয় পণ্য আমদানির জন্য মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নিতে হয় আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের। যদি অধিদপ্তর কর্তৃক ওই ছাড়পত্র থাকে এবং বিয়ারের ওপর প্রযোজ্য শুল্ক পরিশোধ হয়, তাহলে ছাড় করতে পারবে। নয়তো রাষ্ট্রের অনুকূলে সেই সব পণ্য বাজেয়াপ্ত হবে।

এবিষয়ে চট্টগ্রাম কাস্টমসের উপকমিশনার নুর উদ্দিন মিলন দৈনিক আজাদীকে বলেন, সরকারি শুল্ক ফাঁকি দিতে চালানটি মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা হয়েছে। কায়িক পরীক্ষায় হ্যানিকেন বিয়ার, লেজার বিয়ার, জিনজার বিয়ার, পাওয়ার হর্স এনার্জি ড্রিংক, রেড বুল এনার্জি ড্রিংকস সহ ১৩ হাজার ৯৭৩ লিটার বিয়ার ও সমজাতীয় পানীয় পাওয়া গেছে।

x